রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ১৬ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারতের বিকল্প বাজার মিয়ানমার থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ চট্টগ্রাম বন্দরে

সেলিম রেজা ##

ভারতের বিকল্প বাজার মিয়ানমার থেকে আমদানি করা দুই কনটেইনার পেঁয়াজ চট্টগ্রাম বন্দরে এসে পৌঁছেছে। চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর দিয়ে দেশে এলসি হওয়া পেঁয়াজের প্রথম চালান এটি।

মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ৫৮ মেট্রিক টন পেঁয়াজ খালাস করা হয়েছে। এসব পেঁয়াজ আমদানি করে চট্টগ্রামের প্রতিষ্ঠান কায়েল স্টোর।

চট্টগ্রাম উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপ-পরিচালক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান বুলবুল জানান, পেঁয়াজের প্রথম চালানটি চট্টগ্রাম বন্দরে এসে পৌঁছেছে। এসব পেঁয়াজ এসেছে মিয়ানমার থেকে।

এর পরপরই পাকিস্তান থেকে এসেছে আরও ১১৬ টন পেঁয়াজ। এছাড়া তুরস্ক, নেদারল্যান্ডস ও মিসর থেকেও পেঁয়াজ আমদানি পাইপলাইনে আছে।

জানা গেছে, চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্র থেকে এক লাখ ৪৭ হাজার ৫৫৪ টন পেঁয়াজ আমদানির জন্য ৩২২টি অনুমতিপত্র (আইপি) নিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

এদিকে বন্দরে পেঁয়াজ আমদানির খবরে স্বস্তি ফিরেছে খাতুনগঞ্জের পাইকারি বাজারে। পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা বলছেন, দেশে পেঁয়াজের সংকট আর থাকবে না।

কোনো ঘোষণা ছাড়াই গত ১৪ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয় ভারত। এরপরই দেশের বাজারে বাড়তে থাকে এ নিত্যপণ্যের দাম। তখন পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে ভারতের বিকল্প বাজার থেকে পেঁয়াজ আমদানির পরামর্শ দেন সংশ্লিষ্টরা। যদিও বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি চালিয়ে যেতে নয়াদিল্লির সঙ্গে কূটনৈতিক পর্যায়েও যোগাযোগ করে ঢাকা।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

বিদ্যুৎ গ্যাস ও তেলের মূল্যবৃদ্ধির ক্ষমতা পেল সরকার, বিল পাস

ভারতের বিকল্প বাজার মিয়ানমার থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ চট্টগ্রাম বন্দরে

প্রকাশের সময় : ০৮:৫৯:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

সেলিম রেজা ##

ভারতের বিকল্প বাজার মিয়ানমার থেকে আমদানি করা দুই কনটেইনার পেঁয়াজ চট্টগ্রাম বন্দরে এসে পৌঁছেছে। চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর দিয়ে দেশে এলসি হওয়া পেঁয়াজের প্রথম চালান এটি।

মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ৫৮ মেট্রিক টন পেঁয়াজ খালাস করা হয়েছে। এসব পেঁয়াজ আমদানি করে চট্টগ্রামের প্রতিষ্ঠান কায়েল স্টোর।

চট্টগ্রাম উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপ-পরিচালক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান বুলবুল জানান, পেঁয়াজের প্রথম চালানটি চট্টগ্রাম বন্দরে এসে পৌঁছেছে। এসব পেঁয়াজ এসেছে মিয়ানমার থেকে।

এর পরপরই পাকিস্তান থেকে এসেছে আরও ১১৬ টন পেঁয়াজ। এছাড়া তুরস্ক, নেদারল্যান্ডস ও মিসর থেকেও পেঁয়াজ আমদানি পাইপলাইনে আছে।

জানা গেছে, চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্র থেকে এক লাখ ৪৭ হাজার ৫৫৪ টন পেঁয়াজ আমদানির জন্য ৩২২টি অনুমতিপত্র (আইপি) নিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

এদিকে বন্দরে পেঁয়াজ আমদানির খবরে স্বস্তি ফিরেছে খাতুনগঞ্জের পাইকারি বাজারে। পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা বলছেন, দেশে পেঁয়াজের সংকট আর থাকবে না।

কোনো ঘোষণা ছাড়াই গত ১৪ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয় ভারত। এরপরই দেশের বাজারে বাড়তে থাকে এ নিত্যপণ্যের দাম। তখন পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে ভারতের বিকল্প বাজার থেকে পেঁয়াজ আমদানির পরামর্শ দেন সংশ্লিষ্টরা। যদিও বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি চালিয়ে যেতে নয়াদিল্লির সঙ্গে কূটনৈতিক পর্যায়েও যোগাযোগ করে ঢাকা।