মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ১৭ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নতুন বছরেই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে চাই: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সাজেদুর রহমান ,বিশেষ প্রতিনিধি ## নতুন বছরেই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন চালু করতে চায় ঢাকা। এ জন্য বছরের শুরুতেই মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে চিঠি লিখেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড এ কে আব্দুল মোমেন। ওই চিঠিতে চলতি বছরে প্রত্যাবাসনের শুরু করতে নিয়ে আনবারের সহযোগিতা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। পাশাপাশি রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাপান এবং ভারতকে নিয়ে আলাদা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড এ কে আব্দুল মোমেন রবিবার বলেন, এ বছরটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। নতুন বছরে আমরা রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন চালু করতে চাই। বছরের শুরুর দিনে মিয়ানমারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে আমি চিঠি লিখেছি। বছরের শুভেচ্ছা জানিয়ে চিঠিতে বলেছি, আপনারা বলছেন যে নিরাপদে এবং সম্মানের সঙ্গে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিয়ে যাবেন। রাখাইনে ইতিবাচক পরিবেশ সৃষ্টি করবেন যাতে রোহিঙ্গা ফেরত যায়। এ প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া প্রসেসটা এখনো চালু হয়নি, এ জন্য পলিটিক্যাল বই দরকার। আমরা বিশ্বাস করি, আপনারা আপনাদের দেয়া কথা রাখবেন এবং এই বছরই প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া চালু হবে।
পররাষ্ট্র মন্ত্রী আরো বলেন, চিঠিতে আমি বলেছি যে শান্তির জন্য রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা শান্তি ছাড়া এই অঞ্চলের উন্নয়ন সম্ভব না। আর রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে না দিলে অশান্তি সৃষ্টি হবে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের জন্য দ্বিপাক্ষিক-ত্রিপাক্ষিক-বহুপাক্ষিকসহ একাধিক উদ্যোগ চলমান। এ সংকট মেটাতে আমরা জাপানকে প্রস্তাব দিয়েছে যাতে তারা আমাদের সহায়তা করে। জাপান রাজি হয়েছে। ভারতকে বলেছি এই বিষয়ে আমাদের সহায়তা করতে তারাও রাজি হয়েছে। আর চীনের সঙ্গে এর আগে নেয়া উদ্যোগ এখনো চলমান রয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

বেনাপোল নোম্যান্সল্যান্ডে বসবে দুই বাংলার ভাষা প্রেমীদের মিলন মেলা -শেখ আফিল উদ্দিন, এমপি

নতুন বছরেই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে চাই: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশের সময় : ০৭:০২:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ জানুয়ারী ২০২১
সাজেদুর রহমান ,বিশেষ প্রতিনিধি ## নতুন বছরেই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন চালু করতে চায় ঢাকা। এ জন্য বছরের শুরুতেই মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে চিঠি লিখেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড এ কে আব্দুল মোমেন। ওই চিঠিতে চলতি বছরে প্রত্যাবাসনের শুরু করতে নিয়ে আনবারের সহযোগিতা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। পাশাপাশি রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাপান এবং ভারতকে নিয়ে আলাদা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড এ কে আব্দুল মোমেন রবিবার বলেন, এ বছরটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। নতুন বছরে আমরা রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন চালু করতে চাই। বছরের শুরুর দিনে মিয়ানমারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে আমি চিঠি লিখেছি। বছরের শুভেচ্ছা জানিয়ে চিঠিতে বলেছি, আপনারা বলছেন যে নিরাপদে এবং সম্মানের সঙ্গে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিয়ে যাবেন। রাখাইনে ইতিবাচক পরিবেশ সৃষ্টি করবেন যাতে রোহিঙ্গা ফেরত যায়। এ প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া প্রসেসটা এখনো চালু হয়নি, এ জন্য পলিটিক্যাল বই দরকার। আমরা বিশ্বাস করি, আপনারা আপনাদের দেয়া কথা রাখবেন এবং এই বছরই প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া চালু হবে।
পররাষ্ট্র মন্ত্রী আরো বলেন, চিঠিতে আমি বলেছি যে শান্তির জন্য রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা শান্তি ছাড়া এই অঞ্চলের উন্নয়ন সম্ভব না। আর রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে না দিলে অশান্তি সৃষ্টি হবে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের জন্য দ্বিপাক্ষিক-ত্রিপাক্ষিক-বহুপাক্ষিকসহ একাধিক উদ্যোগ চলমান। এ সংকট মেটাতে আমরা জাপানকে প্রস্তাব দিয়েছে যাতে তারা আমাদের সহায়তা করে। জাপান রাজি হয়েছে। ভারতকে বলেছি এই বিষয়ে আমাদের সহায়তা করতে তারাও রাজি হয়েছে। আর চীনের সঙ্গে এর আগে নেয়া উদ্যোগ এখনো চলমান রয়েছে।