শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

যশোরে টিকা নিতে মানুষের উপচে পড়া ভিড়

যশোর ব্যুরো।। যশোরে টিকা নিয়ে মানুষের আগ্রহ গতকালও পরিলক্ষিত হয়েছে। যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের টিকাদান কেন্দ্রে আজও ছিল টিকা নিতে আসা মানুষের উপচেপড়া ভিড়। বিভিন্ন বয়সী নারী ও পুরুষ একা বা পরিবারের সদস্যদের সাথে নিয়ে টিকা গ্রহণ করতে এসেছিলেন। দীর্ঘদিন যশোর নার্সিং ইনস্টিটিউটে টিকা গ্রহীতারা রোদে পুড়ে ও বৃষ্টিতে ভিজে টিকা নিচ্ছেলেন। জনসাধারণের দুর্ভোগের চিত্র দেখে সেখানে ছাউনির ব্যবস্থা করেছেন সদর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল। সেখানে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে মানুষকে উৎসবমুখর পরিবেশে টিকা নিতে দেখা যায়।
গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় করোনার টিকা নিয়েছেন চার হাজার পাঁচশ’ ১০ জন। এর মধ্যে পুরুষ দুই হাজার চারশ’ ৮৬ জন ও নারী দুই হাজার ২৪ জন। এছাড়া সদর উপজেলায় দুই হাজার একশ’ ১৬ জন, অভয়নগরে তিনশ’ ৪৬, বাঘারপাড়ায় দুইশ’ ৭৬, চৌগাছায় দুইশ’ ৫৬, ঝিকরগাছায় তিনশ’ ৫৮, কেশবপুরে চারশ’ ২, মণিরামপুরে পাঁচশ’ ৫২ ও শার্শায় দুইশ’ ৮৪ জন করে রয়েছেন।
টিকা নিতে আসা হালিমা বেগম জানান, টিকা নেয়ার আগে ভীতি কাজ করেছিল। কিন্তু টিকা নেয়ার সময় তা একেবারেই টের পাইনি। আজকে প্রথম টিকা নিয়েছি। আগামী ৪ সপ্তাহ পরে আবারও আসতে বলা হয়েছে দ্বিতীয় ডোজের জন্য। আগে টিকা গ্রহীতাদের রোদ বৃষ্টিতে কষ্ট করতে হলেনও ছাউনি দেয়াতে সে কষ্ট লাঘব হয়েছে।
হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আখতারুজ্জামান জানান, সকাল নয়টা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত টিকাদান কার্যক্রম চলমান আছে। তবে, যতক্ষণ লোকজন আসবে ততক্ষণ টিকাদান চলবে। প্রতিদিন আমরা আশানুরূপ সাড়া পাচ্ছি। অনেক মানুষ নিজ থেকে আগ্রহী হয়ে টিকা নিতে আসছেন। আশাকরি আরও মানুষ আসবেন। আমরা তাদেরকে নিয়ম অনুযায়ী সেবা প্রদান করবো।

যশোরে টিকা নিতে মানুষের উপচে পড়া ভিড়

প্রকাশের সময় : ১০:১৫:৪৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১

যশোর ব্যুরো।। যশোরে টিকা নিয়ে মানুষের আগ্রহ গতকালও পরিলক্ষিত হয়েছে। যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের টিকাদান কেন্দ্রে আজও ছিল টিকা নিতে আসা মানুষের উপচেপড়া ভিড়। বিভিন্ন বয়সী নারী ও পুরুষ একা বা পরিবারের সদস্যদের সাথে নিয়ে টিকা গ্রহণ করতে এসেছিলেন। দীর্ঘদিন যশোর নার্সিং ইনস্টিটিউটে টিকা গ্রহীতারা রোদে পুড়ে ও বৃষ্টিতে ভিজে টিকা নিচ্ছেলেন। জনসাধারণের দুর্ভোগের চিত্র দেখে সেখানে ছাউনির ব্যবস্থা করেছেন সদর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল। সেখানে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে মানুষকে উৎসবমুখর পরিবেশে টিকা নিতে দেখা যায়।
গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় করোনার টিকা নিয়েছেন চার হাজার পাঁচশ’ ১০ জন। এর মধ্যে পুরুষ দুই হাজার চারশ’ ৮৬ জন ও নারী দুই হাজার ২৪ জন। এছাড়া সদর উপজেলায় দুই হাজার একশ’ ১৬ জন, অভয়নগরে তিনশ’ ৪৬, বাঘারপাড়ায় দুইশ’ ৭৬, চৌগাছায় দুইশ’ ৫৬, ঝিকরগাছায় তিনশ’ ৫৮, কেশবপুরে চারশ’ ২, মণিরামপুরে পাঁচশ’ ৫২ ও শার্শায় দুইশ’ ৮৪ জন করে রয়েছেন।
টিকা নিতে আসা হালিমা বেগম জানান, টিকা নেয়ার আগে ভীতি কাজ করেছিল। কিন্তু টিকা নেয়ার সময় তা একেবারেই টের পাইনি। আজকে প্রথম টিকা নিয়েছি। আগামী ৪ সপ্তাহ পরে আবারও আসতে বলা হয়েছে দ্বিতীয় ডোজের জন্য। আগে টিকা গ্রহীতাদের রোদ বৃষ্টিতে কষ্ট করতে হলেনও ছাউনি দেয়াতে সে কষ্ট লাঘব হয়েছে।
হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আখতারুজ্জামান জানান, সকাল নয়টা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত টিকাদান কার্যক্রম চলমান আছে। তবে, যতক্ষণ লোকজন আসবে ততক্ষণ টিকাদান চলবে। প্রতিদিন আমরা আশানুরূপ সাড়া পাচ্ছি। অনেক মানুষ নিজ থেকে আগ্রহী হয়ে টিকা নিতে আসছেন। আশাকরি আরও মানুষ আসবেন। আমরা তাদেরকে নিয়ম অনুযায়ী সেবা প্রদান করবো।