শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

প্রতীকী ছবি

নোয়াখালী প্রতিনিধি ।।

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে দশম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি উপজেলার একটি গ্রামের এ ঘটনায় অভিযুক্ত একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শনিবার দিবাগত রাতে সোনাইমুড়ী বাজার থেকে গ্রেপ্তার মো.রুবেল (২৬) উপজেলার বাড্ডা এলাকার মৃত আবুল খায়েরের ছেলে। অভিযুক্ত আরও তিন যুবক পলাতক রয়েছে।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়,  পৌর সদরের একটি হাইস্কুলের দশম শ্রেণির ওই ছাত্রীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে ফাঁদ পাতে রুবেল। এর পর প্রথমে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ২৫ জুলাই রুবেল তাকে ধর্ষণ করে। এরপর ৩০ জুলাই রাত পৌনে ১১টার দিকে রুবেলের ফুপাতো ভাই  জুয়েল (২৫) সহ অজ্ঞাত আরও তিনজন উপজেলার একটি গ্রামে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে।

পুলিশ অভিযান চালিয়ে মামলার প্রধান আসামি রুবেলকে গ্রেপ্তারের পর রোববার দুপুরে নোয়াখালী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে।ওইদিন বিকেলে রুবেল নিজের দোষ স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়।পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.তৌহিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় নির্যাতনের শিকার কিশোরী নিজেই বাদী হয়ে চারজনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে সোনাইমুড়ী থানায় মামলা করেছেন।

তিনি জানান, পুলিশ প্রধানা আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে। আদালতে আসামি ১৬৪ ধারায় নিজের দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়। অভিযুক্ত অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

প্রকাশের সময় : ০৫:০৬:১১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২ অগাস্ট ২০২১

নোয়াখালী প্রতিনিধি ।।

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে দশম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি উপজেলার একটি গ্রামের এ ঘটনায় অভিযুক্ত একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শনিবার দিবাগত রাতে সোনাইমুড়ী বাজার থেকে গ্রেপ্তার মো.রুবেল (২৬) উপজেলার বাড্ডা এলাকার মৃত আবুল খায়েরের ছেলে। অভিযুক্ত আরও তিন যুবক পলাতক রয়েছে।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়,  পৌর সদরের একটি হাইস্কুলের দশম শ্রেণির ওই ছাত্রীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে ফাঁদ পাতে রুবেল। এর পর প্রথমে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ২৫ জুলাই রুবেল তাকে ধর্ষণ করে। এরপর ৩০ জুলাই রাত পৌনে ১১টার দিকে রুবেলের ফুপাতো ভাই  জুয়েল (২৫) সহ অজ্ঞাত আরও তিনজন উপজেলার একটি গ্রামে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে।

পুলিশ অভিযান চালিয়ে মামলার প্রধান আসামি রুবেলকে গ্রেপ্তারের পর রোববার দুপুরে নোয়াখালী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে।ওইদিন বিকেলে রুবেল নিজের দোষ স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়।পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.তৌহিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় নির্যাতনের শিকার কিশোরী নিজেই বাদী হয়ে চারজনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে সোনাইমুড়ী থানায় মামলা করেছেন।

তিনি জানান, পুলিশ প্রধানা আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে। আদালতে আসামি ১৬৪ ধারায় নিজের দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়। অভিযুক্ত অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।