সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

করোনায় বড় ভাইয়ের মৃত্যুর পর ছোট ভাইয়ের মৃত্যু

বেনাপোল প্রতিনিধি।। যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে বড় ভাইয়ের মৃত্যুর ৩১ দিনপর ছোট ভাই হাফিজুর রহমানের (৪২) মৃত্যু হয়েছে। সে বেনাপোল পোর্ট থানার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের ১ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং ওই গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে ছিলেন।
গতকাল সোমবার (০২ আগস্ট) দুপুরে খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। এর আগে গত ৩০ জুন তার বড় ভাই আজিজুর রহমান করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যায়।
বাহাদুরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান হাফিজুরের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে জানান, সে করোনা আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। ৩০ জুলাই তার শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে প্রথমে যশোর ও পরে অবস্থার অবনতি হলে খুলনায় নেওয়া হয়। সেখানে সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। এর আগে করোনা আক্রান্ত হয়ে তার বড় ভাই আজিজুর রহমান মারা যায়। এক মাসের ব্যবধানে দুই ভাইয়ের অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ইউছুফ আলী জানান, নিহতের মরদেহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, সরকারি হিসেবে এ পর্যন্ত শার্শা উপজেলাতে ১ হাজার ১৩৭ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে মারা গেছেন ১১ জন।
এদিকে স্থানীয়রা জানান, করোনায় সরকারি হিসেবে আক্রান্তের সংখ্যা ১১৩৭ জন ও মৃত্যুর সংখ্যা ১১ জন হলেও বেসরকারি হিসেবে করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা তিনগুণ। আক্রান্তরা পরীক্ষা না করায় সঠিক হিসাব সরকারি খাতা কলমে আসছে না।

করোনায় বড় ভাইয়ের মৃত্যুর পর ছোট ভাইয়ের মৃত্যু

প্রকাশের সময় : ০৮:১৪:০২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩ অগাস্ট ২০২১
বেনাপোল প্রতিনিধি।। যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে বড় ভাইয়ের মৃত্যুর ৩১ দিনপর ছোট ভাই হাফিজুর রহমানের (৪২) মৃত্যু হয়েছে। সে বেনাপোল পোর্ট থানার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের ১ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং ওই গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে ছিলেন।
গতকাল সোমবার (০২ আগস্ট) দুপুরে খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। এর আগে গত ৩০ জুন তার বড় ভাই আজিজুর রহমান করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যায়।
বাহাদুরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান হাফিজুরের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে জানান, সে করোনা আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। ৩০ জুলাই তার শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে প্রথমে যশোর ও পরে অবস্থার অবনতি হলে খুলনায় নেওয়া হয়। সেখানে সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। এর আগে করোনা আক্রান্ত হয়ে তার বড় ভাই আজিজুর রহমান মারা যায়। এক মাসের ব্যবধানে দুই ভাইয়ের অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ইউছুফ আলী জানান, নিহতের মরদেহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, সরকারি হিসেবে এ পর্যন্ত শার্শা উপজেলাতে ১ হাজার ১৩৭ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে মারা গেছেন ১১ জন।
এদিকে স্থানীয়রা জানান, করোনায় সরকারি হিসেবে আক্রান্তের সংখ্যা ১১৩৭ জন ও মৃত্যুর সংখ্যা ১১ জন হলেও বেসরকারি হিসেবে করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা তিনগুণ। আক্রান্তরা পরীক্ষা না করায় সঠিক হিসাব সরকারি খাতা কলমে আসছে না।