বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সুন্দরবনে মহিষ আনতে গিয়ে নিখোঁজ ব্যক্তি একদিন পর উদ্ধার

ছবি: নিখোঁজ আ. রহমান খান

শেখ নাজমুল, শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি ।।

সুন্দরবনে মহিষ আনতে গিয়ে নিখোঁজ আ. রহমান খান (৫৫) নামে এক ব্যক্তিকে উদ্ধার করেছে জেলেরা। নিখোঁজের একদিন পর বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে তাকে উদ্ধার করা হয়। তিনি বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলার সাউথখালী ইউনিয়নের বগী গ্রামের মৃত ইয়াছিন খানের ছেলে।
বুধবার (১৮আগস্ট) সকাল ৯টার দিকে পূর্ব বনবিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের বগী স্টেশনের আওতাধীন ডুমুরিয়া এলাকায় ৭ সঙ্গীসহ মহিষ আনতে গিয়েছিলেন আ. রহমান।
উপজেলার সাউথখালী ইউনিয়নের বনসংলগ্ন বগী ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. রিয়াদুল পঞ্চায়েত জানান, সুন্দরবনে ছেড়ে লালন-পালন করা বগী গ্রামের ছালাম চৌকিদারের নিখোঁজ হওয়া একটি মহিষ রহমানের জামাইয়ের কাছে বিক্রি করেন। সেই মহিষ আনতে মালিকের দুই ছেলে রাজু ও রাসেলসহ সাত জন বনে যান। মহিষটি ধরতে গেলে দৌঁড়ে বনের মধ্যে ঢুকে পড়ে। তখন রহমানও মহিষের পিছু নেন। একপর্যায় মহিষের সঙ্গে রহমানও নিখোঁজ হন। পরে তার সঙ্গীরা সারাদিন বনে খোঁজ করে তাকে উদ্ধার করতে না পেরে এলাকায় খবর দেন।
খবর পেয়ে ওইদিন বিকেলে ৪০-৫০জন গ্রামবাসী দুটি ট্রলারযোগে ঘটনাস্থলে গিয়ে রাত ১১টা পর্যন্ত তল্লাশি করে তারাও উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসেন। পরেরদিন বৃহস্পতিবার (১৯ আগস্ট) সকাল ৭টার দিকে বনের চাঁনমারী এলাকায় নির্জন চরে একা হাটতে দেখে বলেশ্বর নদে মাছধরারত সিরাজ ফরাজী নামে এক জেলে তাকে উদ্ধার করে তার ট্রলারে করে বাড়িতে নিয়ে আসেন।
পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা স্টেশন কর্মকর্তা (এসও) মো. আব্দুল মান্নান জানান, মহিষ খুঁজতে গিয়ে আ. রহমানের নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সুন্দরবনে মহিষ আনতে গিয়ে নিখোঁজ ব্যক্তি একদিন পর উদ্ধার

প্রকাশের সময় : ০৬:৩৪:০৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৯ অগাস্ট ২০২১

শেখ নাজমুল, শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি ।।

সুন্দরবনে মহিষ আনতে গিয়ে নিখোঁজ আ. রহমান খান (৫৫) নামে এক ব্যক্তিকে উদ্ধার করেছে জেলেরা। নিখোঁজের একদিন পর বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে তাকে উদ্ধার করা হয়। তিনি বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলার সাউথখালী ইউনিয়নের বগী গ্রামের মৃত ইয়াছিন খানের ছেলে।
বুধবার (১৮আগস্ট) সকাল ৯টার দিকে পূর্ব বনবিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের বগী স্টেশনের আওতাধীন ডুমুরিয়া এলাকায় ৭ সঙ্গীসহ মহিষ আনতে গিয়েছিলেন আ. রহমান।
উপজেলার সাউথখালী ইউনিয়নের বনসংলগ্ন বগী ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. রিয়াদুল পঞ্চায়েত জানান, সুন্দরবনে ছেড়ে লালন-পালন করা বগী গ্রামের ছালাম চৌকিদারের নিখোঁজ হওয়া একটি মহিষ রহমানের জামাইয়ের কাছে বিক্রি করেন। সেই মহিষ আনতে মালিকের দুই ছেলে রাজু ও রাসেলসহ সাত জন বনে যান। মহিষটি ধরতে গেলে দৌঁড়ে বনের মধ্যে ঢুকে পড়ে। তখন রহমানও মহিষের পিছু নেন। একপর্যায় মহিষের সঙ্গে রহমানও নিখোঁজ হন। পরে তার সঙ্গীরা সারাদিন বনে খোঁজ করে তাকে উদ্ধার করতে না পেরে এলাকায় খবর দেন।
খবর পেয়ে ওইদিন বিকেলে ৪০-৫০জন গ্রামবাসী দুটি ট্রলারযোগে ঘটনাস্থলে গিয়ে রাত ১১টা পর্যন্ত তল্লাশি করে তারাও উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসেন। পরেরদিন বৃহস্পতিবার (১৯ আগস্ট) সকাল ৭টার দিকে বনের চাঁনমারী এলাকায় নির্জন চরে একা হাটতে দেখে বলেশ্বর নদে মাছধরারত সিরাজ ফরাজী নামে এক জেলে তাকে উদ্ধার করে তার ট্রলারে করে বাড়িতে নিয়ে আসেন।
পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা স্টেশন কর্মকর্তা (এসও) মো. আব্দুল মান্নান জানান, মহিষ খুঁজতে গিয়ে আ. রহমানের নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।