মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আফগানিস্তানে মার্কিন ড্রোন হামলায় আইএস জঙ্গি নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।। 

আফগানিস্তানের কাবুল বিমানবন্দরের বাইরে ভয়াবহ হামলার এক দিন পর দেশটিতে সক্রিয় ইসলামিক স্টেটকে (আইএস) লক্ষ্য করে ড্রোন হামলা চালিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। গতকাল শুক্রবার কাবুলের পূর্বাঞ্চলীয় নানগহর প্রদেশের কোনো একটি স্থানে ড্রোন হামলা চালায় মার্কিন বাহিনী। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে এ কথা জানানো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘প্রাথমিকভাবে পাওয়া তথ্য বলছে, যাকে লক্ষ্য করে হামলা করা হয়েছে, তাকে হত্যা করা সম্ভব হয়েছে। আমরা কোনো সাধারণ নাগরিকের মৃত্যুর তথ্য জানতে পারিনি।

গত বৃহস্পতিবার কাবুল বিমানবন্দরের বাইরে হামলার পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এ হামলার নেপথ্যের লোকজনকে খুঁজে বের করে শাস্তি দেওয়ার প্রতিজ্ঞা ব্যক্ত করেন। বাইডেন বলেছিলেন, পেন্টাগনকে হামলাকারীদের লক্ষ্য করে অভিযান চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার কাবুল হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বাইরে জোড়া বোমার বিস্ফোরণ ও গুলিবর্ষণে ১৩ জন মার্কিন সেনাসহ অন্তত ১৭৫ জন নিহত হয়েছেন। বহু মানুষ গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

গত ১৫ আগস্ট কাবুল দখলের মাধ্যমে গোটা আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেয়। সেদিন থেকেই কাবুল বিমানবন্দরে দেশত্যাগে ইচ্ছুক আফগানদের ভিড় বাড়তে থাকে। টানা দুই দশকের যুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীসহ অন্যান্য বিদেশি বাহিনীর সঙ্গে নানাভাবে সহযোগী হিসেবে কাজ করা আফগানদের অনেকেই নিরাপত্তার কথা ভেবে দেশ ছেড়ে যেতে চাইছেন।

উদ্বোধনের ৫মাসের মধ্যেই ‘বিপর্যয়’ রাম মন্দিরের, ছাদ চুইয়ে পানি পড়ছে

আফগানিস্তানে মার্কিন ড্রোন হামলায় আইএস জঙ্গি নিহত

প্রকাশের সময় : ১০:০৩:০১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৮ অগাস্ট ২০২১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।। 

আফগানিস্তানের কাবুল বিমানবন্দরের বাইরে ভয়াবহ হামলার এক দিন পর দেশটিতে সক্রিয় ইসলামিক স্টেটকে (আইএস) লক্ষ্য করে ড্রোন হামলা চালিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। গতকাল শুক্রবার কাবুলের পূর্বাঞ্চলীয় নানগহর প্রদেশের কোনো একটি স্থানে ড্রোন হামলা চালায় মার্কিন বাহিনী। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে এ কথা জানানো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘প্রাথমিকভাবে পাওয়া তথ্য বলছে, যাকে লক্ষ্য করে হামলা করা হয়েছে, তাকে হত্যা করা সম্ভব হয়েছে। আমরা কোনো সাধারণ নাগরিকের মৃত্যুর তথ্য জানতে পারিনি।

গত বৃহস্পতিবার কাবুল বিমানবন্দরের বাইরে হামলার পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এ হামলার নেপথ্যের লোকজনকে খুঁজে বের করে শাস্তি দেওয়ার প্রতিজ্ঞা ব্যক্ত করেন। বাইডেন বলেছিলেন, পেন্টাগনকে হামলাকারীদের লক্ষ্য করে অভিযান চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার কাবুল হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বাইরে জোড়া বোমার বিস্ফোরণ ও গুলিবর্ষণে ১৩ জন মার্কিন সেনাসহ অন্তত ১৭৫ জন নিহত হয়েছেন। বহু মানুষ গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

গত ১৫ আগস্ট কাবুল দখলের মাধ্যমে গোটা আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেয়। সেদিন থেকেই কাবুল বিমানবন্দরে দেশত্যাগে ইচ্ছুক আফগানদের ভিড় বাড়তে থাকে। টানা দুই দশকের যুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীসহ অন্যান্য বিদেশি বাহিনীর সঙ্গে নানাভাবে সহযোগী হিসেবে কাজ করা আফগানদের অনেকেই নিরাপত্তার কথা ভেবে দেশ ছেড়ে যেতে চাইছেন।