রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কাবুল বিমানবন্দরে আবারও ভয়াবহ হামলার শঙ্কা দেখছেন বাইডেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।। 

আফগানিস্তানের কাবুলে হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আবারও হামলা চালানো হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। বিবিসির প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়েছে।

‘সম্ভাব্য হামলার সুনির্দিষ্ট’ তথ্য থাকায় মার্কিন নাগরিকদের বিমানবন্দরসংলগ্ন এলাকাগুলো এড়িয়ে চলার পরামর্শ দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এক বিবৃতিতে জো বাইডেন শনিবার বলেন, ‘এই হামলাই শেষ নয়। বর্বরোচিত হামলায় জড়িত প্রত্যেককে খুঁজে বের করা হবে এবং উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হবে।’

গত ১৫ আগস্ট তালেবানের কাবুল দখলের পর থেকে কাবুল বিমানবন্দর হয়ে বিদেশি ও আফগান মিলে এ পর্যন্ত এক লাখ ১০ হাজারের বেশি মানুষকে নিয়ে আসা হয়েছে। ৩১ আগস্টের মধ্যে বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের কথা রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র বাদে প্রায় অন্য সব দেশের সেনারা চলে এসেছে। আজ রোববার সকাল পর্যন্ত কাবুল বিমানবন্দরে চার হাজার সেনা রয়েছে।

বিদেশি ও আফগানদের নিয়ে আসার কাজ চলছে তড়িঘড়ি করে। এরই মধ্যে গত বৃহস্পতিবার বিমানবন্দরের বাইরে জোড়া বোমা হামলা ও গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে। এতে এ পর্যন্ত ১৭০ জনের মতো নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় ১৩ জন মার্কিন সেনা নিহত হয়। ইসলামিক স্টেটের আফগানিস্তান শাখা ইসলামিক স্টেট ইন খোরাসান (আইএস-কে) এ হামলার দায় স্বীকার করেছে।

পরদিন শুক্রবার আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলের একটি এলাকায় ড্রোন হামলা চালিয়ে আইএস-কে’র দুজন ‘উচ্চপদস্থ ব্যক্তিকে’ হত্যা করা হয়েছে বলে জানায় যুক্তরাষ্ট্র।

কাবুল বিমানবন্দরে আবারও ভয়াবহ হামলার শঙ্কা দেখছেন বাইডেন

প্রকাশের সময় : ১০:২৭:১৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৯ অগাস্ট ২০২১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।। 

আফগানিস্তানের কাবুলে হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আবারও হামলা চালানো হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। বিবিসির প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়েছে।

‘সম্ভাব্য হামলার সুনির্দিষ্ট’ তথ্য থাকায় মার্কিন নাগরিকদের বিমানবন্দরসংলগ্ন এলাকাগুলো এড়িয়ে চলার পরামর্শ দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এক বিবৃতিতে জো বাইডেন শনিবার বলেন, ‘এই হামলাই শেষ নয়। বর্বরোচিত হামলায় জড়িত প্রত্যেককে খুঁজে বের করা হবে এবং উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হবে।’

গত ১৫ আগস্ট তালেবানের কাবুল দখলের পর থেকে কাবুল বিমানবন্দর হয়ে বিদেশি ও আফগান মিলে এ পর্যন্ত এক লাখ ১০ হাজারের বেশি মানুষকে নিয়ে আসা হয়েছে। ৩১ আগস্টের মধ্যে বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের কথা রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র বাদে প্রায় অন্য সব দেশের সেনারা চলে এসেছে। আজ রোববার সকাল পর্যন্ত কাবুল বিমানবন্দরে চার হাজার সেনা রয়েছে।

বিদেশি ও আফগানদের নিয়ে আসার কাজ চলছে তড়িঘড়ি করে। এরই মধ্যে গত বৃহস্পতিবার বিমানবন্দরের বাইরে জোড়া বোমা হামলা ও গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে। এতে এ পর্যন্ত ১৭০ জনের মতো নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় ১৩ জন মার্কিন সেনা নিহত হয়। ইসলামিক স্টেটের আফগানিস্তান শাখা ইসলামিক স্টেট ইন খোরাসান (আইএস-কে) এ হামলার দায় স্বীকার করেছে।

পরদিন শুক্রবার আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলের একটি এলাকায় ড্রোন হামলা চালিয়ে আইএস-কে’র দুজন ‘উচ্চপদস্থ ব্যক্তিকে’ হত্যা করা হয়েছে বলে জানায় যুক্তরাষ্ট্র।