রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিজিবিতে নিয়োগ হচ্ছে ১৫ হাজার সদস্য

ঢাকা ব্যুরো।। বর্তমানে বিজিবি জলে, স্থলে ও আকাশপথের সুরক্ষা নিশ্চিত করে ত্রিমাত্রিক বাহিনীতে রূপ নিয়েছে। সীমান্ত রক্ষার পাশাপাশি সময়ের প্রয়োজনে বহুমুখী ভূমিকা ও দায়িত্বের কারণে বিজিবির কলেবর বাড়ছে। আগামী পাঁচ বছরে নিয়োগ দেওয়া হবে আরও ১৫ হাজার সদস্য।

বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিজিবিকে আধুনিক সীমান্তরক্ষী বাহিনী হিসেবে গড়ার পরিকল্পনা নিয়েছেন। এর প্রতিফলনে বিজিবি এখন ত্রিমাত্রিক বাহিনী। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় বিজিবির সক্ষমতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এরই ফলে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনক্রমে ১৫ হাজার জনবল অন্তর্ভুক্তিকরণ এবং ভিশন-২০৪১-এর পরিকল্পনার আওতায় বিজিবির বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণের কাজ পর্যায়ক্রমে সম্পন্ন হবে।

বিজিবির প্রশিক্ষণের বর্ধিত চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে চুয়াডাঙ্গায় আরও একটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি বিজিবি সদস্যরা বিদেশেও প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। একই সঙ্গে বিদেশি প্রশিক্ষকরা বিজিটিসিতে এসে প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন। প্রশিক্ষকদের মান উন্নয়নের জন্য ‘ট্রেন দ্য ট্রেনার’ কার্যক্রম চালু করেছে বিজিবি।

বিজিটিসি কমান্ড্যান্ট ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মু. হাসান-উজ জামান বলেন, প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিজিবি সদস্যদের সীমান্তের অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে গড়ে তোলার কাজ করে যাচ্ছে বিজিটিসি। রিক্রুট ট্রেনিংয়ের পাশাপাশি এ প্রতিষ্ঠানে বিজিবি সদস্যদের পেশাগত দক্ষতা ও উৎকর্ষতা বৃদ্ধির জন্য নানা প্রশিক্ষণ পরিচালিত হচ্ছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, স্মার্ট বর্ডার ম্যানেজমেন্টের অংশ হিসেবে সীমান্তে নতুন বিওপি, বিএসপি নির্মাণসহ অত্যাধুনিক সার্ভেইলেন্স ইকুইপমেন্ট স্থাপন, এটিভি ও অত্যাধুনিক এপিসি, রায়ট কন্ট্রোল ভেহিকেল, ভেহিকেল স্ক্যানার, দ্রুতগামী জলযান ও অ্যান্টি ট্যাংক গাইডেড ওয়েপন সংযোজিত হয়েছে। বিজিবিকে একটি অত্যাধুনিক ও আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন সীমান্তরক্ষী বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার।

বিজিবিতে নিয়োগ হচ্ছে ১৫ হাজার সদস্য

প্রকাশের সময় : ০৮:৪৯:৩৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

ঢাকা ব্যুরো।। বর্তমানে বিজিবি জলে, স্থলে ও আকাশপথের সুরক্ষা নিশ্চিত করে ত্রিমাত্রিক বাহিনীতে রূপ নিয়েছে। সীমান্ত রক্ষার পাশাপাশি সময়ের প্রয়োজনে বহুমুখী ভূমিকা ও দায়িত্বের কারণে বিজিবির কলেবর বাড়ছে। আগামী পাঁচ বছরে নিয়োগ দেওয়া হবে আরও ১৫ হাজার সদস্য।

বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিজিবিকে আধুনিক সীমান্তরক্ষী বাহিনী হিসেবে গড়ার পরিকল্পনা নিয়েছেন। এর প্রতিফলনে বিজিবি এখন ত্রিমাত্রিক বাহিনী। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় বিজিবির সক্ষমতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এরই ফলে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনক্রমে ১৫ হাজার জনবল অন্তর্ভুক্তিকরণ এবং ভিশন-২০৪১-এর পরিকল্পনার আওতায় বিজিবির বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণের কাজ পর্যায়ক্রমে সম্পন্ন হবে।

বিজিবির প্রশিক্ষণের বর্ধিত চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে চুয়াডাঙ্গায় আরও একটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি বিজিবি সদস্যরা বিদেশেও প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। একই সঙ্গে বিদেশি প্রশিক্ষকরা বিজিটিসিতে এসে প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন। প্রশিক্ষকদের মান উন্নয়নের জন্য ‘ট্রেন দ্য ট্রেনার’ কার্যক্রম চালু করেছে বিজিবি।

বিজিটিসি কমান্ড্যান্ট ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মু. হাসান-উজ জামান বলেন, প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিজিবি সদস্যদের সীমান্তের অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে গড়ে তোলার কাজ করে যাচ্ছে বিজিটিসি। রিক্রুট ট্রেনিংয়ের পাশাপাশি এ প্রতিষ্ঠানে বিজিবি সদস্যদের পেশাগত দক্ষতা ও উৎকর্ষতা বৃদ্ধির জন্য নানা প্রশিক্ষণ পরিচালিত হচ্ছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, স্মার্ট বর্ডার ম্যানেজমেন্টের অংশ হিসেবে সীমান্তে নতুন বিওপি, বিএসপি নির্মাণসহ অত্যাধুনিক সার্ভেইলেন্স ইকুইপমেন্ট স্থাপন, এটিভি ও অত্যাধুনিক এপিসি, রায়ট কন্ট্রোল ভেহিকেল, ভেহিকেল স্ক্যানার, দ্রুতগামী জলযান ও অ্যান্টি ট্যাংক গাইডেড ওয়েপন সংযোজিত হয়েছে। বিজিবিকে একটি অত্যাধুনিক ও আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন সীমান্তরক্ষী বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার।