সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কেরানীগঞ্জে বিআরটিএ-পাসপোর্ট অফিসে অভিযান, ২৯জনকে সাজা

দেলোয়ার হোসেন, ঢাকা ব্যুরো ।।

রাজধানীর কেরানীগঞ্জে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) কার্যালয় ও পাসপোর্ট অফিসে দালালদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছেন র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযানে বিআরটিএ অফিস থেকে ও পাসপোর্ট অফিস থেকে ৪২ দালালকে আটক করা হয়েছে। ২৯ জনকে সর্ব নিম্ন ৭ দিন সর্বচ্চো ২ মাস সাজা প্রদান করা হয়েছে,১৩ জনকে নগদ অর্থদন্ড মোট ৪৯ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) দুপুর থেকে র‌্যাব-১০ এর সহযোগিতায় বিআরটি ও পাসপোর্ট অফিসে পৃথক দুটি অভিযান পরিচালনা করেন। পাসপোর্ট অফিসে অভিযান পরিচালনা করেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাজহারুল ইসলাম ও ইকুরিয়া বিআরটিএ অফিসে অভিযানের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিআরটিএ আদালত -১ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আয়েশা আক্তার।

র‌্যাব-১০ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি এনায়েত কবীর সোয়েব এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, কেরানীগঞ্জের বিআরটিএ কার্যলয়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স ও গাড়ি রেজিষ্ট্রেশনের কাজ করতে আসা সাধারণ নাগরিকদের টার্গেট করে একটি দালাল চক্র মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে আজ দুপুর থেকে অভিযান পরিচালনা করে সাড়ে টায় শেষ হয়।

অন্যদিকে, কেরানীগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে সাধারণ নাগরিকদের পাসপোর্ট করার কথা বলে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল একটি দালাল চক্র।

র‌্যাব-১০ এর সহযোগিতায় অভিযানে বিআরটিএ অফিস থেকে ২৫ দালাল আটক করা হয় ১৩ জনকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে ও ১২জন নগদ ৪৪ হাজার অর্থ জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়। পাসপোর্ট অফিস থেকে ১৭ দালালকে আটক করা হয়েছে। ১৬ জনকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে ও ১জনকে নগদ ৫ হাজার টাকা অর্থ জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়। র‍্যাব এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাজহারুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের অভিযান অব্যহত থাকবে। সাধারন মানুষ এ পাসপোর্ট অফিসে কোন ঝামেলা ছাড়া দালাল কাজ করতে পারে তা আমরা নিশ্চিত করব। আমাদের অভিযান চালিয়ে যাব।

বিআরটিএ আদালত – ১ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আয়শা আক্তার বলেন, বিআরটিএ কে দালাল মুক্ত করতে র‍্যাবের সহযোগিতায় ২৫ জন দালাল কে আটক করেছি। এদের ১৩ জন কে সর্ব নিম্ন ৭ দিন ও সর্বচ্চো ২ মাস করে সাজা প্রদান করে জেল হাজতে পাঠিয়েছি। আমরা দালাল মুক্ত বিআরটিএ সাধারন মানুষ কোন ভোগান্তি ছাড়াই কাজ করতে পারে সে জন্য আমাদের অভিযান পরিচালনা অব্যাহত থাকবে।

কেরানীগঞ্জে বিআরটিএ-পাসপোর্ট অফিসে অভিযান, ২৯জনকে সাজা

প্রকাশের সময় : ০২:৩৭:১১ অপরাহ্ন, সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

দেলোয়ার হোসেন, ঢাকা ব্যুরো ।।

রাজধানীর কেরানীগঞ্জে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) কার্যালয় ও পাসপোর্ট অফিসে দালালদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছেন র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযানে বিআরটিএ অফিস থেকে ও পাসপোর্ট অফিস থেকে ৪২ দালালকে আটক করা হয়েছে। ২৯ জনকে সর্ব নিম্ন ৭ দিন সর্বচ্চো ২ মাস সাজা প্রদান করা হয়েছে,১৩ জনকে নগদ অর্থদন্ড মোট ৪৯ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) দুপুর থেকে র‌্যাব-১০ এর সহযোগিতায় বিআরটি ও পাসপোর্ট অফিসে পৃথক দুটি অভিযান পরিচালনা করেন। পাসপোর্ট অফিসে অভিযান পরিচালনা করেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাজহারুল ইসলাম ও ইকুরিয়া বিআরটিএ অফিসে অভিযানের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিআরটিএ আদালত -১ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আয়েশা আক্তার।

র‌্যাব-১০ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি এনায়েত কবীর সোয়েব এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, কেরানীগঞ্জের বিআরটিএ কার্যলয়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স ও গাড়ি রেজিষ্ট্রেশনের কাজ করতে আসা সাধারণ নাগরিকদের টার্গেট করে একটি দালাল চক্র মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে আজ দুপুর থেকে অভিযান পরিচালনা করে সাড়ে টায় শেষ হয়।

অন্যদিকে, কেরানীগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে সাধারণ নাগরিকদের পাসপোর্ট করার কথা বলে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল একটি দালাল চক্র।

র‌্যাব-১০ এর সহযোগিতায় অভিযানে বিআরটিএ অফিস থেকে ২৫ দালাল আটক করা হয় ১৩ জনকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে ও ১২জন নগদ ৪৪ হাজার অর্থ জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়। পাসপোর্ট অফিস থেকে ১৭ দালালকে আটক করা হয়েছে। ১৬ জনকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে ও ১জনকে নগদ ৫ হাজার টাকা অর্থ জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়। র‍্যাব এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাজহারুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের অভিযান অব্যহত থাকবে। সাধারন মানুষ এ পাসপোর্ট অফিসে কোন ঝামেলা ছাড়া দালাল কাজ করতে পারে তা আমরা নিশ্চিত করব। আমাদের অভিযান চালিয়ে যাব।

বিআরটিএ আদালত – ১ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আয়শা আক্তার বলেন, বিআরটিএ কে দালাল মুক্ত করতে র‍্যাবের সহযোগিতায় ২৫ জন দালাল কে আটক করেছি। এদের ১৩ জন কে সর্ব নিম্ন ৭ দিন ও সর্বচ্চো ২ মাস করে সাজা প্রদান করে জেল হাজতে পাঠিয়েছি। আমরা দালাল মুক্ত বিআরটিএ সাধারন মানুষ কোন ভোগান্তি ছাড়াই কাজ করতে পারে সে জন্য আমাদের অভিযান পরিচালনা অব্যাহত থাকবে।