রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হবিগঞ্জে ইভটিজিংয়ে বাঁধা দেওয়ায় দোকানে হামলা,ভাংচুর

মীর দুলাল ,হবিগঞ্জ।।  হবিগঞ্জ শহরে জেকে এন্ড এইচকে হাইস্কুলের সামনে ছাত্রীদের ইভটিজিং করায় বাঁধা দেয়ার জের ধরে দোকানে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।
২৪ শে সেপ্টেম্বর ২১ ইং রাতে হবিগঞ্জ সদর থানায় ৪ জনের নাম উল্লেখ করে ৭/৮ জনের সংঘবদ্ব একটি দলের বিরুদ্ধে মামলা দায় করেন মোঃ আঃ মান্নান রিপন মাহী এন্টারপ্রাইজ এর মালিক।
হামলায়  দোকানপাটে লুটপাটেরও অভিযোগ করা হয়। বৃহস্পতিবার দিন ১.৪৫ মিনিটে  স্কুলের সামনে ঘটনা টি ঘটে।
স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার স্কুল ছুটি হলে কয়েক যুবক জেকে এন্ড এইচকে হাইস্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রীদের ইভটিজিং করে।
এ সময় স্কুল এন্ড কলেজ মার্কেটের ব্যবসায়ী মাহী এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী আব্দুল মন্নান, তার পিতা হাজী মো. জিতু মিয়াসহ কয়েকজন তাদের বাধা দেন। এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে দলবল নিয়ে মাহী এন্টারপ্রাইজে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে অর্ধ লাখ টাকার ক্ষতি করে। এছাড়াও বৈদ্যুতিক তার, চার্জ লাইটসহ প্রায় ৫০ হাজার টাকার মালামাল নিয়ে যায়।এ সময় হামলায় বেশ কয়েকজন আহত হন।
তাৎক্ষণিক জেকে এন্ড এইছ কে হাইস্কুল এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মো. জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে বিষয়টি থানায় অবহিত করেন।খবর পেয়ে হবিগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ  মোঃ মাসুক আলী ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
এ ঘটনায় মাহী এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী আব্দুল মন্নান বাদি হয়ে রাতে হবিগঞ্জ  সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
মামলায় বড় বহুলার ২নং পুল এলাকার বাসিন্দা মৃত নানু মিয়ার ছেলে মো. জুবেল মিয়া, আব্দুল জলিলের ছেলে কালা মিয়া, রাজা মিয়া, মো. তারেক মিয়া ও ছরুক মিয়ার ছেলে শাফির নাম উল্লেখ করে ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন।
ইভটিজিং ও হামলা বিষয় টি নিশ্চিত করেন হবিগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ মাসুক আলী।
তিনি জানান স্থানীয় সুত্রে খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।
হামলার ঘটনায় মামলা দায় করা হয়েছে তদন্তের মাধ্যমে অপরাধী দের বিরুদ্ধে  প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

হবিগঞ্জে ইভটিজিংয়ে বাঁধা দেওয়ায় দোকানে হামলা,ভাংচুর

প্রকাশের সময় : ০৭:২১:৪৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
মীর দুলাল ,হবিগঞ্জ।।  হবিগঞ্জ শহরে জেকে এন্ড এইচকে হাইস্কুলের সামনে ছাত্রীদের ইভটিজিং করায় বাঁধা দেয়ার জের ধরে দোকানে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।
২৪ শে সেপ্টেম্বর ২১ ইং রাতে হবিগঞ্জ সদর থানায় ৪ জনের নাম উল্লেখ করে ৭/৮ জনের সংঘবদ্ব একটি দলের বিরুদ্ধে মামলা দায় করেন মোঃ আঃ মান্নান রিপন মাহী এন্টারপ্রাইজ এর মালিক।
হামলায়  দোকানপাটে লুটপাটেরও অভিযোগ করা হয়। বৃহস্পতিবার দিন ১.৪৫ মিনিটে  স্কুলের সামনে ঘটনা টি ঘটে।
স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার স্কুল ছুটি হলে কয়েক যুবক জেকে এন্ড এইচকে হাইস্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রীদের ইভটিজিং করে।
এ সময় স্কুল এন্ড কলেজ মার্কেটের ব্যবসায়ী মাহী এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী আব্দুল মন্নান, তার পিতা হাজী মো. জিতু মিয়াসহ কয়েকজন তাদের বাধা দেন। এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে দলবল নিয়ে মাহী এন্টারপ্রাইজে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে অর্ধ লাখ টাকার ক্ষতি করে। এছাড়াও বৈদ্যুতিক তার, চার্জ লাইটসহ প্রায় ৫০ হাজার টাকার মালামাল নিয়ে যায়।এ সময় হামলায় বেশ কয়েকজন আহত হন।
তাৎক্ষণিক জেকে এন্ড এইছ কে হাইস্কুল এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মো. জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে বিষয়টি থানায় অবহিত করেন।খবর পেয়ে হবিগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ  মোঃ মাসুক আলী ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
এ ঘটনায় মাহী এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী আব্দুল মন্নান বাদি হয়ে রাতে হবিগঞ্জ  সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
মামলায় বড় বহুলার ২নং পুল এলাকার বাসিন্দা মৃত নানু মিয়ার ছেলে মো. জুবেল মিয়া, আব্দুল জলিলের ছেলে কালা মিয়া, রাজা মিয়া, মো. তারেক মিয়া ও ছরুক মিয়ার ছেলে শাফির নাম উল্লেখ করে ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন।
ইভটিজিং ও হামলা বিষয় টি নিশ্চিত করেন হবিগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ মাসুক আলী।
তিনি জানান স্থানীয় সুত্রে খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।
হামলার ঘটনায় মামলা দায় করা হয়েছে তদন্তের মাধ্যমে অপরাধী দের বিরুদ্ধে  প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।