বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মহাত্মা গান্ধীর আজ জন্মদিন

ঢাকা ব্যুরো।। অহিংস আন্দোলনের প্রতীক, শান্তিকামী নেতা মহাত্মা মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধীর (মহাত্মা গান্ধী) ১৫২তম জন্মদিন আজ। ১৮৬৯ সালের ২ অক্টোবর ভারতের গুজরাট রাজ্যের পরবনদার শহরে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। জাতিসংঘ মহাত্মা গান্ধীর জন্মদিনটিকে অহিংসা দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশেও বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি পালিত হবে। মহাত্মা গান্ধী ভারতের জাতির পিতা।

মহাত্মা গান্ধী ১৮৯১ সালে লন্ডনে আইন বিষয়ে পড়তে যান এবং বার-এট-ল ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে একটি আইন কোম্পানির আইন পরামর্শকের চাকরি নিয়ে তিনি দক্ষিণ আফ্রিকার ডারবানে চলে যান। সেখানে অবস্থানকালে প্রবাসী ভারতীয়দের রাজনৈতিক ও সামাজিক অধিকার আদায়ের আন্দোলন শুরু করেন। এ সময় তিনি ইংরেজদের বিরুদ্ধে নানা আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন। ১৯১৪ সালে গান্ধী ভারতে ফিরে আসেন এবং ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে যুক্ত হন। ১৯২১ সালে তিনি ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের নেতৃত্বে চলে আসেন। এ সময় তিনি ইংরেজদের বিরুদ্ধে অসহযোগ আন্দোলনের সূচনা করেন এবং বেশ কয়েকবার কারাবরণ করেন। ১৯৪৮ সালের ৩০ জানুয়ারি মহাত্মা গান্ধী নাথুরাম গডসে নামের এক ব্যক্তির গুলিতে নিহত হন।

মহাত্মা গান্ধীর জন্মদিন ও বিশ্ব অহিংসা দিবস উপলক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর আজ রাত ৮টায় তাদের ফেসবুক পেইজে অনলাইন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। আলোচনায় অংশ নেবেন নটর ডেম কলেজের অধ্যক্ষ ফাদার হেমন্ত পিয়ুস রোজারিও ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি ডা. সারওয়ার আলী। পরে বাউল ও ব্যান্ড শিল্পীদের কণ্ঠে পরিবেশিত হবে শান্তি ও সম্প্রীতির গান।

মহাত্মা গান্ধীর আজ জন্মদিন

প্রকাশের সময় : ০৩:২২:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ অক্টোবর ২০২১

ঢাকা ব্যুরো।। অহিংস আন্দোলনের প্রতীক, শান্তিকামী নেতা মহাত্মা মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধীর (মহাত্মা গান্ধী) ১৫২তম জন্মদিন আজ। ১৮৬৯ সালের ২ অক্টোবর ভারতের গুজরাট রাজ্যের পরবনদার শহরে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। জাতিসংঘ মহাত্মা গান্ধীর জন্মদিনটিকে অহিংসা দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশেও বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি পালিত হবে। মহাত্মা গান্ধী ভারতের জাতির পিতা।

মহাত্মা গান্ধী ১৮৯১ সালে লন্ডনে আইন বিষয়ে পড়তে যান এবং বার-এট-ল ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে একটি আইন কোম্পানির আইন পরামর্শকের চাকরি নিয়ে তিনি দক্ষিণ আফ্রিকার ডারবানে চলে যান। সেখানে অবস্থানকালে প্রবাসী ভারতীয়দের রাজনৈতিক ও সামাজিক অধিকার আদায়ের আন্দোলন শুরু করেন। এ সময় তিনি ইংরেজদের বিরুদ্ধে নানা আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন। ১৯১৪ সালে গান্ধী ভারতে ফিরে আসেন এবং ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে যুক্ত হন। ১৯২১ সালে তিনি ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের নেতৃত্বে চলে আসেন। এ সময় তিনি ইংরেজদের বিরুদ্ধে অসহযোগ আন্দোলনের সূচনা করেন এবং বেশ কয়েকবার কারাবরণ করেন। ১৯৪৮ সালের ৩০ জানুয়ারি মহাত্মা গান্ধী নাথুরাম গডসে নামের এক ব্যক্তির গুলিতে নিহত হন।

মহাত্মা গান্ধীর জন্মদিন ও বিশ্ব অহিংসা দিবস উপলক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর আজ রাত ৮টায় তাদের ফেসবুক পেইজে অনলাইন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। আলোচনায় অংশ নেবেন নটর ডেম কলেজের অধ্যক্ষ ফাদার হেমন্ত পিয়ুস রোজারিও ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি ডা. সারওয়ার আলী। পরে বাউল ও ব্যান্ড শিল্পীদের কণ্ঠে পরিবেশিত হবে শান্তি ও সম্প্রীতির গান।