শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

এবারও বই উৎসব হবে না: শিক্ষামন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত

 

ঢাকা ব্যুরো।। 

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি বিবেচনায় এবারও বই উৎসব হচ্ছে না। আর পয়লা জানুয়ারিতে শিক্ষার্থীরা সব বই পাবে না। যে কয়টি বই বাকি থাকবে জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহের মধ্যে বিতরণ করা হবে। 

তিনি বলেন, আমাদের এখন পর্যন্ত হিসাব অনুযায়ী শুরুতে ৯৫ শতাংশ বই পাবে শিক্ষার্থীরা।

আজ বৃহস্পতিবার (২৩ ডিসেম্বর) রাজধানীর মাতুয়াইলে এলাকায় প্রিন্টিং প্রেস পরিদর্শন শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, নতুন বছরের ৯৫ শতাংশ বই তৈরি হয়ে গেছে। বর্তমানে সেগুলো স্কুল পর্যায়ে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। বাকি ৫ শতাংশ বই জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে স্কুলগুলোতে পৌঁছে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, এ পর্যন্ত প্রাথমিকের প্রায় সব বই জেলা পর্যায়ে পৌঁছে যাচ্ছে। মাধ্যমিকের ২১ কোটি বই বাঁধাই হয়ে গেছে, বাকি ১৭ কোটির বেশি বই সরবরাহ করা হয়েছে। আগামী তিন-চারদিনের মধ্যে সব বই বাধাই কাজ শেষ হবে। এরপর স্কুল পর্যায়ে তা পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

বইয়ের মান নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে দীপু মনি বলেন, আমরা চাই, বইয়ের মান ঠিক থাকুক। যদি আমরা জানতে পারি কেউ বইয়ের মান খারাপ করেছে সেটি চিহ্নিত করা গেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পাঠ্যপুস্তকের মান ঠিক আছে কি না সেটি নিশ্চিত হতে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের পক্ষ থেকে সপ্তাহে দুই-তিনদিন করে মনিটরিং করা হচ্ছে। কোথাও কোনও ত্রুটি পাওয়া গেলে সেসব বই বাতিল করে দেওয়া হচ্ছে।

শিক্ষামন্ত্রী মাতুয়াইলের মৌসুমী প্রেস, জনতা প্লেস ও প্রমা প্রেস পরিদর্শন করেন। এসময় তার সঙ্গে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের কর্মকর্তা, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এবারও বই উৎসব হবে না: শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশের সময় : ০১:২০:২৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ ডিসেম্বর ২০২১

ছবি: সংগৃহীত

 

ঢাকা ব্যুরো।। 

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি বিবেচনায় এবারও বই উৎসব হচ্ছে না। আর পয়লা জানুয়ারিতে শিক্ষার্থীরা সব বই পাবে না। যে কয়টি বই বাকি থাকবে জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহের মধ্যে বিতরণ করা হবে। 

তিনি বলেন, আমাদের এখন পর্যন্ত হিসাব অনুযায়ী শুরুতে ৯৫ শতাংশ বই পাবে শিক্ষার্থীরা।

আজ বৃহস্পতিবার (২৩ ডিসেম্বর) রাজধানীর মাতুয়াইলে এলাকায় প্রিন্টিং প্রেস পরিদর্শন শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, নতুন বছরের ৯৫ শতাংশ বই তৈরি হয়ে গেছে। বর্তমানে সেগুলো স্কুল পর্যায়ে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। বাকি ৫ শতাংশ বই জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে স্কুলগুলোতে পৌঁছে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, এ পর্যন্ত প্রাথমিকের প্রায় সব বই জেলা পর্যায়ে পৌঁছে যাচ্ছে। মাধ্যমিকের ২১ কোটি বই বাঁধাই হয়ে গেছে, বাকি ১৭ কোটির বেশি বই সরবরাহ করা হয়েছে। আগামী তিন-চারদিনের মধ্যে সব বই বাধাই কাজ শেষ হবে। এরপর স্কুল পর্যায়ে তা পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

বইয়ের মান নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে দীপু মনি বলেন, আমরা চাই, বইয়ের মান ঠিক থাকুক। যদি আমরা জানতে পারি কেউ বইয়ের মান খারাপ করেছে সেটি চিহ্নিত করা গেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পাঠ্যপুস্তকের মান ঠিক আছে কি না সেটি নিশ্চিত হতে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের পক্ষ থেকে সপ্তাহে দুই-তিনদিন করে মনিটরিং করা হচ্ছে। কোথাও কোনও ত্রুটি পাওয়া গেলে সেসব বই বাতিল করে দেওয়া হচ্ছে।

শিক্ষামন্ত্রী মাতুয়াইলের মৌসুমী প্রেস, জনতা প্লেস ও প্রমা প্রেস পরিদর্শন করেন। এসময় তার সঙ্গে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের কর্মকর্তা, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।