রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্র এখনো হুমকির ভেতর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ।।

যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রে এখনো রয়েছে সহিংসতার হুমকি। এই নিয়ে চিন্তিত খোদ মার্কিন নাগরিকরা। ২০০২ সালেও ৯০ শতাংশ নাগরিক গণতন্ত্র নিয়ে গর্ব করতেন। এখন ওই হার কমে এসেছে ৫৪তে। গত বছরের ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলে হামলা নিয়েও জনমনে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

২০২০ সালের ৬ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল হিলে এক যৌথ অধিবেশনে জো বাইডেনের নির্বাচন জয়ের স্বীকৃতির প্রক্রিয়া চলছিল। আচমকাই সেখানে হামলা চালায় তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কট্টর সমর্থকরা। এতে নিহত হন পুলিশসহ পাঁচজন। ট্রাম্প সমর্থকদের নজিরবিহীন ওই তাণ্ডবের ঘটনায় হতভম্ব হয়ে পড়ে যুক্তরাষ্ট্রসহ পুরো বিশ্বের মানুষ। হামলাটিকে যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রের ওপর বড় ধরনের আঘাত বলে মনে করেন মার্কিনিরা।
স্থানীয় সময় রোববার যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্র পরিস্থিতি নিয়ে একটি জরিপ চালায় সিবিএস নিউজ। এতে দেখা যায়, ক্যাপিটল হিল ঘটনার এক বছরের মাথায় এসে প্রায় এক-তৃতীয়াংশ মার্কিনি মনে করছে, পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকারের বিরুদ্ধে সহিংস পদক্ষেপ নেয়া ন্যায়সংগত। ২৮ শতাংশ মার্কিনি মনে করেন, নির্বাচনের ফলাফল রক্ষা করতে শক্তি প্রয়োগ করা যেতে পারে। এ ছাড়া গত বছর চালানো এক জরিপে যেখানে ১৩ শতাংশ মানুষ ক্যাপিটল হিলে হামলার ঘটনাটিকে সমর্থন করেছিলেন, সেখানে নতুন জরিপে সেই সমর্থন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ শতাংশে। এমনকি দেশের সামগ্রিক গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ভেঙে পড়তে পারে বলে মনে করেন ৬৬ শতাংশ মার্কিনি।
ওয়াশিংটন পোস্ট ও ইউনিভার্সিটি অব মেরিল্যান্ডের এক যৌথ জরিপে দেখা যায়, নিজ দেশের গণতন্ত্র নিয়ে গর্ব করা মার্কিনির সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে কমে গেছে। ২০০২ সালে যেখানে যুক্তরাষ্ট্রের ৯০ শতাংশ নাগরিক গণতন্ত্র নিয়ে গর্ব করতেন, তা এখন কমে ৫৪ শতাংশে ঠেকেছে।
 
২০২৪ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়েও জরিপে অংশগ্রহণকারীদের প্রশ্ন করা হয়। এতে দেখা যায়, ৬২ শতাংশ মার্কিনিই আশঙ্কা করছেন, আগামী নির্বাচনে পরাজিত দলও একইভাবে সহিংস হয়ে উঠবে।য

যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্র এখনো হুমকির ভেতর

প্রকাশের সময় : ১১:২২:১৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ জানুয়ারী ২০২২

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ।।

যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রে এখনো রয়েছে সহিংসতার হুমকি। এই নিয়ে চিন্তিত খোদ মার্কিন নাগরিকরা। ২০০২ সালেও ৯০ শতাংশ নাগরিক গণতন্ত্র নিয়ে গর্ব করতেন। এখন ওই হার কমে এসেছে ৫৪তে। গত বছরের ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলে হামলা নিয়েও জনমনে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

২০২০ সালের ৬ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল হিলে এক যৌথ অধিবেশনে জো বাইডেনের নির্বাচন জয়ের স্বীকৃতির প্রক্রিয়া চলছিল। আচমকাই সেখানে হামলা চালায় তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কট্টর সমর্থকরা। এতে নিহত হন পুলিশসহ পাঁচজন। ট্রাম্প সমর্থকদের নজিরবিহীন ওই তাণ্ডবের ঘটনায় হতভম্ব হয়ে পড়ে যুক্তরাষ্ট্রসহ পুরো বিশ্বের মানুষ। হামলাটিকে যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রের ওপর বড় ধরনের আঘাত বলে মনে করেন মার্কিনিরা।
স্থানীয় সময় রোববার যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্র পরিস্থিতি নিয়ে একটি জরিপ চালায় সিবিএস নিউজ। এতে দেখা যায়, ক্যাপিটল হিল ঘটনার এক বছরের মাথায় এসে প্রায় এক-তৃতীয়াংশ মার্কিনি মনে করছে, পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকারের বিরুদ্ধে সহিংস পদক্ষেপ নেয়া ন্যায়সংগত। ২৮ শতাংশ মার্কিনি মনে করেন, নির্বাচনের ফলাফল রক্ষা করতে শক্তি প্রয়োগ করা যেতে পারে। এ ছাড়া গত বছর চালানো এক জরিপে যেখানে ১৩ শতাংশ মানুষ ক্যাপিটল হিলে হামলার ঘটনাটিকে সমর্থন করেছিলেন, সেখানে নতুন জরিপে সেই সমর্থন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ শতাংশে। এমনকি দেশের সামগ্রিক গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ভেঙে পড়তে পারে বলে মনে করেন ৬৬ শতাংশ মার্কিনি।
ওয়াশিংটন পোস্ট ও ইউনিভার্সিটি অব মেরিল্যান্ডের এক যৌথ জরিপে দেখা যায়, নিজ দেশের গণতন্ত্র নিয়ে গর্ব করা মার্কিনির সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে কমে গেছে। ২০০২ সালে যেখানে যুক্তরাষ্ট্রের ৯০ শতাংশ নাগরিক গণতন্ত্র নিয়ে গর্ব করতেন, তা এখন কমে ৫৪ শতাংশে ঠেকেছে।
 
২০২৪ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়েও জরিপে অংশগ্রহণকারীদের প্রশ্ন করা হয়। এতে দেখা যায়, ৬২ শতাংশ মার্কিনিই আশঙ্কা করছেন, আগামী নির্বাচনে পরাজিত দলও একইভাবে সহিংস হয়ে উঠবে।য