সোমবার, ০৫ জুন ২০২৩, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

১২ জেলাকে করোনা সংক্রমনের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা

ডেস্ক রিপোর্ট ।।

রোনাভাইরাসের সংক্রমন (ওমিক্রনসহ) প্রতিদিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এ অবস্থায় ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ দেশের ১২ জেলাকে করোনা সংক্রমণের অত্যন্ত উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে ঘোষণা করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

বুধবার (১৯ জানুয়ারি) সকালে এ ঘোষণা দেয় স্বাস্থ্য অধিদফতর।

এদিকে মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশেও করোনাভাইরাস সংক্রমণ দ্রুতগতিতে বাড়ছে। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে করোনা সংক্রমণ বেড়েছে ২২২ শতাংশ।

করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে নিয়মিত ভার্চুয়াল স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানান অধিদফতরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম।
তিনি বলেন, দেশে গত নভেম্বরের শুরু থেকে মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত সংক্রমণ কিছুটা স্থিতিশীল ছিল। ডিসেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে এটি ক্রমাগতভাবে বাড়তে শুরু করে। এরপর ২০২২ সালের জানুয়ারিতে এসে আগের বছরের চিত্রটা অনেকটাই পাল্টে গেছে।
নাজমুল ইসলাম বলেন, অনেকেই ধারণা করছেন করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের কারণেই দেশে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এটি কিন্তু বৈজ্ঞানিক তথ্য প্রমাণ দিয়ে নিশ্চিত কোনো তথ্য নয়। ধরে নিতে হবে দেশে এখনও ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট প্রাধান্য বিস্তার করে আছে। নতুন করে ওমিক্রনের সংক্রমণ সেখানে ঘটেছে এবং সারা বিশ্বে যেমন ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টকে সরিয়ে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট জায়গা দখল করেছে, ধীরে ধীরে হয়তো বাংলাদেশেও এমনটি হবে।
এর আগে ১২ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, করোনা সংক্রমণের রেড জোন (লাল তালিকা) হিসেবে ঢাকা ও রাঙামাটি, ইয়োলো জোন (হলুদ তালিকা) হিসেবে ৬টি জেলা ও গ্রিন জোন (সবুজ তালিকা) হিসেবে  ৫৪টি জেলাকে চিহ্নিত করা হয়। এছাড়া খুবই কম সংখ্যক টেস্ট করার তালিকায় দুটি জেলাকে চিহ্নিত করা হয়।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য মতে, রাজধানীতে করোনা সংক্রমণের হার ১২.৯০ শতাংশ আর রাঙামাটিতে ১০ শতাংশ। এ ছাড়া হলুদ জোন বা মধ্যম ঝুঁকিতে আছে দেশের সীমান্তবর্তী জেলা যশোর, রাজশাহী, দিনাজপুর, লালমনিরহাট, নাটোর ও রংপুর জেলা।
আর সংক্রমণের গ্রিন জোন বা ক্ষীণ ঝুঁকিতে আছে ৫৪ জেলা। অন্যদিকে পঞ্চগড় ও বান্দরবান জেলায় নমুনা পরীক্ষার হার খুবই কম হয়।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে আরও জানা গেছে, পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হারের ভিত্তিতে জেলাপর্যায়ে ঝুঁকি বিশ্লেষণ অধিকতর গাঢ় লাল (পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৩০ – ৩৯%)। গাঢ় লাল (পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২০%- ২৯%), লাল তালিকাতে পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১০% – ১৯%। কমলা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৫% -১০%), সবুজ তালিকায় পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৫%। সাদা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার o%)। ধূসর (টেস্টের সংখ্যা ১০০ আর )।

সেনাবাহিনী দখলে নিলো কেএনএফের আস্তানা ও প্রশিক্ষণ ক্যাম্প

১২ জেলাকে করোনা সংক্রমনের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা

প্রকাশের সময় : ১১:৫৫:২৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট ।।

রোনাভাইরাসের সংক্রমন (ওমিক্রনসহ) প্রতিদিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এ অবস্থায় ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ দেশের ১২ জেলাকে করোনা সংক্রমণের অত্যন্ত উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে ঘোষণা করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

বুধবার (১৯ জানুয়ারি) সকালে এ ঘোষণা দেয় স্বাস্থ্য অধিদফতর।

এদিকে মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশেও করোনাভাইরাস সংক্রমণ দ্রুতগতিতে বাড়ছে। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে করোনা সংক্রমণ বেড়েছে ২২২ শতাংশ।

করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে নিয়মিত ভার্চুয়াল স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানান অধিদফতরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম।
তিনি বলেন, দেশে গত নভেম্বরের শুরু থেকে মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত সংক্রমণ কিছুটা স্থিতিশীল ছিল। ডিসেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে এটি ক্রমাগতভাবে বাড়তে শুরু করে। এরপর ২০২২ সালের জানুয়ারিতে এসে আগের বছরের চিত্রটা অনেকটাই পাল্টে গেছে।
নাজমুল ইসলাম বলেন, অনেকেই ধারণা করছেন করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের কারণেই দেশে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এটি কিন্তু বৈজ্ঞানিক তথ্য প্রমাণ দিয়ে নিশ্চিত কোনো তথ্য নয়। ধরে নিতে হবে দেশে এখনও ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট প্রাধান্য বিস্তার করে আছে। নতুন করে ওমিক্রনের সংক্রমণ সেখানে ঘটেছে এবং সারা বিশ্বে যেমন ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টকে সরিয়ে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট জায়গা দখল করেছে, ধীরে ধীরে হয়তো বাংলাদেশেও এমনটি হবে।
এর আগে ১২ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, করোনা সংক্রমণের রেড জোন (লাল তালিকা) হিসেবে ঢাকা ও রাঙামাটি, ইয়োলো জোন (হলুদ তালিকা) হিসেবে ৬টি জেলা ও গ্রিন জোন (সবুজ তালিকা) হিসেবে  ৫৪টি জেলাকে চিহ্নিত করা হয়। এছাড়া খুবই কম সংখ্যক টেস্ট করার তালিকায় দুটি জেলাকে চিহ্নিত করা হয়।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য মতে, রাজধানীতে করোনা সংক্রমণের হার ১২.৯০ শতাংশ আর রাঙামাটিতে ১০ শতাংশ। এ ছাড়া হলুদ জোন বা মধ্যম ঝুঁকিতে আছে দেশের সীমান্তবর্তী জেলা যশোর, রাজশাহী, দিনাজপুর, লালমনিরহাট, নাটোর ও রংপুর জেলা।
আর সংক্রমণের গ্রিন জোন বা ক্ষীণ ঝুঁকিতে আছে ৫৪ জেলা। অন্যদিকে পঞ্চগড় ও বান্দরবান জেলায় নমুনা পরীক্ষার হার খুবই কম হয়।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে আরও জানা গেছে, পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হারের ভিত্তিতে জেলাপর্যায়ে ঝুঁকি বিশ্লেষণ অধিকতর গাঢ় লাল (পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৩০ – ৩৯%)। গাঢ় লাল (পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২০%- ২৯%), লাল তালিকাতে পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১০% – ১৯%। কমলা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৫% -১০%), সবুজ তালিকায় পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৫%। সাদা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার o%)। ধূসর (টেস্টের সংখ্যা ১০০ আর )।