শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আইসিসির বর্ষসেরা একাদশে মুস্তাফিজ

ফাইল ছবি

স্পোর্টস ডেস্ক ।।

০২১ সালটা দারুণ কেটেছে বাংলাদেশি পেসার মুস্তাফিজুর রহমানের। গেল বছর দারুণ বোলিংয়ে ঘোল খাইয়েছেন বাঘা বাঘা ব্যাটারদেরও। তারই স্বীকৃতি মিলল আজ। আইসিসির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি একাদশে জায়গা হয়েছে তার। এ তালিকায় একমাত্র বাংলাদেশি তিনিই।

দারুণ বৈচিত্র্য আর গতির হেরফেরে গেল বছরে টি-টোয়েন্টি আঙিনায় দারুণ নৈপুণ্যই দেখিয়েছেন মুস্তাফিজ। ইনিংসের শুরু ও শেষের দিকের আগুনে বোলিংয়ে তিনি গেল বছর তুলে নিয়েছেন ২৮ উইকেট। ২০ ম্যাচে ১৭.৩৯ গড়ে প্রতিটি উইকেট তুলেছেন তিনি।

তার দুর্বোধ্য বোলিং যে ব্যাটারদের ভুগিয়েছে বেশ। তার প্রমাণই মিলছে তার ইকনমি রেটে। গেল বছর কিপটে বোলিংয়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে তিনি দিয়েছেন ওভারপ্রতি কেবল ৭ রান।

এমন নৈপুণ্যের কারণেই তিনি জায়গা করে নিয়েছেন আইসিসির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি একাদশে। তবে তিনি ছাড়া বাংলাদেশের আর কেউ অবশ্য এই তালিকায় স্থান পাননি।

বাংলাদেশি অন্য খেলোয়াড়রা অবশ্য ভারত থেকে সান্ত্বনা খুঁজতে পারেন। ভারতীয় দল থেকে যে একজন ক্রিকেটারেরও জায়গা হয়নি এই তালিকায়!

চমকের শেষ এখানেই নয়। তালিকায় আরেক চমক হিসেবে এসেছে গেল বছর বিশ্বজয়ী অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়ের সংখ্যা। গত বছর দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপটা জিতলেও আইসিসির বর্ষসেরা দলে আছেন কেবল দুই অজি ক্রিকেটার। তারা হলেন- মিচেল মার্শ ও জশ হেইজেলউড।

সেই অস্ট্রেলিয়ার কাছে সেমিফাইনালে হেরে বিশ্বকাপ স্বপ্ন শেষ হয়ে গিয়েছিল পাকিস্তানের। সেই পাকিস্তান থেকেই কি-না এই একাদশে সবচেয়ে বেশি ৩ (তিন) ক্রিকেটার জায়গা পেয়েছেন এই তালিকায়! অধিনায়ক বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান আছেন, সঙ্গে যোগ দিয়েছেন দলটির পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদিও।

চমক আছে আরও! গেল বছর বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় নেওয়া দক্ষিণ আফ্রিকার তিন জন খেলোয়াড় আছেন এখানে। ক্রিকেটার তিন জন হলেন- এইডেন মার্করাম, ডেভিড মিলার ও তাবরাইজ শামসি। এছাড়াও আইসিসির বর্ষসেরা একাদশে আছেন ইংল্যান্ডের ব্যাটার জস বাটলার ও লঙ্কান অলরাউন্ডার ওয়ানিন্দু হাসরাঙ্গা। তবে বিশ্বকাপ ফাইনালিস্ট নিউজিল্যান্ড থেকে একজনও নেই এই তালিকায়।

আইসিসির বর্ষসেরা একাদশে মুস্তাফিজ

প্রকাশের সময় : ০৫:৪০:২০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২

স্পোর্টস ডেস্ক ।।

০২১ সালটা দারুণ কেটেছে বাংলাদেশি পেসার মুস্তাফিজুর রহমানের। গেল বছর দারুণ বোলিংয়ে ঘোল খাইয়েছেন বাঘা বাঘা ব্যাটারদেরও। তারই স্বীকৃতি মিলল আজ। আইসিসির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি একাদশে জায়গা হয়েছে তার। এ তালিকায় একমাত্র বাংলাদেশি তিনিই।

দারুণ বৈচিত্র্য আর গতির হেরফেরে গেল বছরে টি-টোয়েন্টি আঙিনায় দারুণ নৈপুণ্যই দেখিয়েছেন মুস্তাফিজ। ইনিংসের শুরু ও শেষের দিকের আগুনে বোলিংয়ে তিনি গেল বছর তুলে নিয়েছেন ২৮ উইকেট। ২০ ম্যাচে ১৭.৩৯ গড়ে প্রতিটি উইকেট তুলেছেন তিনি।

তার দুর্বোধ্য বোলিং যে ব্যাটারদের ভুগিয়েছে বেশ। তার প্রমাণই মিলছে তার ইকনমি রেটে। গেল বছর কিপটে বোলিংয়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে তিনি দিয়েছেন ওভারপ্রতি কেবল ৭ রান।

এমন নৈপুণ্যের কারণেই তিনি জায়গা করে নিয়েছেন আইসিসির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি একাদশে। তবে তিনি ছাড়া বাংলাদেশের আর কেউ অবশ্য এই তালিকায় স্থান পাননি।

বাংলাদেশি অন্য খেলোয়াড়রা অবশ্য ভারত থেকে সান্ত্বনা খুঁজতে পারেন। ভারতীয় দল থেকে যে একজন ক্রিকেটারেরও জায়গা হয়নি এই তালিকায়!

চমকের শেষ এখানেই নয়। তালিকায় আরেক চমক হিসেবে এসেছে গেল বছর বিশ্বজয়ী অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়ের সংখ্যা। গত বছর দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপটা জিতলেও আইসিসির বর্ষসেরা দলে আছেন কেবল দুই অজি ক্রিকেটার। তারা হলেন- মিচেল মার্শ ও জশ হেইজেলউড।

সেই অস্ট্রেলিয়ার কাছে সেমিফাইনালে হেরে বিশ্বকাপ স্বপ্ন শেষ হয়ে গিয়েছিল পাকিস্তানের। সেই পাকিস্তান থেকেই কি-না এই একাদশে সবচেয়ে বেশি ৩ (তিন) ক্রিকেটার জায়গা পেয়েছেন এই তালিকায়! অধিনায়ক বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান আছেন, সঙ্গে যোগ দিয়েছেন দলটির পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদিও।

চমক আছে আরও! গেল বছর বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় নেওয়া দক্ষিণ আফ্রিকার তিন জন খেলোয়াড় আছেন এখানে। ক্রিকেটার তিন জন হলেন- এইডেন মার্করাম, ডেভিড মিলার ও তাবরাইজ শামসি। এছাড়াও আইসিসির বর্ষসেরা একাদশে আছেন ইংল্যান্ডের ব্যাটার জস বাটলার ও লঙ্কান অলরাউন্ডার ওয়ানিন্দু হাসরাঙ্গা। তবে বিশ্বকাপ ফাইনালিস্ট নিউজিল্যান্ড থেকে একজনও নেই এই তালিকায়।