Barta Kontho
নিবন্ধন নম্বর: ৪৬১শনিবার , ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২
  1. 1st Lead
  2. 2nd Lead
  3. অপরাধ
  4. আইটি বিশ্ব
  5. আইন ও আদালত
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আবহাওয়া
  8. ইসলাম
  9. খেলাধুলা
  10. চাকুরি
  11. ছবি ঘর
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. ট্রাভেল
  15. নির্বাচন

হঠাৎ বৃষ্টিতে লবণ চাষী-ইটভাটা মালিকদের ব্যাপক ক্ষতি

 এস.এম.জুবাইদ, পেকুয়া (কক্সবাজার)
ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২২ ৯:২৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

শীত মৌসুমের শেষ দিকে হঠাৎ বৃষ্টিতে কক্সবাজারের পেকুয়ার লবণ চাষি ও ইটভাটা মালিকদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে শনিবার থেমে থেমে সকাল ও সন্ধ্যা পর্যন্ত বৃষ্টির ফলে প্রায় ৫ থেকে ৬ হাজার একর জমিতে লবণ উৎপাদন পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে। এদিকে পেকুয়ার ৩টি ইটভাটার কাঁচা ও শুকনো ইটগুলো পানিতে ভিজে নষ্ট হয়ে গেছে।

ইটভাটার মালিকেরা বলছেন, এভাবে যদি আরও কয়েকদিন বৃষ্টি চলতে থাকে তাহলে ভাটা চালু রাখা যাবে না। অন্যদিকে লবণচাষিরা বলছেন, এমনিতে বাজারে লবণের দাম মোটামুটি আছে। এর মধ্যে মাঘ মাসের শেষের দিকে হঠাৎ বৃষ্টিতে লবণচাষিদের সবকিছু নষ্ট করে দিয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের মধ্যে ৬টি ইউনিয়নে লবণের চাষ হয়। লবণের মাঠে পানি থই থই করছে। লবণচাষীরা আশার বুক বেধে এবার লবণ উৎপাদনে নেমে ছিল কিন্তু শীতকালে হঠাৎ অনাবৃষ্টি তাদের সব আশা নষ্ট করে ফেলেছে।

উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের লবণচাষী নুরুল হোছাইন বলেন, ‘এবার লবণচাষে আমাদের মতো চাষিদের খরচ অনেক বেশি হয়েছে। কেননা, ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণে জমি ও লবণের পলিথিনের দাম বাড়ায় অন্যান্য খরচ বেশি পড়েছে। এই মৌসুমে আমি ৭ কানি জমিতে লবণ চাষ করেছি। এবারে আমার প্রতিকানি খরচ পড়েছে ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকা। কিন্তু যখন লবণ উৎপাদন ও লবণ তোলার সময় ঘনিয়ে এসেছে ঠিক সেই সময় হঠাৎ বৃষ্টির ফলে লবণ মাঠে জমানো উৎপাদিত লবণ পানিতে তলিয়ে গেছে। এতে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়েছি।

উপজেলার রাজাখালীর লবণচাষি নাছির উদ্দিন  বলেন, এত কষ্ট করে পরিবার পরিজন নিয়ে সুখে শান্তিতে বসবাস করতে এবার লাভের আশায় লবণ মাঠ নিয়েছি। এদিকে বাজারে লবণের দামও মোটামুটি থাকায় আশায় বুক বেধেছি। এই দামে খরচ ওঠানো সম্ভব নয়। এমন ভাবে ক্ষতি গ্রস্তহলে কৃষকরা এই পেশা থেকে বিমুখ হয়ে পড়বেন বলে জানান এই কৃষক।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা জানান,, এ বছর উপজেলায় লবণ

উৎপাদনের পরিমাণ ভালছিল। প্রতিবছর ২০ হাজার হেক্টর লবণ উৎপাদন হয়ে থাকে। হঠাৎ প্রবল বৃষ্টিতে লবণ চাষিদেয় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়।

উপজেলার টইটং ইউনিয়নের হাজীবাজার এলাকার এ বি এম ব্রিকস ভাটায় দেখা যায়, রোদে শুকাতে দেওয়া কাঁচা ইটগুলো বৃষ্টির পানিতে ডুবে আছে। এছাড়া পোড়ানোর আগে শুকানো সারিবদ্ধ করে রাখা ইটগুলোও বৃষ্টির পানিতে গলে নষ্ট হয়ে গেছে।

ইটভাটার মালিক আহমদ নবী জানান,এমনে কয়লার দাম আগের চেয়ে দ্বিগুণ, আর শ্রমিক ও মাটির দামও বেশি। এত কিছুর মধ্যেও ভাটাগুলো আমরা সচল রেখেছিলাম। কিন্তু হঠাৎ বৃষ্টি হওয়ায় আমাদের ভাটা মালিকদের অনেক ক্ষতি হয়ে গেলো। এই ক্ষতি অনেক ভাটা মালিক পুষিয়ে উঠতে পারবে না।

 

বার্তাকণ্ঠ/এন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।