রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৩ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অনৈতিক প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ব্ল্যাকমেইলের শিকার গৃহবধূ 

কক্সবাজারের পেকুয়ায় অনৈতিক প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ব্ল্যাকমেইলের শিকার হয়েছেন শারমিন আক্তার (২৫) নামের এক গৃহবধূ।
বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারী) রাত ১১ টায় উপজেলার সদর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড মিটাবেপারী পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গৃহবধু একই এলাকার  আজিজুল হকের স্ত্রী ও ৩সন্তানের জননী বলে জানা যায়।
স্থানীয়রা জানান, আজিজের স্ত্রী শারমিন আক্তারকে অনৈতিক প্রস্তাব দেয় একই এলাকার ফরিদুল আলমের পুত্র ও তিন সন্তানের জনক মোহাম্মদ বাচ্চু। বাচ্চু ওই গৃহবধূকে সুকৌশলে অনৈতিক প্রস্তাব দিতে থাকে। প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় তাকে ব্ল্যাকমেইল করে নাটক সাজায় শারমিনের স্বামী আজিজ পরকিয়া করে অন্য মেয়ের সাথে। তার স্বামীকে পরকিয়া থেকে ফেরাতে নানা কুটকৌশল অবলম্বন করে বাচ্চু ওই গৃহবধূর পনোগ্রাফি ছবি এডিটিং করে বিভিন্ন জনকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গৃহবধুর স্বামীকে,স্বামীর ভাই ও বাপের বাড়ির লোকসহ বিভিন্নজনকে অশ্লীল ছবি ও অশ্লীল ভয়েস পাঠায়। বিষয়টি জানা জানি হলে ঘটনার দিন রাতে কিরিচ নিয়ে গৃহবধুর স্বামী ঘরে না থাকার সুযোগে বাচ্চু গৃহবধূর ঘরে ডুকে তাকে শারীরিক নির্যাতন চালায়। এ সময় তার আর্তচিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে সে পালিয়ে যায়।
এদিকে ব্ল্যাক মেইলের শিকার গৃহবধূ শারমিন আক্তার জানান,আমার কাছ থেকে টাকা ধার নেয়। পরে ওই টাকা ফেরত চাইলে বাচ্চু আমাকে ব্ল্যাকমেইল করে এবং অনৈতিক প্রস্তাব দেয় এবং আমার স্বামী অন্য মেয়ের সাথে পরকিয়া করে বলে জানিয়ে আমাকে মগ বৈদ্যের কাছে তাবিজ নিতে আমার নগ্ন ছবি ইমু কলের মাধ্যমে কিছু অশ্লীল ছবি উঠায়। এর পর সে আমাকে ব্ল্যাকমেইল করে অনৈতিক প্রস্তাব দেয়। এতে আমি রাজি না হলে সে ঘটনার দিন রাতে আমার আমার ঘরে ডুকে আমাকে শারিরীক নির্যাতন করে আহত করে এসময় আমি চিৎকার করলে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে সে আলমারি থেকে নগদ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়।
এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে পেকুয়া থানার সহকারী পুলিশ পরিদর্শক (এস আই) হেবজুর ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং আহতদেরকে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।
অভিযুক্ত মোহাম্মদ বাচ্চুর সাথে যোগাযোগ করার জন্য চেষ্টা করলেও সংযোগ না দেয়ায় বক্তব্য দেওয়া সম্ভব হয়নি।  তবে তার বউ জানিয়েছেন ঘটনাটি সত্য আমরা তাকে এ ধরনের অপরাধ না করার জন্য বারণ করেছি। তারপরও সে একাজ থেকে বিরত থাকেনি এজন্য তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী জানাচ্ছি।
এ ব্যাপারে এস আই হেবজর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অভিযুক্তকে আইনের আওতায় আনা হবে।

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

হজের নিবন্ধন শুরু হবে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে

অনৈতিক প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ব্ল্যাকমেইলের শিকার গৃহবধূ 

প্রকাশের সময় : ১১:১৬:০৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২২
কক্সবাজারের পেকুয়ায় অনৈতিক প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ব্ল্যাকমেইলের শিকার হয়েছেন শারমিন আক্তার (২৫) নামের এক গৃহবধূ।
বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারী) রাত ১১ টায় উপজেলার সদর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড মিটাবেপারী পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গৃহবধু একই এলাকার  আজিজুল হকের স্ত্রী ও ৩সন্তানের জননী বলে জানা যায়।
স্থানীয়রা জানান, আজিজের স্ত্রী শারমিন আক্তারকে অনৈতিক প্রস্তাব দেয় একই এলাকার ফরিদুল আলমের পুত্র ও তিন সন্তানের জনক মোহাম্মদ বাচ্চু। বাচ্চু ওই গৃহবধূকে সুকৌশলে অনৈতিক প্রস্তাব দিতে থাকে। প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় তাকে ব্ল্যাকমেইল করে নাটক সাজায় শারমিনের স্বামী আজিজ পরকিয়া করে অন্য মেয়ের সাথে। তার স্বামীকে পরকিয়া থেকে ফেরাতে নানা কুটকৌশল অবলম্বন করে বাচ্চু ওই গৃহবধূর পনোগ্রাফি ছবি এডিটিং করে বিভিন্ন জনকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গৃহবধুর স্বামীকে,স্বামীর ভাই ও বাপের বাড়ির লোকসহ বিভিন্নজনকে অশ্লীল ছবি ও অশ্লীল ভয়েস পাঠায়। বিষয়টি জানা জানি হলে ঘটনার দিন রাতে কিরিচ নিয়ে গৃহবধুর স্বামী ঘরে না থাকার সুযোগে বাচ্চু গৃহবধূর ঘরে ডুকে তাকে শারীরিক নির্যাতন চালায়। এ সময় তার আর্তচিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে সে পালিয়ে যায়।
এদিকে ব্ল্যাক মেইলের শিকার গৃহবধূ শারমিন আক্তার জানান,আমার কাছ থেকে টাকা ধার নেয়। পরে ওই টাকা ফেরত চাইলে বাচ্চু আমাকে ব্ল্যাকমেইল করে এবং অনৈতিক প্রস্তাব দেয় এবং আমার স্বামী অন্য মেয়ের সাথে পরকিয়া করে বলে জানিয়ে আমাকে মগ বৈদ্যের কাছে তাবিজ নিতে আমার নগ্ন ছবি ইমু কলের মাধ্যমে কিছু অশ্লীল ছবি উঠায়। এর পর সে আমাকে ব্ল্যাকমেইল করে অনৈতিক প্রস্তাব দেয়। এতে আমি রাজি না হলে সে ঘটনার দিন রাতে আমার আমার ঘরে ডুকে আমাকে শারিরীক নির্যাতন করে আহত করে এসময় আমি চিৎকার করলে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে সে আলমারি থেকে নগদ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়।
এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে পেকুয়া থানার সহকারী পুলিশ পরিদর্শক (এস আই) হেবজুর ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং আহতদেরকে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।
অভিযুক্ত মোহাম্মদ বাচ্চুর সাথে যোগাযোগ করার জন্য চেষ্টা করলেও সংযোগ না দেয়ায় বক্তব্য দেওয়া সম্ভব হয়নি।  তবে তার বউ জানিয়েছেন ঘটনাটি সত্য আমরা তাকে এ ধরনের অপরাধ না করার জন্য বারণ করেছি। তারপরও সে একাজ থেকে বিরত থাকেনি এজন্য তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী জানাচ্ছি।
এ ব্যাপারে এস আই হেবজর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অভিযুক্তকে আইনের আওতায় আনা হবে।