Barta Kontho
নিবন্ধন নম্বর: ৪৬১বুধবার , ২ মার্চ ২০২২
  1. 1st Lead
  2. 2nd Lead
  3. অপরাধ
  4. আইটি বিশ্ব
  5. আইন ও আদালত
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আবহাওয়া
  8. ইসলাম
  9. খেলাধুলা
  10. চাকুরি
  11. ছবি ঘর
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. ট্রাভেল
  15. নির্বাচন

২ মার্চ পতাকা উত্তোলন দিবসকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দিন: বাংলাদেশ ন্যাপ

ঢাকা ব্যুরো।।
মার্চ ২, ২০২২ ১:১০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

অতীত অস্বীকার করে সঠিক ইতিহাস নির্মান করা সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ নির্মানে যারা যা অবদান তার স্বীকৃতি দেয়া উচিত। শুধু ৭ মার্চ বা ২৬ মার্চই স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাস নয়। স্বাধীকার আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ নির্মানে শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক, মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী, হোসেন শহীদ সোরাওয়র্দী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ তৎকালিন ছাত্র নেতা আ.স.ম. আব্দুর রব, শাহজাহান সিরাজসহ যার যা অবদান তাঁর স্বীকৃতি দেয়া রাষ্ট্রের দায়িত্ব।

বুধবার (২ মার্চ) ‘২মার্চ স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন দিবস স্মরণে’ গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় এসব কথা বলেন।

তারা বলেন, স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ এক দল বা এক ব্যক্তির অবদান নয়। স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসের বাকে বাকে অনেক নায়ক মহানায়ক রয়েছে লাল-সবুজের এই পতাকা নির্মানে। যদিও আজ স্বাধীনতার সকল ইতিহাস ছিনতাই করার অপচেষ্টা চলছে। বিবেকবর্জিত, চাটুকার আর সুবিধাবাদি বুদ্ধিজীবী নামধারীরা বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ইতহাসকে বিকৃত করছে। অন্যদিকে অন্ধ দলীয় আনুগত্যের কারনেও ইতিহাস বিকৃত করছে কেউ কেউ।

নেতৃদ্বয় আরো বলেন, ১৯৭১ সালে ২ মার্চ পূর্ব পাকিস্তানের ভূখন্ডে উত্তোলন করা হয় স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা। পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠীর শোষণ আর নিপীড়নের বিরুদ্ধে তৎকালীন ডাকসু নেতাদের উদ্যোগে সেদিন সাড়া দিয়েছিলেন আমজনতা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের সামনে ছাত্র-জনতার বিশাল সমাবেশে তৎকালীন ডাকসু ভিপি আ স ম আব্দুর রব স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে যে ঐতিহাসিক দায়িত্ব পালন করেছিলেন রাষ্ট্রের উচিত সেজন্য তাঁকে স্বীকৃতি দেয়া।

তারা বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস যদি সঠিক ও নির্মোহভাবে নির্মাণ করতে ব্যর্থ হই তাহলে আগামী প্রজন্মের কাছ থেকে আমরা মুক্তি পাবো না। তাই জাতি হিসাবে আমাদের উচিত সকল কৃতিত্ব নিজেদের ভান্ডে জমা করার প্রবণতা বাদ দিয়ে জাতীয় ঐকমত্য গড়ে তোলা। ষড়যন্ত্রকারীরা বাংলাদেশের রাজনীতিতে অস্থিতিশীলতা বজায় রেখে ফয়দা লুটার যে চেষ্টা করছে তার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

বার্তা/এন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।