শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শরণখোলায় লোকালয়ে বাঘের পায়ের ছাপ, স্থানীয়দের মধ্যে আতঙ্ক

সুন্দরবন সংলগ্ন শরণখোলার লোকালয়ে বাঘ আতংক বিরাজ করছে। বাঘের ভয়ে উপজেলার উত্তর রাজাপুর ও ধানসাগর গ্রামের মানুষ রাতের বেলা বাইরে চলাফেরা করেনা।
রবিবার দুপুরে সরেজমিনে উপজেলার উত্তর রাজাপুর ও ধানসাগর গ্রামে গিয়ে গ্রামবাসীদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, প্রায়ই রাতে পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর ফরেষ্ট ষ্টেশন এলাকার বন থেকে উত্তর রাজাপুর, টগড়াবাড়ী ও ধানসাগর গ্রামে বাঘের আনাগোনা বেড়েছে। উত্তর রাজাপুর গ্রামের মাসুম হাওলাদার জানান, ২৫ মার্চ রাতে সুন্দরবনের নাংলী এলাকা থেকে বাঘ উত্তর রাজাপুর গ্রামের জলিল মাষ্টারের বাড়ীর আঙ্গিনায় ঢোকে। সকালে ঐ বাড়ীর পুকুর পাড়ে বাঘের পায়ের ছাপ দেখা যায়। জলিল মাষ্টারের স্ত্রী মুকরিমা বেগম তাদের বাড়ীতে বাঘ আসার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। ধানসাগর ১ নং ওয়ার্ডের গ্রাম পুলিশ তোফাজ্জেল হোসেন বলেন, তিনি ৫/৬ দিন আগে বনের ধারে লোকালয়ে বাঘের ডাক শুনতে পেয়েছেন। টগড়াবাড়ী এলাকার ফজলুল হক হাওলাদার বলেন, গ্রামে বাঘ আসার আলামত পাওয়ায় তারা রাতের বেলা বাইরে চলাফেরা বন্ধ করেছেন।
ধানসাগর ইউপি চেয়ারম্যান মাইনুল ইসলাম টিপু বলেন, বেশ কিছুদিন যাবৎ ধানসাগর ইউনিয়নের সুন্দরবন সংলগ্ন পশ্চিম রাজাপুর ও ধানসাগর গ্রামে বাঘের আনাগোনার খবর গ্রামবাসীদের মাধ্যমে তিনি শুনেছেন।
পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জ কর্মকর্তা ( এসিএফ) মোঃ শহীদুল ইসলাম বলেন, ধানসাগর এলাকার লোকালয়ে বাঘ আসার খবর তার জানা নেই। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন বলে এসিএফ জানিয়েছেন।

 

বার্তা/এন

শরণখোলায় লোকালয়ে বাঘের পায়ের ছাপ, স্থানীয়দের মধ্যে আতঙ্ক

প্রকাশের সময় : ০৭:৪৭:১০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ মার্চ ২০২২

সুন্দরবন সংলগ্ন শরণখোলার লোকালয়ে বাঘ আতংক বিরাজ করছে। বাঘের ভয়ে উপজেলার উত্তর রাজাপুর ও ধানসাগর গ্রামের মানুষ রাতের বেলা বাইরে চলাফেরা করেনা।
রবিবার দুপুরে সরেজমিনে উপজেলার উত্তর রাজাপুর ও ধানসাগর গ্রামে গিয়ে গ্রামবাসীদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, প্রায়ই রাতে পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর ফরেষ্ট ষ্টেশন এলাকার বন থেকে উত্তর রাজাপুর, টগড়াবাড়ী ও ধানসাগর গ্রামে বাঘের আনাগোনা বেড়েছে। উত্তর রাজাপুর গ্রামের মাসুম হাওলাদার জানান, ২৫ মার্চ রাতে সুন্দরবনের নাংলী এলাকা থেকে বাঘ উত্তর রাজাপুর গ্রামের জলিল মাষ্টারের বাড়ীর আঙ্গিনায় ঢোকে। সকালে ঐ বাড়ীর পুকুর পাড়ে বাঘের পায়ের ছাপ দেখা যায়। জলিল মাষ্টারের স্ত্রী মুকরিমা বেগম তাদের বাড়ীতে বাঘ আসার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। ধানসাগর ১ নং ওয়ার্ডের গ্রাম পুলিশ তোফাজ্জেল হোসেন বলেন, তিনি ৫/৬ দিন আগে বনের ধারে লোকালয়ে বাঘের ডাক শুনতে পেয়েছেন। টগড়াবাড়ী এলাকার ফজলুল হক হাওলাদার বলেন, গ্রামে বাঘ আসার আলামত পাওয়ায় তারা রাতের বেলা বাইরে চলাফেরা বন্ধ করেছেন।
ধানসাগর ইউপি চেয়ারম্যান মাইনুল ইসলাম টিপু বলেন, বেশ কিছুদিন যাবৎ ধানসাগর ইউনিয়নের সুন্দরবন সংলগ্ন পশ্চিম রাজাপুর ও ধানসাগর গ্রামে বাঘের আনাগোনার খবর গ্রামবাসীদের মাধ্যমে তিনি শুনেছেন।
পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জ কর্মকর্তা ( এসিএফ) মোঃ শহীদুল ইসলাম বলেন, ধানসাগর এলাকার লোকালয়ে বাঘ আসার খবর তার জানা নেই। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন বলে এসিএফ জানিয়েছেন।

 

বার্তা/এন