রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মাধবপুরে কাজ করতে এসে গণধর্ষণের শিকার তরুণী

প্রতীকী ছবি

হবিগঞ্জের  মাধবপুরে শাহপুর কোম্পানিতে শ্রমিকের কাজ করতে এসে গণধর্ষণের শিকার হল চট্রগ্রামে বাসিন্দা  তরুণী।
সোমবার (২৮ মার্চ) দুপুরে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসা অবস্থায় তরুণী ধর্ষনের  ঘটনার তথ্য প্রদান করেন। দুইদিন আটকে রেখে ধর্ষণের পর  মাধবপুর  মহাসড়কের পাশে ওই তরুণীকে ফেলে যায় ধর্ষকেরা।
গতকাল রোববার সন্ধ্যায় মূমুর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
ধর্ষণের শিকার  তরুণী চট্রগ্রামের হাটহাজারী এলাকার বাসিন্দা বলে জানান তিনি!
ধর্ষনের শিকার তরুণী হাসপাতালে সাংবাদিকদের জানান, শাহপুর এলাকায় কোম্পানিতে শ্রমিকের কাজের জন্য গত ২৫ মার্চ সন্ধ্যায় সে মাবধপুর উপজেলার দরগাহ গেইট এলাকায় পৌছায়।
এসময় সে একটি সিএনজি অটোরিক্সা খোঁজতে থাকে শাহপুর যাওয়ার জন্য। হঠাৎ করে একটি সিএনজি আসলে চালককে সে শাহপুর যাওয়ার জন্য বলে। এসময় সিএনজিতে আরো দুই যুবক ছিল। পরে সিএনজি চালক শাহপুর কোম্পানিতে না নিয়ে তাকে রিয়াজনগর গ্রামে নিয়ে যায়।
সেখানে নিয়ে তাকে একটি ঘরে আটকে রেখে দু’দিন জোরপুর্বক গণধর্ষণ করে। আর এতে করে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে ওই তরুনী!
গত কাল রোববার  বিকেলে তাকে ঢাকা সিলেট মহাসড়কের পাশে মুখ বেঁধে ফেলে চলে যায় ধর্ষকেরা। স্থানীয়দের সহযোগীতায় সে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে গেলে কর্তৃপক্ষ তাকে মাধবপুর থানাকে বিষয়টি অবগত করতে বলে।
একপর্যায়ে ওই তরুণী মাধবপুর থানায় গেলে তাকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা হয়।
নির্যাতিতা ওই তরুণী আরো জানায়, চিৎকার চেচামেচি করায় ধর্ষকেরা তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে জখম করেছে এবং তাকে হত্যার ভয় দেখিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে মাধবপুর থানার (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক জানান, ঘটনাটি জানার পর ওই তরুণীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে সে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। পুলিশ নির্যাতিতার কাছ থেকে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করছে। তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

মাধবপুরে কাজ করতে এসে গণধর্ষণের শিকার তরুণী

প্রকাশের সময় : ০৬:১৭:২৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ মার্চ ২০২২
হবিগঞ্জের  মাধবপুরে শাহপুর কোম্পানিতে শ্রমিকের কাজ করতে এসে গণধর্ষণের শিকার হল চট্রগ্রামে বাসিন্দা  তরুণী।
সোমবার (২৮ মার্চ) দুপুরে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসা অবস্থায় তরুণী ধর্ষনের  ঘটনার তথ্য প্রদান করেন। দুইদিন আটকে রেখে ধর্ষণের পর  মাধবপুর  মহাসড়কের পাশে ওই তরুণীকে ফেলে যায় ধর্ষকেরা।
গতকাল রোববার সন্ধ্যায় মূমুর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
ধর্ষণের শিকার  তরুণী চট্রগ্রামের হাটহাজারী এলাকার বাসিন্দা বলে জানান তিনি!
ধর্ষনের শিকার তরুণী হাসপাতালে সাংবাদিকদের জানান, শাহপুর এলাকায় কোম্পানিতে শ্রমিকের কাজের জন্য গত ২৫ মার্চ সন্ধ্যায় সে মাবধপুর উপজেলার দরগাহ গেইট এলাকায় পৌছায়।
এসময় সে একটি সিএনজি অটোরিক্সা খোঁজতে থাকে শাহপুর যাওয়ার জন্য। হঠাৎ করে একটি সিএনজি আসলে চালককে সে শাহপুর যাওয়ার জন্য বলে। এসময় সিএনজিতে আরো দুই যুবক ছিল। পরে সিএনজি চালক শাহপুর কোম্পানিতে না নিয়ে তাকে রিয়াজনগর গ্রামে নিয়ে যায়।
সেখানে নিয়ে তাকে একটি ঘরে আটকে রেখে দু’দিন জোরপুর্বক গণধর্ষণ করে। আর এতে করে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে ওই তরুনী!
গত কাল রোববার  বিকেলে তাকে ঢাকা সিলেট মহাসড়কের পাশে মুখ বেঁধে ফেলে চলে যায় ধর্ষকেরা। স্থানীয়দের সহযোগীতায় সে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে গেলে কর্তৃপক্ষ তাকে মাধবপুর থানাকে বিষয়টি অবগত করতে বলে।
একপর্যায়ে ওই তরুণী মাধবপুর থানায় গেলে তাকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা হয়।
নির্যাতিতা ওই তরুণী আরো জানায়, চিৎকার চেচামেচি করায় ধর্ষকেরা তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে জখম করেছে এবং তাকে হত্যার ভয় দেখিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে মাধবপুর থানার (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক জানান, ঘটনাটি জানার পর ওই তরুণীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে সে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। পুলিশ নির্যাতিতার কাছ থেকে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করছে। তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।