শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বোরোদিয়াঙ্কার পরিস্থিতি বুচার চেয়ে আরও ভয়ংকর: জেলেনস্কি

ছবি-সংগৃহীত

ইউক্রেনের বোরোদিয়াঙ্কা শহরের পরিস্থিতি পার্শ্ববর্তী বুচা শহরের তুলনায় ‘আরও বেশি ভয়ংকর’ বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) টেলিগ্রামে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে এ কথা জানান তিনি।

রাজধানী কিয়েভ থেকে ৩৫ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে বুচা শহরে রাশিয়ান বাহিনীর হাতে ৩০০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় কর্মকর্তারা।

বেসামরিক নাগরিকদের লক্ষ্যবস্তু করার বিষয়টি অস্বীকার করেছে মস্কো। তারা বলছে, মস্কোর বিরুদ্ধে আরও নিষেধাজ্ঞার ন্যায্যতা দিতে এবং শান্তি আলোচনাকে অন্যদিকে নেওয়ার জন্য বুচায় মৃতদেহের ছবি ইউক্রেন সরকারের সাজানো।

জেলেনস্কি বলেন, বোরোদিঙ্কায় ধ্বংসস্তূপ সরানোর কাজ শুরু হয়েছে… সেখানের পরিস্থিতি আরও বেশি ভয়ঙ্কর। রাশিয়ান দখলদারদের হামলার শিকার হয়েছেন আরও বেশি মানুষ।

শহরটিতে বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যুর জন্য রাশিয়া দায়ী বলে আর কোনও বিস্তারিত তথ্য বা প্রমাণ দেননি তিনি।

জেলেনস্কি বলেন, মারিউপোলে রাশিয়ান সামরিক বাহিনী কী করেছে, সে সম্পর্কে বিশ্ব যখন পুরো সত্য জানবে তখন কী হবে? বুচা এবং কিয়েভ অঞ্চলের অন্যান্য শহরের প্রায় প্রতিটি রাস্তায় রাশিয়ান সৈন্য প্রত্যাহারের পর কী ঘটেছে বিশ্ব তা দেখেছে।

বুচা থেকে শহরটি প্রায় ২৫ কি.মি. দূরে।

বুচা শহরে বেসামরিক লোকদের হত্যাকে যুদ্ধাপরাধ হিসেবে অভিহিত করে ব্যাপকভাবে নিন্দা জানিয়েছে পশ্চিমারা। একই সঙ্গে রাশিয়ার বিরুদ্ধে কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য চাপ তৈরি করেছে তারা।

মস্কো বলেছে, তাদের সামরিক অভিযানের অন্যতম লক্ষ্য হলো ইউক্রেনীয় জাতীয়তাবাদীদের গণহত্যার হুমকি থেকে মারিউপোলের দক্ষিণ বন্দরের মতো বেশিরভাগ রাশিয়ান-ভাষী অঞ্চলগুলোকে ‘মুক্ত করা’।

জেলেনস্কি এ দাবি প্রত্যাখ্যান করে বলেছেন, এগুলো রাশিয়ার আক্রমণের ভিত্তিহীন অজুহাত।

—রয়টার্স

বোরোদিয়াঙ্কার পরিস্থিতি বুচার চেয়ে আরও ভয়ংকর: জেলেনস্কি

প্রকাশের সময় : ১০:০৪:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ এপ্রিল ২০২২

ইউক্রেনের বোরোদিয়াঙ্কা শহরের পরিস্থিতি পার্শ্ববর্তী বুচা শহরের তুলনায় ‘আরও বেশি ভয়ংকর’ বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) টেলিগ্রামে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে এ কথা জানান তিনি।

রাজধানী কিয়েভ থেকে ৩৫ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে বুচা শহরে রাশিয়ান বাহিনীর হাতে ৩০০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় কর্মকর্তারা।

বেসামরিক নাগরিকদের লক্ষ্যবস্তু করার বিষয়টি অস্বীকার করেছে মস্কো। তারা বলছে, মস্কোর বিরুদ্ধে আরও নিষেধাজ্ঞার ন্যায্যতা দিতে এবং শান্তি আলোচনাকে অন্যদিকে নেওয়ার জন্য বুচায় মৃতদেহের ছবি ইউক্রেন সরকারের সাজানো।

জেলেনস্কি বলেন, বোরোদিঙ্কায় ধ্বংসস্তূপ সরানোর কাজ শুরু হয়েছে… সেখানের পরিস্থিতি আরও বেশি ভয়ঙ্কর। রাশিয়ান দখলদারদের হামলার শিকার হয়েছেন আরও বেশি মানুষ।

শহরটিতে বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যুর জন্য রাশিয়া দায়ী বলে আর কোনও বিস্তারিত তথ্য বা প্রমাণ দেননি তিনি।

জেলেনস্কি বলেন, মারিউপোলে রাশিয়ান সামরিক বাহিনী কী করেছে, সে সম্পর্কে বিশ্ব যখন পুরো সত্য জানবে তখন কী হবে? বুচা এবং কিয়েভ অঞ্চলের অন্যান্য শহরের প্রায় প্রতিটি রাস্তায় রাশিয়ান সৈন্য প্রত্যাহারের পর কী ঘটেছে বিশ্ব তা দেখেছে।

বুচা থেকে শহরটি প্রায় ২৫ কি.মি. দূরে।

বুচা শহরে বেসামরিক লোকদের হত্যাকে যুদ্ধাপরাধ হিসেবে অভিহিত করে ব্যাপকভাবে নিন্দা জানিয়েছে পশ্চিমারা। একই সঙ্গে রাশিয়ার বিরুদ্ধে কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য চাপ তৈরি করেছে তারা।

মস্কো বলেছে, তাদের সামরিক অভিযানের অন্যতম লক্ষ্য হলো ইউক্রেনীয় জাতীয়তাবাদীদের গণহত্যার হুমকি থেকে মারিউপোলের দক্ষিণ বন্দরের মতো বেশিরভাগ রাশিয়ান-ভাষী অঞ্চলগুলোকে ‘মুক্ত করা’।

জেলেনস্কি এ দাবি প্রত্যাখ্যান করে বলেছেন, এগুলো রাশিয়ার আক্রমণের ভিত্তিহীন অজুহাত।

—রয়টার্স