শনিবার, ০১ এপ্রিল ২০২৩, ১৮ চৈত্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাড়ে ১৩ বছরের উন্নয়ন দেখে সবাই নৌকায় উঠতে চায়: তথ্যমন্ত্রী

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

সাড়ে ১৩ বছরের উন্নয়ন দেখে সবাই নৌকায় উঠতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেছেন, ‘তাদের নৌকায় উঠতে দেয়া যাবে না। মাদক কারবারি, ভূমিদস্যু, উড়ন্ত পাখিদের স্থান আওয়ামী লীগে নেই।’

আজ শুক্রবার (৬ মে) কক্সবাজারের হিলডাউন সার্কিট হাউসে বিকালে জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের সাথে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন তিনি।

নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষেত্রে ত্যাগী ও দলের বিপদে হাল ধরবেন এমন কর্মীকে আনার পরামর্শ তথ্যমন্ত্রীর। তিনি বলেন, ‘কোনো নেতার অনিয়মকে বরদাশত করা হবে না। প্রয়োজনে দল থেকে বের করে দেয়া হবে।’

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, ‘দেশবিরোধী শক্তি নিয়ে নানা গুজব ও মিথ্যাচারে ব্যস্ত বিএনপি। তাদের রাজনীতি এখন এই অপচেষ্টায় সীমাবদ্ধ। এ ছাড়া এসব মিথ্যাচার প্রতিহত করে ঐক্যবদ্ধভাবে আগামী নির্বাচনেও আওয়ামী লীগের ধস নামানো বিজয় নিশ্চিত।

করোনাকালে আওয়ামী লীগ দুই হাজার নেতাকর্মী হারিয়েছে জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘করোনার দুই বছর মাঠে আওয়ামী লীগ ছাড়া আর কেউ ছিল না। বিএনপি-জামায়াত বা তাদের অন্য কোনো দল করোনায় দেশের মানুষের পাশে দাঁড়ায়নি। শুধু আওয়ামী লীগ তার অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা ছিল। দেশের মানুষের পাশে দাঁড়াতে গিয়ে দুই হাজার নেতাকর্মীকে হারাতে হয়েছে।

আওয়ামী লীগ কোনো বদ্ধ জলাশয় নয় জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সারা দেশে আওয়ামী লীগের শক্ত ঘাঁটি তৈরি হয়েছে। এখন শুধু আগামী নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধ থেকে বিজয় নিশ্চিত করা।’ সাড়ে ১৩ বছরের উন্নয়নযজ্ঞ দেশের জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে দলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

মতবিনিময়ের সময় আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, সহসভাপতি রেজাউল করিম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবুল আলম মুকুল, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নজিবুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক উজ্জল কর।

জনপ্রিয়

সাড়ে ১৩ বছরের উন্নয়ন দেখে সবাই নৌকায় উঠতে চায়: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশের সময় : ১১:৩৯:০২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৬ মে ২০২২

সাড়ে ১৩ বছরের উন্নয়ন দেখে সবাই নৌকায় উঠতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেছেন, ‘তাদের নৌকায় উঠতে দেয়া যাবে না। মাদক কারবারি, ভূমিদস্যু, উড়ন্ত পাখিদের স্থান আওয়ামী লীগে নেই।’

আজ শুক্রবার (৬ মে) কক্সবাজারের হিলডাউন সার্কিট হাউসে বিকালে জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের সাথে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন তিনি।

নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষেত্রে ত্যাগী ও দলের বিপদে হাল ধরবেন এমন কর্মীকে আনার পরামর্শ তথ্যমন্ত্রীর। তিনি বলেন, ‘কোনো নেতার অনিয়মকে বরদাশত করা হবে না। প্রয়োজনে দল থেকে বের করে দেয়া হবে।’

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, ‘দেশবিরোধী শক্তি নিয়ে নানা গুজব ও মিথ্যাচারে ব্যস্ত বিএনপি। তাদের রাজনীতি এখন এই অপচেষ্টায় সীমাবদ্ধ। এ ছাড়া এসব মিথ্যাচার প্রতিহত করে ঐক্যবদ্ধভাবে আগামী নির্বাচনেও আওয়ামী লীগের ধস নামানো বিজয় নিশ্চিত।

করোনাকালে আওয়ামী লীগ দুই হাজার নেতাকর্মী হারিয়েছে জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘করোনার দুই বছর মাঠে আওয়ামী লীগ ছাড়া আর কেউ ছিল না। বিএনপি-জামায়াত বা তাদের অন্য কোনো দল করোনায় দেশের মানুষের পাশে দাঁড়ায়নি। শুধু আওয়ামী লীগ তার অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা ছিল। দেশের মানুষের পাশে দাঁড়াতে গিয়ে দুই হাজার নেতাকর্মীকে হারাতে হয়েছে।

আওয়ামী লীগ কোনো বদ্ধ জলাশয় নয় জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সারা দেশে আওয়ামী লীগের শক্ত ঘাঁটি তৈরি হয়েছে। এখন শুধু আগামী নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধ থেকে বিজয় নিশ্চিত করা।’ সাড়ে ১৩ বছরের উন্নয়নযজ্ঞ দেশের জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে দলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

মতবিনিময়ের সময় আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, সহসভাপতি রেজাউল করিম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবুল আলম মুকুল, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নজিবুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক উজ্জল কর।