Barta Kontho
নিবন্ধন নম্বর: ৪৬১শনিবার , ২১ মে ২০২২
  1. 1st Lead
  2. 2nd Lead
  3. অপরাধ
  4. আইটি বিশ্ব
  5. আইন ও আদালত
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আবহাওয়া
  8. ইসলাম
  9. খেলাধুলা
  10. চাকুরি
  11. ছবি ঘর
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. ট্রাভেল
  15. নির্বাচন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কালাপাড়িয়া সরকারি আবাসনের পুকুরে মাছ ধরা নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ৯

তুষার হাবীব, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি
মে ২১, ২০২২ ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ঝিনাইদহ জেলার হরিণাকুণ্ডু উপজেলার রঘুনাথপূর ইউনিয়নের কালাপাড়িয়া সরকারি আবাসনের পুকুরে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা রেশমাসহ ৯ জন আহত হয়েছে।
স্থানীয় বাসিন্দারা আহতদের উদ্ধার করে হরিনাকুন্ডু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণ করে। এর মধ্যে চম্পা খাতুন নামে এক মহিলার অবস্থা গুরুতর খারাপ হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করেন। সামান্য মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয় এতে
আহত হয়েছেন, চম্পা খাতুন(৪৫), ও তার ছেলে মামুন আলী(২৭), নাজমা খাতুন(৪০),  মনোয়ারা খাতুন(৫৫), রেশমা খাতুন(২৩), রিমা খাতুন(২৫), চায়না খাতুন(৪৫), সাঈদ(২২), ও লালন(১৯)।
আহতদের মধ্যে অন্তঃসত্ত্বা রেশমা খাতুন, নাজমা খাতুন ও মামুন বর্তমানে হরিণাকুণ্ডু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তির পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। অনন্য আহতদের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চিকিৎসা নিয়ে নিজ নিজ বাড়ীতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। এদিকে আমাদের প্রতিনিধিকে আহত অন্তঃসত্ত্বা রেশমা ও নাজমা জানান, গত বিশ বছর পূর্ব থেকে কালাপাহাড়ীয়া আবাসনের পুকুর ও আংশিক জমি নিয়ে স্থানীয় আমিরুল ইসলাম নামের এক ব্যাক্তির সাথে সরকারের মামলা চলমান রয়েছে। এই জমি ও পুকুর নিয়ে আবাসনে প্রকল্পের বাসিন্দাদের মধ্যে দুইটি পক্ষ রয়েছে। এক পক্ষ জমি ও পুকুরের দাবীদার আমিরুলের পক্ষে এবং অন্য পক্ষ সরকারের পক্ষে অবস্থান নিয়ে আছে।
এ সময় আহত মামুন জানায়, গতকাল  বৃহস্পতিবার আনুমানিক সকাল ১০টা সময় জামালের ছেলে সাঈদ, মন্টুর ছেলে আকাশ, ইসলামের ছেলে (বহিরাগত) লালন ও শরাফতের ছেলে রাসেলসহ বেশ কয়েকজন ঐ পুকুরে মাছ ধরতে যায়। এদিকে ঐ মাছ ধরার খবর পেয়ে আবাসনের জমি ও পুকুরের দাবীদার আমিরুল ইসলামসহ কিছু স্থানীয় বাসিন্দারা পুকুরের কাছে উপস্থিত হোন।  এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি করার এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে গোলযোগ শুরু হলে এতে উভয় পক্ষের ৯ জন আহত হয়।
হরিণাকুণ্ডু স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ জামিনুর রশিদ জানান, বৃহস্পতিবার দুপুর ১টা নাগাদ আহতরা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য আসে মহিলা সহ ৪ জন ভর্তি হয়, বাকীরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ীতে ফেরত যায়।
এ ঘটনায় থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম মাছ ধরাকে কেন্দ্রকরে গোলযোগের ঘটনা নিশ্চিত করে বলেন, মূলত গোলযোগে চম্পা খাতুন ও তার ছেলে মামুন আহত হয়েছে বাকীরা মামলা থেকে বাচার জন্য আহত না হয়েও হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।
তিনি আরও জানান অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।