Barta Kontho
নিবন্ধন নম্বর: ৪৬১বুধবার , ১০ আগস্ট ২০২২
  1. 1st Lead
  2. 2nd Lead
  3. অপরাধ
  4. আইটি বিশ্ব
  5. আইন ও আদালত
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আবহাওয়া
  8. ইসলাম
  9. খেলাধুলা
  10. চাকুরি
  11. ছবি ঘর
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. ট্রাভেল
  15. নির্বাচন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যুক্তরাষ্ট্রে ৪ মুসলিমকে হত্যা, অভিযুক্ত ব্যাক্তি গ্রেপ্তার

ডেস্ক রিপোর্ট
আগস্ট ১০, ২০২২ ১:৩১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ মেক্সিকো শহরে চার মুসলিমকে হত্যার দায়ে অবশেষে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) ৫১ বছর বয়সী এক অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তার গাড়ি ট্র্যাক করে ওই আফগানকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওই ব্যক্তি অপহরণ ও গুলি করে চারজনকে হত্যা করেছে বলে পুলিশের অভিযোগ। তার মধ্যে ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে দুইজনকে হত্যার অভিযোগ এনেছে পুলিশ। অন্য দুইটি হত্যার ক্ষেত্রে তাকে প্রধান অভিযুক্ত বলা হয়েছে।

পুলিশ প্রধান হ্যারল্ড মেডিনা বলেছেন, প্রধান অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি পেশায় একজন গাড়িচালক। এর মধ্যে প্রথমজনকে গত নভেম্বরে হত্যা করা হন। তারপর গত দুই সপ্তাহে তিনজনকে হত্যা করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে তারা পাকিস্তান বা আফগানের নাগরিক।

নিউ মেক্সিকোর যে শহরে এই চারটি হত্যা হয়েছে, সেখানে পাঁচ লাখ ৬৫ হাজার মানুষের বসবাস। তার মধ্যে পাঁচ হাজার মুসলিম। তারা গত কয়েক মাস ধরে রীতিমতো আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন।

নিহতদের মধ্যে মোহাম্মদ আফজাল হুসেন (২৭) ছিলেন শহরের প্ল্যানিং ডিরেক্টর। তাই ভাই ইমতিয়াজ হুসেন বলেন, প্রধান অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করার পর শহরের মুসলিমরা চিন্তামুক্ত হবেন।

ইমতিয়াজ বলেন, তার সন্তানরা এখনো ভয়ে আছে। তারা জানতে চেয়েছে, এখন থেকে বারান্দায় যেতে পারে কিনা? মাঠে গিয়ে খেলতে পারে কি না? তবে তিনি জানিয়েছেন, তিনি ও তার পরিবারের অনেক প্রশ্ন রয়েছে, তারা জবাব চান।

৬১ বছর বয়সী মোহাম্মদ আহমেদি ও ৪১ বছর বয়সী আফতাব হাসানকেও হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া ২৫ বছর বয়সী নইম হুসেনকেও হত্যা করা হয়েছে। গত ৮ জুলাই তিনি আমেরিকার নাগরিকত্ব পেয়েছিলেন। গত শুক্রবার তাকে হত্যা করা হয়। তিনি অন্য দুই জনের জানাজায় অংশ নিয়েছিলেন।

তিনজনই ওখানকার সবচেয়ে বড় মসজিদ ইসলামিক সেন্টার অফ নিউ মেক্সিকোতে ইবাদতের জন্য গেছিলেন।

মসজিদেরসঙ্গে যুক্ত আনিলা আবাদ জানিয়েছেন, ওই অঞ্চলের প্রচুর মুসলিম ভয়ে মসজিদে আসা বন্ধ করে দিয়েছিলেন। খুব দরকার না হলে তারা বাইরে বের হন না। এ ঘটনার পর পাকিস্তান থেকে আসা কিছু ছাত্র শহর ছেড়েই চলে গেছেন।

আনিলা আবাদ জানিয়েছেন, আমরা আতঙ্কিত। আমরা এখনো বোঝার চেষ্টা করছি, কেন এমন হলো? সৌজন্যে।

— ডয়চে ভেলে

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।