রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৩ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খুলনায় জেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা পেলেন শেখ হারুনুর রশীদ

খুলনাসহ ৬১ জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের নামের তালিকা ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। একই সঙ্গে গাইবান্ধা-৫ আসনের উপ-নির্বাচনের প্রার্থীর নামও ষোষণা করা হয়।
শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবনে গণভবনে মনোনয়ন বোর্ডের সভায় জেলা পরিষদের দলীয় প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত করে নামের তালিকা করা হয়। বিকালে চারটা থেকে শুরু হয়ে মনোনয়ন বোর্ডের সভা চলে রাত পর্যন্ত।
বৈঠকের শুরুতে আ’লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও দলের সংসদীয়, স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা গণভবনে যুক্তরাজ্যের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যুতে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন।
আ’লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মনোনয়ন বোর্ডের সভায় উপস্থিত ছিলেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য আমির হোসেন আমু, শেখ সেলিম, কাজী জাফরুল্লাহ, কর্নেল ফারুক খান, ড. আব্দুল রাজ্জাক, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, মাহবুব উল আলম হানিফ।
গতকাল শনিবার রাতে আ’লীগের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক ব্যারিষ্টার বিপ্লব বড়–য়া স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীদেও তালিকা প্রকাশ করেন।
খুলনা বিভাগে আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা : খুলনায় শেখ হারুনুর রশীদ, বাগেরহাটে শেখ কামরুজ্জামান টুকু, সাতক্ষীরায় মোঃ নজরুল ইসলাম, যশোরে সাইফুজ্জামান পিকুল, নড়াইলে সুবাস চন্দ্র বোস, মেহেরপুর মোঃ আব্দুস সালাম, কুষ্টিয়ায় মোঃ সদরউদ্দিন খান, চুয়াডাঙ্গায় মাহফুজুর রহমান (মনজু), মাগুরায় পঙ্কজ কুমার কুণ্ডু, ঝিনাইদহে কনক কান্তি দাস।
এর আগে গত ৪ সেপ্টেম্বর বেলা ১১টায় ধানমন্ডিতে আ’লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র বিতরণের কার্যক্রম শুরু হয়ে চলে ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। জেলা পরিষদের মনোনয়নের পাশাপাশি গাইবান্ধা-৫ আসনের উপ-নির্বাচনের মনোনয়নপত্রও বিতরণ করা হয়। ৬১টি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদের বিপরীতে আ’লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন পাঁচশ’ জন।
গড়ে প্রতিটি জেলায় আটজনের অধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী ফরম সংগ্রহ করেন। এছাড়া গাইবান্ধা-৫ আসনের মনোনয়ন সংগ্রহ করেন ১০ জন। মনোনয়ন প্রত্যাশীর দৌড়ে ছিলেন সাবেক মন্ত্রী, সাবেক সংসদ সদস্য, জেলা আ’লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, বর্তমান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানসহ জেলা-উপজেলার দলের শীর্ষ নেতা এবং বিভিন্ন অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের প্রবীণ নেতারা। স্থানীয় জনপ্রিয়তা ও এলাকা থেকে আসা বিভিন্ন রিপোর্ট যাচাই-বাছাই করে আ’লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দলীয় প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত করেছেন।
নির্বাচন কমিশনের তফসিল অনুযায়ী ১২ অক্টোবর ইভিএম পদ্ধতিতে গাইবান্ধার উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

গ্রন্থাগার দিবসের প্রতিপাদ্য ‘স্মার্ট গ্রন্থাগার, স্মার্ট বাংলাদেশ : মতিয়া চৌধুরী

খুলনায় জেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা পেলেন শেখ হারুনুর রশীদ

প্রকাশের সময় : ১০:১৯:৪৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২২
খুলনাসহ ৬১ জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের নামের তালিকা ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। একই সঙ্গে গাইবান্ধা-৫ আসনের উপ-নির্বাচনের প্রার্থীর নামও ষোষণা করা হয়।
শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবনে গণভবনে মনোনয়ন বোর্ডের সভায় জেলা পরিষদের দলীয় প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত করে নামের তালিকা করা হয়। বিকালে চারটা থেকে শুরু হয়ে মনোনয়ন বোর্ডের সভা চলে রাত পর্যন্ত।
বৈঠকের শুরুতে আ’লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও দলের সংসদীয়, স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা গণভবনে যুক্তরাজ্যের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যুতে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন।
আ’লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মনোনয়ন বোর্ডের সভায় উপস্থিত ছিলেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য আমির হোসেন আমু, শেখ সেলিম, কাজী জাফরুল্লাহ, কর্নেল ফারুক খান, ড. আব্দুল রাজ্জাক, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, মাহবুব উল আলম হানিফ।
গতকাল শনিবার রাতে আ’লীগের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক ব্যারিষ্টার বিপ্লব বড়–য়া স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীদেও তালিকা প্রকাশ করেন।
খুলনা বিভাগে আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা : খুলনায় শেখ হারুনুর রশীদ, বাগেরহাটে শেখ কামরুজ্জামান টুকু, সাতক্ষীরায় মোঃ নজরুল ইসলাম, যশোরে সাইফুজ্জামান পিকুল, নড়াইলে সুবাস চন্দ্র বোস, মেহেরপুর মোঃ আব্দুস সালাম, কুষ্টিয়ায় মোঃ সদরউদ্দিন খান, চুয়াডাঙ্গায় মাহফুজুর রহমান (মনজু), মাগুরায় পঙ্কজ কুমার কুণ্ডু, ঝিনাইদহে কনক কান্তি দাস।
এর আগে গত ৪ সেপ্টেম্বর বেলা ১১টায় ধানমন্ডিতে আ’লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র বিতরণের কার্যক্রম শুরু হয়ে চলে ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। জেলা পরিষদের মনোনয়নের পাশাপাশি গাইবান্ধা-৫ আসনের উপ-নির্বাচনের মনোনয়নপত্রও বিতরণ করা হয়। ৬১টি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদের বিপরীতে আ’লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন পাঁচশ’ জন।
গড়ে প্রতিটি জেলায় আটজনের অধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী ফরম সংগ্রহ করেন। এছাড়া গাইবান্ধা-৫ আসনের মনোনয়ন সংগ্রহ করেন ১০ জন। মনোনয়ন প্রত্যাশীর দৌড়ে ছিলেন সাবেক মন্ত্রী, সাবেক সংসদ সদস্য, জেলা আ’লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, বর্তমান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানসহ জেলা-উপজেলার দলের শীর্ষ নেতা এবং বিভিন্ন অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের প্রবীণ নেতারা। স্থানীয় জনপ্রিয়তা ও এলাকা থেকে আসা বিভিন্ন রিপোর্ট যাচাই-বাছাই করে আ’লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দলীয় প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত করেছেন।
নির্বাচন কমিশনের তফসিল অনুযায়ী ১২ অক্টোবর ইভিএম পদ্ধতিতে গাইবান্ধার উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।