Barta Kontho
নিবন্ধন নম্বর: ৪৬১সোমবার , ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২
  1. 1st Lead
  2. 2nd Lead
  3. অপরাধ
  4. আইটি বিশ্ব
  5. আইন ও আদালত
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আবহাওয়া
  8. ইসলাম
  9. খেলাধুলা
  10. চাকুরি
  11. ছবি ঘর
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. ট্রাভেল
  15. নির্বাচন

পরিদর্শক থেকে এএসপি হলেন দুর্গাপুর থানার মিজানুর রহমান 

শফিকুল আলম সজীব, জেলা প্রতিনিধি নেত্রকোনা 
সেপ্টেম্বর ১২, ২০২২ ১১:১৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নেত্রকোনার জেলার দুর্গাপুর থানার সাবেক পুলিশ পরিদর্শক(নিরস্ত্র)মো. মিজানুর রহমান সহকারী পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি পেয়েছেন। রোববার(১১ সেপ্টেম্বর) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জননিরাপত্তা বিভাগ পুলিশ-১ শাখা উপসচিব ধনঞ্জয় কুমার দাস রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে সাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে পদোন্নতি প্রদান পূর্বক তাঁর চাকরি পুলিশ অধিদপ্তরে ন্যস্ত করার আদেশ প্রদান করা হয়েছে। দুর্গাপুর থানায় ৫ই আগস্ট ২০১৮খ্রি. হতে ১১ আগস্ট ২০২০ খ্রি. পর্যন্ত ২বছর ৬দিন দায়িত্ব পালন করেণ। এর আগে শান্তি রক্ষা মিশন সুদানে ‘পুলিশ এডভাইজর’ হিসেবে ১বছর দায়িত্ব পালন করেণ। পূর্বে আরো দুটি উপজেলায় পুলিশ পরিদর্শক(নিরস্ত্র) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দুর্গাপুর থানায় চাকুরিত অবস্থায় ৮বার নেত্রকোণা জেলার শ্রেষ্ট ও ২বার ময়মনসিংহ বিভাগীয় রেঞ্জের শ্রেষ্ট ওসি’র পুরষ্কারে ভূষিত হয়েছিলেন প্রাক্তন পুলিশ পরিদর্শক(নিরস্ত্র)মো. মিজানুর রহমান ।
তিনি দুর্গাপুর থানার ওসি’র দায়িত্ব নিয়ে, নারী নির্যাতন প্রতিরোধ,বাল্য বিবাহ রোধ, মুজিব বর্ষের অঙ্গিকার,পুলিশ হবে জনতার স্লোগানে ইউনিয়ন ভিত্তিক ক্যাম্পেইন,অদক্ষ ড্রাউভিং বন্ধ,সড়ক পরিবহন নীতিমালা আইন কার্যকর কল্পে রোড় ক্যাম্পেইন পরিচালনা, জাকজমকপূর্ণ ওপেন হাউজ ডে কর্মসূচী গ্রহণ, নিয়মিত টহল বৃদ্ধি করে অপরাধ নির্মূলে সোচ্চার ভূমিকা, জালানী তেল বৃদ্ধি সম্পর্কে জনসাধারণের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি, অবাধে পেট্রোল বিক্রি বন্ধ,ট্রাফিক আইনে মামলা নিয়মিত রুজু করণ, বাল্য বিবাহ ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধ বিষয়ক বিভিন্ন সেমিনার,সিম্পোজিয়াম আয়োজন, মুজিব বর্ষের সফলতা কামনা করে উপজেলার উল্লেখ যোগ্য  জায়গা সমূহে ব্যানার, সাইনবোর্ড স্থাপন, মটর সাইকেল চালকদের বিনামূল্যে হেলমেট বিতরণ,সার্বিক আইন-শৃঙ্খলার অবস্থার উন্নতি সাধন,ঘটনাস্থল সরেজমিনে পরিদর্শন পূর্বক প্রকৃত অপরাধীদের দ্রত সময়ের মধ্যে আইনের আওতায় আনা,মাদক উদ্ধার,চোরাচালান রোধে অত্যন্ত সোচ্চার থাকা,সমাজে শান্তি,শৃঙ্খলা ও নানাবিধ অপরাধ নির্মূলে কাজ করেছেন।
বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ মেধাবী ও পরিক্ষিত ওসি মো. মিজানুর রহমানকে ৭ জানুয়ারি রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স মাঠে পুলিশ সপ্তাহ ২০২০-তে ভালো ও প্রশংসনীয় কাজের স্বীকৃতি স্বরুপ নেত্রকোনা জেলার ৮বার ও রেঞ্জের ২বার শ্রেষ্ট নির্বাচিত ওসি হিসেবে ‘আইজিপি ব্যাজ’ পদক প্রদান করা হয়েছে।
অন্যদিকে, দুর্গাপুর-শ্যামগঞ্জ সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে অবাধে লড়ি-ট্রাক্টর চলাচল বন্ধ,অদক্ষ,অপ্রাপ্ত লাইসেন্স বিহীন চালকদের রোধ করা, ট্রাক চালকদের গতিবিধি নিয়ন্ত্রন,বালুভর্তি ট্রাকের বেপরোয়া আনাগোনা বন্ধ, বালু ভর্তি ট্রাকের উপরে ত্রিপল দিয়ে ঢেকে রাখা সহ নানাদিক পর্যবেক্ষনে দুর্গাপুর থানার পুলিশবাহীনি নিরলসভাবে কাজ করতে বদ্ধপরিকর ছিলাম। শীতের রাতে সড়কে স্বাভাবিক চলাচল নির্ভিগ্নে করতে প্রতিদিন রুটিন ওয়ার্ক করে এ টহল অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। বেপরোয়া চালকদের জন্যে প্রায়সময়ই ঘটছে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনার মতো ঘটনা। কারও বুক থেকে যেন আর একটি সন্তানও না হারায় এজন্য রীতিমতো পুলিশি টহল চিরনি অভিযান চালিয়েছিল।
পৌর সদর সহ বিরিশিরি-শ্যামগঞ্জ রাস্তার দুপাশে অবাধে গড়ে উঠা বালুর স্টক ব্যবসার ফলে প্রতিনিয়িত সড়কে দেখা দিয়েছিল নানা ধরণের ঘটনা আর দূর্ঘটনা। অন্যদিকে রাস্তার দুপাশে সারিবদ্ধভাবে ট্রাক পার্কিং,লরি,ড্রাম্প ট্রাক,বালূ ভর্তি ট্রাকের ফলেও ঘটছে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনার ঘটনা ঘটতো অহরহ। একটি বিকল্প উপায় হিসেবে রাতের আঁধারে রাস্তায় পুলিশি টহল পরিচালনার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। এতে সড়ক দূর্গটনা অনেক হ্রাস পেয়েছিল।
দুর্গাপুর থানার সাবেক ওসি মো. মিজানুর রহমান সহকারী পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতির বিষয়ে এ প্রতিবেধককে জানান, আমি অশেষ কৃতজ্ঞতা জানাই আমার সৃষ্টিকর্তাকে। তিনি সমাজের জন্য কাজ করার সুযোগটুকু তৈরী করে দিয়েছেন। বিশেষ করে নেত্রকোণা জেলার পুলিশ সুপার অভিভাবকতুল্য মো. আকবর আলী মুন্সি’র নিকট আমি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ। তিনি যে দিক নির্দেশনা তখন দিয়েছিলেন, সেই নির্দেশনার বাস্তবায়নের রুপ দেবার চেষ্টা করেছিলাম।তবে দুর্গাপুর উপজেলার স্থানীয় সাংবাদিক,জনপ্রতিনিধি,সুশীল সমাজ,সামাজিক,সাংস্কৃতিক,ব্যক্তি,প্রতিষ্ঠান আমাকে কাজ করতে আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করেছিলেন। আর ওই সুযোগটুকু পেয়েছি বলেই হয়তোবা এ প্রাপ্তির অবস্থানে যেতে পেরেছি বলে আমার ধারণা। তবে কোন ধরণের অপরাধের সাথে আমি কোন আপস করিনি। এই চিন্তাধারা থেকে আমি কাজ করেছি,ভবিষ্যতে এ ধারা অব্যাহত রাখতে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি। দুর্গাপুর আমার অন্তরের একটি জায়গা, সেখানে কাজ করার যথেষ্ট সুযোগ ছিল,বার বার জেলার শ্রেষ্ট ওসি নির্বাচিত হই। সেই প্রেরণা আর মানুষের ভালোবাসাই আজকে আমাকে সহকারী পুলিশ সুপার হতে সর্বাত্বক সহযোগিতা করেছে। আল্লাহতালাহর কাছে শুকরিয়া দুর্গাপুরবাসী আমার অন্তরে রয়েছে এবং চিরদিন থাকবে।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।