Barta Kontho
নিবন্ধন নম্বর: ৪৬১সোমবার , ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২
  1. 1st Lead
  2. 2nd Lead
  3. অপরাধ
  4. আইটি বিশ্ব
  5. আইন ও আদালত
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আবহাওয়া
  8. ইসলাম
  9. খেলাধুলা
  10. চাকুরি
  11. ছবি ঘর
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. ট্রাভেল
  15. নির্বাচন

যৌন হয়রানি: শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ

শহিদ শেখ, মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি
সেপ্টেম্বর ১২, ২০২২ ১১:২৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

শ্রীনগরে ছাত্রীদের যৌন হয়রানির অভিযোগে শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে ক্লাস বর্জন করে বিক্ষোভ করেছে ছাত্র-ছাত্রীরা। রোববার (১১ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় উপজেলার রাঢ়িখাল এলাকায় স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু ইনস্টিটিউশন ও কলেজে বিক্ষুব্ধ ছাত্রীরা এই কর্মসূচি পালন করে।
বিক্ষোভকারী ছাত্রীরা জানায়, স্যার জগদীশচন্দ্র বসু ইন্সটিটিউশন ও কলেজের সহকারী প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেন শ্রেণিকক্ষে ছাত্রীদের শারীরিক গড়ন নিয়ে প্রশ্ন করেন, স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন এবং অশ্লীল কথাসহ যৌন হয়রানিমূলক আচরণ করেন। তার এসব আচরণের কারণে সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রী প্রায় আট মাস ধরে স্কুলে আসা বন্ধ করে দিয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তারা। কিন্তু তার মধ্যে কোনো পরিবর্তন আসেনি। শিক্ষক মোশারফ হোসেনের যৌন হয়রানির বিষয়ে গত ২৫ আগস্ট সপ্তম শ্রেণির বেশ কয়েকজন ছাত্রী প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ ফরহাদ আজিজের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন।
বিক্ষুব্ধ ছাত্রীরা আরো জানান, ‘বিষয়টি নিয়ে অধ্যক্ষের কাছে একাধিক বার অভিযোগ দেয়া হয়েছে। কিন্তু অধ্যক্ষ স্যার আমাদেরকে বলেছেন, ‘এসব আজেবাজে অভিযোগ নিয়ে আমার কাছে আসবা না।’ সহকারী প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেনকে বিদ্যালয় থেকে অপসারণ করা না হলে আমরা ক্লাস করবো না, প্রয়োজনে ছাড়পত্র নিয়ে অন্য স্কুলে চলে যাব।’
বিক্ষুব্ধ ছাত্র-ছাত্রীদেরকে ক্লাসে ফিরিয়ে নিতে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সুরাইয়া আশরাফী স্কুলে উপস্থিত হয়ে শিক্ষকের উপযুক্ত বিচারের আশ্বাস দিলে তারা ক্লাসে ফিরে যায়। এ সময় বিদ্যালয়ের ৫৬ জন শিক্ষার্থী স্বাক্ষর করে লিখিত অভিযোগপত্র উপজেলা শিক্ষা অফিসার সুরাইয়া আশরাফীর কাছে হস্তান্তর করেন।
অভিযুক্ত সহকারী প্রধান শিক্ষক মো: মোশাররফ হোসেন বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা সঠিক নয়। লিখিত আকারে অধ্যক্ষকে বিষয়টি জানিয়েছেন বলেও জানান তিনি।
স্যার জগদীশচন্দ্র বসু ইনস্টিটিউশন ও কলেজের অধ্যক্ষ মো: ফরহাদ আজিজ জানান, ছাত্রীদের কাছ থেকে অভিযোগ পাওয়ার পর ওই শিক্ষকে সিনিয়র সাতজন শিক্ষকের সামনে ডাকা হয়েছিল। ভবিষ্যতে আর এমন হবে না মর্মে তিনি মুচলেকা দিয়েছেন। ম্যানেজিং কমিটির মিটিংয়ে বিষয়টি তোলা হবে। শিক্ষককে ক্লাসে আসতে নিষেধ করা হয়েছে। বিষয়টি সম্পর্কে রোববার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক বরাবর চিঠি দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।
শ্রীনগর উপজেলা শিক্ষা অফিসার সুরাইয়া আশরাফী বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে। কমিটিকে এই বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হয়েছে।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।