মালয়েশিয়ান তরুণী নূর আয়েশা ওই দেশের পেনাং শহরের বাসিন্দা। তিনি স্থানীয় একটি ইউনিভার্সিটিতে পড়াশোনা করছেন পাশাপাশি চাকরি করেন।

এর আগে, বুধবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ওই তরুণী মালয়েশিয়া থেকে তার মা, বড় ভাই ও বড় ভাইয়ের স্ত্রীকে নিয়ে বাংলাদেশে আসেন। ওমর ফারুক চাঁদপুর সদর উপজেলার বড় শাহতলীর চৌধুরী বাড়ির মৃত কামালের ছেলে। তিনি হাজীগঞ্জ পৌরসভাধীন মকিমাবাদ গ্রামে একটি ভাড়া বাসায় থাকেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জীবিকার টানে ওমর ফারুক ৭ বছর আগে মালয়েশিয়ায় যান। সেখানে ফেসবুকে নূর আয়েশার সঙ্গে পরিচয় হয় তার। পরে দু’জনে একে অপরের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। গত ৪ মাস পূর্বে ওমর ফারুক বাংলাদেশে চলে আসেন। এই ৪ মাস প্রিয় মানুষটিকে কাছে না পেয়ে ১৪ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে ছুটে আসেন নূর আয়েশা।

বৃহস্পতিবার রাতে নূর আয়েশা তার মা, বড় ভাই ও বড় ভাইয়ের স্ত্রীর উপস্থিতিতে এবং ওমর ফারুক তার অভিভাবকদের সম্মতিতে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন।বিয়ের আগে ধুমধামে তাদের গায়ে হলুদ দেওয়া হয়।

ওমর ফারুক জানান, সত্যিকারের ভালোবাসা কোনো বাঁধা মানে না। একই কথা বলেন নূর আয়েশা। দেশে- মালয়েশিয়া ফিরে দু’জনই নতুনভাবে ক্যারিয়ার শুরু করবো।

ভিনদেশী বউয়ের সঙ্গে সম্পর্ক কেমন জানতে চাইলে ওমর ফারুকের মা জানান, পুত্রবধূ কিছু কিছু বাংলা শেখার চেষ্টা করছে। পুত্রবধূর সঙ্গে তার মা, বড় ভাই ও ভাইয়ের স্ত্রী বাংলাদেশে এসেছে, তারা খুবই আনন্দিত।