শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিদ্যুতের মূল্য ও মধ্যবিত্তের ভাবনা

গতকাল মঙ্গলবার (২৭ সেটপ্টম্বর) এক চিঠিতে বিদ্যুতের মূল্য বাড়াতে বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। বিপুল পরিমাণ ভুর্তুকি কমাতে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এর ফলে বিদ্যুতের মূল্য বাড়ছে এটা প্রায় নিশ্চিত হয়ে গেল। এদিকে বিপিডিবি বর্তমান দর ইউনিট প্রতি ৫.১৭ টাকা থেকে ৬৬ শতাংশ বাড়িয়ে ৮.৫৮ টাকা করার প্রস্তাব করেছে।

ভুর্তুকির টাকার উৎস কিন্তু জনগণ। এটা নিয়ে আর একদিন লিখবো।

 বিদ্যুতের বিষয় নিয়ে কিছু কথা —

দেশে বর্তমানে বিদ্যুতের উৎপাদন ক্ষমতা ২১৭১২ মেগাওয়াট। দেশে বিদ্যুতের চাহিদা এত নয়। জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধির কারণে বেশকিছু বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ করে রাখা হয়েছে। এখন দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে ১২ হাজার মেগাওয়াটের মত। এই যে বাকি ৯/১০  হাজার মেগাওয়াট উৎপাদনকারী বিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলো অলস বসে রয়েছে এর জন্য সরকারকে প্রতিমাসে ক্যাপাসিটি চার্জ এবং ভাড়া বাবদ বিপুল পরিমাণ টাকা পরিশোধ করতে হচ্ছে। ২০২০-২১ অর্থ বছরে শুধু ভাড়া বাবদ বিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলোকে দেওয়া হয়েছিল প্রায় ১৯ হাজার কোটি টাকা। ২১-২২ অর্থ বছরের মার্চ পর্যন্ত অর্থাৎ ৯ মাসে এই বাবদ দিয়েছে প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা। বাকি ৩ মাসের জন্য আরও প্রায় ৫/৬ হাজার কোটি টাকা দেওয়া লাগবে।

যেসকল বিদ্যুৎ কেন্দ্র টোটালি উৎপাদনে নেই তাদেরকেও বসিয়ে বসিয়ে ভাড়া দেওয়া হচ্ছে। এই বিপুল পরিমাণ টাকা যদি বন্ধ করা যেতো তাহলে ভর্তুকির পরিমাণ কত কমে যেত সেটা সহজেই অনুমেয়। আর এই ভুর্তুকি কমে গেলে বিদ্যুতের মুল্যও বাড়ানোর প্রয়োজন হতো না।

এমনিতেই জিনিসপত্রের মুল্য বৃদ্ধির ফলে গরীব, নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তের নাভিশ্বাস চলছে। এরপর যদি আবারও বিদ্যুতের দাম বাড়ে তবে আর এক দফা সব জিনিসের দাম বাড়বে। দাম বাড়ানোর পূর্বে বিষয়টি সরকারকে আরেকবার ভেবে দেখার অনুরোধ জানাচ্ছি।

লেখক-
আশরাফুজ্জামান বাবু 
সহকারী শিক্ষক,
ঝিকরগাছা দারুল উলুম কামিল মাদ্রাসা।
ঝিকরগাছা, যশোর।

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

যে খবরে ৩ দিনেই ৩ লাখ কোটি রুপি হারাল আদানি গ্রুপ

বিদ্যুতের মূল্য ও মধ্যবিত্তের ভাবনা

প্রকাশের সময় : ০২:৫২:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

গতকাল মঙ্গলবার (২৭ সেটপ্টম্বর) এক চিঠিতে বিদ্যুতের মূল্য বাড়াতে বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। বিপুল পরিমাণ ভুর্তুকি কমাতে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এর ফলে বিদ্যুতের মূল্য বাড়ছে এটা প্রায় নিশ্চিত হয়ে গেল। এদিকে বিপিডিবি বর্তমান দর ইউনিট প্রতি ৫.১৭ টাকা থেকে ৬৬ শতাংশ বাড়িয়ে ৮.৫৮ টাকা করার প্রস্তাব করেছে।

ভুর্তুকির টাকার উৎস কিন্তু জনগণ। এটা নিয়ে আর একদিন লিখবো।

 বিদ্যুতের বিষয় নিয়ে কিছু কথা —

দেশে বর্তমানে বিদ্যুতের উৎপাদন ক্ষমতা ২১৭১২ মেগাওয়াট। দেশে বিদ্যুতের চাহিদা এত নয়। জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধির কারণে বেশকিছু বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ করে রাখা হয়েছে। এখন দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে ১২ হাজার মেগাওয়াটের মত। এই যে বাকি ৯/১০  হাজার মেগাওয়াট উৎপাদনকারী বিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলো অলস বসে রয়েছে এর জন্য সরকারকে প্রতিমাসে ক্যাপাসিটি চার্জ এবং ভাড়া বাবদ বিপুল পরিমাণ টাকা পরিশোধ করতে হচ্ছে। ২০২০-২১ অর্থ বছরে শুধু ভাড়া বাবদ বিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলোকে দেওয়া হয়েছিল প্রায় ১৯ হাজার কোটি টাকা। ২১-২২ অর্থ বছরের মার্চ পর্যন্ত অর্থাৎ ৯ মাসে এই বাবদ দিয়েছে প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা। বাকি ৩ মাসের জন্য আরও প্রায় ৫/৬ হাজার কোটি টাকা দেওয়া লাগবে।

যেসকল বিদ্যুৎ কেন্দ্র টোটালি উৎপাদনে নেই তাদেরকেও বসিয়ে বসিয়ে ভাড়া দেওয়া হচ্ছে। এই বিপুল পরিমাণ টাকা যদি বন্ধ করা যেতো তাহলে ভর্তুকির পরিমাণ কত কমে যেত সেটা সহজেই অনুমেয়। আর এই ভুর্তুকি কমে গেলে বিদ্যুতের মুল্যও বাড়ানোর প্রয়োজন হতো না।

এমনিতেই জিনিসপত্রের মুল্য বৃদ্ধির ফলে গরীব, নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তের নাভিশ্বাস চলছে। এরপর যদি আবারও বিদ্যুতের দাম বাড়ে তবে আর এক দফা সব জিনিসের দাম বাড়বে। দাম বাড়ানোর পূর্বে বিষয়টি সরকারকে আরেকবার ভেবে দেখার অনুরোধ জানাচ্ছি।

লেখক-
আশরাফুজ্জামান বাবু 
সহকারী শিক্ষক,
ঝিকরগাছা দারুল উলুম কামিল মাদ্রাসা।
ঝিকরগাছা, যশোর।