শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অটো চাপায় ইবি শিক্ষার্থী আহত, মহাসড়ক অবরোধ

অটো ভ্যানের নিচে চাপা পড়ে জান্নাতুন নাঈম অন্তু নামে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) এক শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। শনিবার (২৯ অক্টোবর) সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সংলগ্ন কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে। এদিকে এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে মহাসড়ক অবরোধ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।
আহত অন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী বলে জানা গেছে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে, শনিবার বিকেলে প্রধান ফটকের বিপরীত পাশের দোকান থেকে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনে রাস্তা পার হচ্ছিলেন অন্তু। এসময় বিপরীত দিক থেকে আসা ব্যাটারী চালিত অটো ভ্যান তাকে চাপা দেয়। এতে তার সামনের দুটি দাঁত ভেঙে যায় এবং কোমর ও হাঁটুতে গুরুতর আঘাত লাগে। আহত অবস্থায় তাকে ইবি মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুষ্টিয়ার সদর হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।
এদিকে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এসময় তারা ‘আমার বোন আহত কেন? প্রশাসন জাবাব চাই’, ‘অন্তু আপু আহত কেন? প্রশাসন জাবাব চাই’ সহ বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে। আন্দোলনকারীরা নামমাত্র স্পিডবেকারের পরিবর্তে শক্তিশালী স্পিডবেকার ও ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণেরও দাবি জানান। পরে সহকারী প্রক্টর ড. শফিকুল ইসলাম, সহকারী অধ্যাপক শরিফুল ইসলাম জুয়েল, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত ও সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয় উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করেন। প্রায় দেড় ঘন্টা মহাসড়ক অবরোধের পর প্রক্টরিয়াল বডির আশ্বাসে আন্দোলনকারীরা অবরোধ তুলে নেয়।
ইবি মেডিকেলের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. এস এম শাহেদ হাসান বলেন, অটো ভ্যানের ধাক্কায় ভুক্তভোগী ছাত্রী কোমর ও হাঁটুতে গুরুতর আঘাত পেয়েছে এবং তার সামনের দুটি দাঁতও ভেঙে গেছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। আঘাতপ্রাপ্ত স্থানে কোন ফ্রাকচার হয়েছে কিনা পরীক্ষাী জন্য কুষ্টিয়ায় পাঠানো হয়েছে।
এবিষয়ে সহকারী প্রক্টর ড. শফিকুল ইসলাম বলেন, ঘটনা শোনার পর পরই আমরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হই। পরে শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলার পর তারা অবরোধ তুলে নেয়। শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো কর্তৃপক্ষকে আমরা জানিয়েছি। এ বিষয়ে শিক্ষার্থীদের আগামীকাল সকাল সাড়ে ১১ টায় প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ দিতে বলেছি।
এর আগে গত ১৪ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সংলগ্ন কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়কে চলন্ত ট্রাকের ধাক্কায় তাওহীদ নামে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্র আহত হন।
বার্তাকণ্ঠ/এন

অটো চাপায় ইবি শিক্ষার্থী আহত, মহাসড়ক অবরোধ

প্রকাশের সময় : ০৬:৩৪:০০ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ অক্টোবর ২০২২
অটো ভ্যানের নিচে চাপা পড়ে জান্নাতুন নাঈম অন্তু নামে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) এক শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। শনিবার (২৯ অক্টোবর) সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সংলগ্ন কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে। এদিকে এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে মহাসড়ক অবরোধ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।
আহত অন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী বলে জানা গেছে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে, শনিবার বিকেলে প্রধান ফটকের বিপরীত পাশের দোকান থেকে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনে রাস্তা পার হচ্ছিলেন অন্তু। এসময় বিপরীত দিক থেকে আসা ব্যাটারী চালিত অটো ভ্যান তাকে চাপা দেয়। এতে তার সামনের দুটি দাঁত ভেঙে যায় এবং কোমর ও হাঁটুতে গুরুতর আঘাত লাগে। আহত অবস্থায় তাকে ইবি মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুষ্টিয়ার সদর হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।
এদিকে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এসময় তারা ‘আমার বোন আহত কেন? প্রশাসন জাবাব চাই’, ‘অন্তু আপু আহত কেন? প্রশাসন জাবাব চাই’ সহ বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে। আন্দোলনকারীরা নামমাত্র স্পিডবেকারের পরিবর্তে শক্তিশালী স্পিডবেকার ও ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণেরও দাবি জানান। পরে সহকারী প্রক্টর ড. শফিকুল ইসলাম, সহকারী অধ্যাপক শরিফুল ইসলাম জুয়েল, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত ও সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয় উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করেন। প্রায় দেড় ঘন্টা মহাসড়ক অবরোধের পর প্রক্টরিয়াল বডির আশ্বাসে আন্দোলনকারীরা অবরোধ তুলে নেয়।
ইবি মেডিকেলের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. এস এম শাহেদ হাসান বলেন, অটো ভ্যানের ধাক্কায় ভুক্তভোগী ছাত্রী কোমর ও হাঁটুতে গুরুতর আঘাত পেয়েছে এবং তার সামনের দুটি দাঁতও ভেঙে গেছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। আঘাতপ্রাপ্ত স্থানে কোন ফ্রাকচার হয়েছে কিনা পরীক্ষাী জন্য কুষ্টিয়ায় পাঠানো হয়েছে।
এবিষয়ে সহকারী প্রক্টর ড. শফিকুল ইসলাম বলেন, ঘটনা শোনার পর পরই আমরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হই। পরে শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলার পর তারা অবরোধ তুলে নেয়। শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো কর্তৃপক্ষকে আমরা জানিয়েছি। এ বিষয়ে শিক্ষার্থীদের আগামীকাল সকাল সাড়ে ১১ টায় প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ দিতে বলেছি।
এর আগে গত ১৪ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সংলগ্ন কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়কে চলন্ত ট্রাকের ধাক্কায় তাওহীদ নামে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্র আহত হন।
বার্তাকণ্ঠ/এন