শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে পদ্মাপাড়ে ঐতিহ্যবাহি লাঠি খেলা অনুষ্ঠিত

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায় পদ্মা পাড়ে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল গ্রাম বাংলার ঐহিত্যবাহি লাঠি খেলা। হাজার হাজার জনতার ভীড় আর  ঢাক-ঢোল বাজিয়ে শুরু হয় এই লাঠি খেলা। উপস্থিত দর্শকের হাত তালি আর নৃত্যের তালে তালে লাঠিয়ালরা প্রদর্শন করতে থাকেন নানা কসরত। প্রতিপক্ষের লাঠির আঘাত থেকে রক্ষা আর প্রতিপক্ষকে আক্রোমন করতে মেতে উঠেন লাঠিয়ালরা।
 রবিবার (৩০অক্টোবর) বিকেলে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের সাত নম্বর ফেরিঘাটের নিকট এই খেলা অনুষ্ঠিত হয়। এতে অন্তত ৪০ জন লাঠিয়াল অংশগ্রহণ করে প্রদর্শন করেন তাদের কসরত।
আবহমান বাংলার ঐতিহ্যের এই লাঠিখেলা বর্তমানে প্রায় হারিয়ে যাওয়ায় এই খেলা উপভোগ করেন স্থানীয়রাসহ দূর-দুরান্তের হাজারো দর্শক। এতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্জ মোস্তফা মুন্সি, মোহন মন্ডল, দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল প্রমুখ।
উপস্থিত দর্শকরা আনন্দ প্রকাশ করে আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, দীর্ঘদিন পর এ লাঠি খেলা দেখে খুব ভালো লাগছে। লাঠিয়ালরা জানান, এক সময়ে প্রতিটি গ্রামে গ্রামে লাঠি খেলা হতো। এখন আর খেলা হয় না। তাই অন্য পেশার সাথে অনেকটা শখের বসেই পূর্ব পুরুষের কাছ থেকে শেখা এই লাঠি খেলা খেলে থাকেন।
বার্তাকণ্ঠ/এন

রাজবাড়ীতে পদ্মাপাড়ে ঐতিহ্যবাহি লাঠি খেলা অনুষ্ঠিত

প্রকাশের সময় : ০৯:৪৫:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ অক্টোবর ২০২২
রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায় পদ্মা পাড়ে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল গ্রাম বাংলার ঐহিত্যবাহি লাঠি খেলা। হাজার হাজার জনতার ভীড় আর  ঢাক-ঢোল বাজিয়ে শুরু হয় এই লাঠি খেলা। উপস্থিত দর্শকের হাত তালি আর নৃত্যের তালে তালে লাঠিয়ালরা প্রদর্শন করতে থাকেন নানা কসরত। প্রতিপক্ষের লাঠির আঘাত থেকে রক্ষা আর প্রতিপক্ষকে আক্রোমন করতে মেতে উঠেন লাঠিয়ালরা।
 রবিবার (৩০অক্টোবর) বিকেলে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের সাত নম্বর ফেরিঘাটের নিকট এই খেলা অনুষ্ঠিত হয়। এতে অন্তত ৪০ জন লাঠিয়াল অংশগ্রহণ করে প্রদর্শন করেন তাদের কসরত।
আবহমান বাংলার ঐতিহ্যের এই লাঠিখেলা বর্তমানে প্রায় হারিয়ে যাওয়ায় এই খেলা উপভোগ করেন স্থানীয়রাসহ দূর-দুরান্তের হাজারো দর্শক। এতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্জ মোস্তফা মুন্সি, মোহন মন্ডল, দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল প্রমুখ।
উপস্থিত দর্শকরা আনন্দ প্রকাশ করে আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, দীর্ঘদিন পর এ লাঠি খেলা দেখে খুব ভালো লাগছে। লাঠিয়ালরা জানান, এক সময়ে প্রতিটি গ্রামে গ্রামে লাঠি খেলা হতো। এখন আর খেলা হয় না। তাই অন্য পেশার সাথে অনেকটা শখের বসেই পূর্ব পুরুষের কাছ থেকে শেখা এই লাঠি খেলা খেলে থাকেন।
বার্তাকণ্ঠ/এন