শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গুজরাটে ঝুলন্ত সেতু ভেঙে নিহত বেড়ে ১৪০

ছবি-সংগৃহীত

ব্রিটিশ আমলে তৈরি ভারতের গুজরাটের মোরবিতে একটি সেতু সংস্কারের মাত্র পাঁচ দিনের মাথায় ভেঙে পড়েছে। এতে এখন পর্যন্ত ১৪০ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

গতকাল রোববার (৩০ অক্টোবর) সন্ধ্যায় সেতুটি ভেঙে পড়ে।

আনন্দবাজার সূত্রে জানা যায়, সংস্কারের জন্য দীর্ঘ ৭ মাস সেতুটি বন্ধ থাকার পর গত ২৬ অক্টোবর জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয়। কিন্তু খুলে দেওয়ার পাঁচ দিনের মাথায় সেতুটি ভেঙে পড়ে। দুর্ঘটনার সময় অন্তত ৫০০ মানুষ সেতুর উপরে ছিলেন। সেতুর উপরে দাঁড়িয়ে অনেকেই লাফালাফি করতে থাকেন। এরপরেই সেতুটি হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে। এতে বহু মানুষ আহত হয়েছেন। নিখোঁজদের উদ্ধারে কাজ চলছে।

জানা গেছে, সেতুটি জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়ার আগে প্রশাসনের কাছ থেকে সবুজ সংকেত নেওয়া হয়নি। পরীক্ষা করে সেতুর ফিটনেস সার্টিফিকেটও নেওয়া হয়নি। দুর্ঘটনার জন্য এই গাফিলতিকে দয়ী করছেন অনেকেই।

এদিকে এ ঘটনায় মৃত পরিবারকে ৪ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ ঘোষণা দিয়েছেন গুজরাট সরকার। তবে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষে থেকে ২ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণের ঘোষণা দেওয়া হয়। এ ছাড়া আহতদের ৫০ হাজার টাকা করে সহায়তা দেওয়া হবে।

সূত্র-আনন্দবাজার

গুজরাটে ঝুলন্ত সেতু ভেঙে নিহত বেড়ে ১৪০

প্রকাশের সময় : ১১:১৭:১১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৩১ অক্টোবর ২০২২

ব্রিটিশ আমলে তৈরি ভারতের গুজরাটের মোরবিতে একটি সেতু সংস্কারের মাত্র পাঁচ দিনের মাথায় ভেঙে পড়েছে। এতে এখন পর্যন্ত ১৪০ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

গতকাল রোববার (৩০ অক্টোবর) সন্ধ্যায় সেতুটি ভেঙে পড়ে।

আনন্দবাজার সূত্রে জানা যায়, সংস্কারের জন্য দীর্ঘ ৭ মাস সেতুটি বন্ধ থাকার পর গত ২৬ অক্টোবর জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয়। কিন্তু খুলে দেওয়ার পাঁচ দিনের মাথায় সেতুটি ভেঙে পড়ে। দুর্ঘটনার সময় অন্তত ৫০০ মানুষ সেতুর উপরে ছিলেন। সেতুর উপরে দাঁড়িয়ে অনেকেই লাফালাফি করতে থাকেন। এরপরেই সেতুটি হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে। এতে বহু মানুষ আহত হয়েছেন। নিখোঁজদের উদ্ধারে কাজ চলছে।

জানা গেছে, সেতুটি জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়ার আগে প্রশাসনের কাছ থেকে সবুজ সংকেত নেওয়া হয়নি। পরীক্ষা করে সেতুর ফিটনেস সার্টিফিকেটও নেওয়া হয়নি। দুর্ঘটনার জন্য এই গাফিলতিকে দয়ী করছেন অনেকেই।

এদিকে এ ঘটনায় মৃত পরিবারকে ৪ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ ঘোষণা দিয়েছেন গুজরাট সরকার। তবে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষে থেকে ২ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণের ঘোষণা দেওয়া হয়। এ ছাড়া আহতদের ৫০ হাজার টাকা করে সহায়তা দেওয়া হবে।

সূত্র-আনন্দবাজার