সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সফল নায়িকা,কেন শাড়ি বিক্রি করেন নায়িকা রচনা?

তিনি বাংলা সিনেমা জগতের অন্যতম নামী নায়িকা। অমিতাভ বচ্চনের (Amitabh Bachchan) সঙ্গেও কাজ করেছেন রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় (Rachana Banerjee)। কয়েক বছর বড় পর্দা থেকে তিনি বিরতি নিয়েছিলেন বটে। কিন্তু, পরে অবশ্য তিনি কামব্যাক করেছেন ‘দিদি নম্বর 1’ (Didi No 1) শোয়ের মাধ্যমে। কিন্তু, তাঁর একটি সিদ্ধান্ত রীতিমতো চমকে দিয়েছিল সকলকে। ২০২১ সালে তিনি শুরু করেছিলেন শাড়ির ব্যবসা। সোশাল মিডিয়ায় তা জানাজানি হতেই রীতিমতো চোখ কপালে তোলেন অনেকেই। রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো সেলেবকে কেন শাড়ি বিক্রি করতে হচ্ছে? এই প্রশ্ন তোলেন অনেকেই। এর জবাব দিয়েছিলেন নায়িকা নিজেই।

নিয়ে যখন সমালোচকরা চোখ কপালে তুলেছেন সেই সময় মুখ খুলেছিলেন নায়িকা নিজেই। তিনি জানান, “আমি ট্রোল নিয়ে ভাবি না। কারণ কেউ আমাকে পয়সা দিয়ে সাহায্য করে না। প্রথম কাজে আমি ৪০০ টাকা পেয়েছিলাম। নিজের পরিশ্রমে আমি আজ যে জায়গায় রয়েছি তা অর্জন করেছি। সারাজীবন ইন্ডাস্ট্রিতে থাকতে পারব না। ভবিষ্যতের কথা ভেবে রোজগারের ব্যবস্থা করতে হবে। সেক্ষেত্রে এখন থেকে নয় কেন!”
‘তুমি অন্য কারও সঙ্গে বেঁধো ঘর’, প্রেমিক-প্রেমিকাকে বিয়ে করেননি এই টলি সেলেবরা

টলিপাড়া নায়িকাদের গ্ল্যামারের ছটা ঝড় তুলেছে বহু পুরুষ হৃদয়ে। তবে এই তালিকায় শুধু নায়িকারা নন রয়েছে নায়ক ও পরিচালকরাও। সম্পর্কে জড়ালেও সে সম্পর্কের পরিণত পাইনি তাঁদের। নতুন ভাবে ঘর বেঁধেছেন যারা রইল ছবি।

এমনিতেই নুসরত জাহানকে নিয়ে বির্তকের অন্ত নেই। ২০১৯ সালে ব্যবসায়ী নিখিল জৈনকে বিয়ে করেন তিনি। কিন্তু, বছর ঘুরতে না ঘুরতে বিচ্ছেদ হয় তাঁর ও নিখিলের। বর্তমানে অভিনেতা যশ দাশগুপ্তের সঙ্গে সংসার পেতেছেন নুসরত। তবে এই সবের আগে নুসরতের সঙ্গে টলিপাড়ার পয়লা নম্বর প্রযোজকের সঙ্গে সম্পর্কের খবর চাউর হয় বিভিন্ন মহলে। তবে এই বিষযে প্রকাশ্যে কখনও মুখ খোলেনি অভিনেত্রী বা ওই প্রযোজকের কেউই।

এক সময় টলিপাড়ার অন্যতম চর্চিত জুটি ছিলেন রাজ চক্রবর্তী ও মিমি চক্রবর্তী। এই দু’জন তাঁদের সম্পর্ক নিয়ে বিশেষ রাখ ঢাক রাখেনি কখনই। মিমির সঙ্গে বেশ কয়েকটি হিট ছবিও করেন রাজ যার মধ্যে বোঝেনা সে বোঝেনা অন্যতম। তাঁদের অনুরাগী ভেবেছিলেন পরিণতি পাবে এই সম্পর্ক। তবে সে পর্যন্ত তা হয়নি। শুভশ্রীর সঙ্গে ঘর বেঁধেছেন রাজ। এখন বিয়ের পিঁড়িতে বসেননি মিমি।

টলিপাড়ার সবথেকে জনপ্রিয় জুটি দেব-শুভশ্রী। শোনা যায় রাজ চক্রবর্তী পরিচালিত ছবি পরাণ যায় জ্বলিয়া ছবির সময় থেকে প্রেমে পড়েন তাঁরা। তবে বেশ কয়েক বছর একসঙ্গে থাকার পর দেবের জীবনে অন্য এক সেই সময়কার উঠতি নায়িকার জন্যে ভেঙে যায় দেব-শুভশ্রীর সম্পর্ক। এই মুহূর্তে শুভশ্রী রাজের সঙ্গে হ্যাপিলি ম্যারেড। দেব ডেট করছেন রুক্মিণী মৈত্রকে।

জিৎ ও স্বস্তিকার সম্পর্কের কথা প্রায় সকলের জানা। শোনা যায় একসঙ্গে বিদেশ ভ্রমণেও গিয়েছিলেন তাঁরা। তবে ভেঙে যায় সেসম্পর্কও। এই ব্রেক আপের বেশ কয়েকবছর বাদে মোহনাকে বিয়ে করেন জিৎ। বর্তমানে স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে হ্যাপিলি ম্যারেড তিনিও।

একসময় বাংলা ও ওড়িয়া ইন্ডাস্ট্রিতে একের পর এক হিট দিয়েছেন অভিনেত্রী রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় ও সিদ্ধান্ত মহাপাত্র। এই দুজনের সম্পর্কের খবরে সেই সময় সরগরম ছিল দুই ইন্ডাস্ট্রি। শোনা যায় মাঝে ১ বছর বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তাঁরা। কিন্তু তারপরই নাকি বিচ্ছেদ হয়ে যায় তাঁদের। তারপর ইন্ডাস্ট্রির বাইরে একজন বিয়ে করেন। তবে বর্তমানে ছেলেকে নিয়ে একাই থাকেন অভিনেত্রী।

রাজ চক্রবর্তী ক্যাসেনোভা ইমেজের জন্যে নায়িকাদের মধ্যে বেশ বিখ্যাত এই পরিচালক। প্রেম আমার ছবির পর পায়েল সরকারের সঙ্গেও তাঁর সম্পর্কের গুঞ্জন শোনা যায় টলিপাড়ায়।

একইসঙ্গে রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় সাফ জানিয়েছিলেন, শাড়ি বিক্রি করা ছোট কাজ নয় তা তিনি বিশ্বাস করেন। একইসঙ্গে বহু মহিলা কোনও না কোনও কাজ করতে চান। কিন্তু, শাড়ি বিক্রি করতে হবে বলে পিছিয়ে আসেন। তাঁরাও এই উদ্যোগে উৎসাহিত হবেন বলে মনে করছেন রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়। সকলেই তাঁর থেকে শাড়ি কিনবেন এর কোনও মানে নেই। ফলে অন্যদের আশঙ্কা প্রকাশ করার কোনও কারণ থাকছে না বলেও মন্তব্য প্রকাশ করেছিলেন এই নায়িকা। সকলেই যে তাঁর থেকে শাড়ি কিনবে তা নয়। ফলে আশ্বস্ত করেছেন তিনি।

এদিকে শুধু রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় নয়, শাড়ির ব্যবসা শুরু করেছিলেন সুদীপা চট্টোপাধ্যায়ও। তাঁকেও এই নিয়ে ট্রোল হতে হয়েছিল। যদিও এই দুই তারকা পুরো বিষয়টিকে অত্যন্ত হালকাভাবে নিয়েছিলেন। নিজেদের লক্ষ্য অবিচল থেকেছেন তাঁরা। প্রসঙ্গত, ‘দিদি নং 1’ শোটি বাংলা টেলিভিশন দুনিয়ার অন্যতম জনপ্রিয় শো। তা সঞ্চালনের ভূমিকায় রয়েছেন রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়। শোয়ে বিভিন্ন মহিলাদের নিজের জীবনে এগিয়ে যেতে উৎসাহ দিতে দেখা যায় তাঁকে। দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে তিনি এই শো সঞ্চালনার দায়িত্বে রয়েছেন।

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

ঢাকায় পৌঁছেছেন বেলজিয়ামের রানি

সফল নায়িকা,কেন শাড়ি বিক্রি করেন নায়িকা রচনা?

প্রকাশের সময় : ০৮:২৪:২৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২

তিনি বাংলা সিনেমা জগতের অন্যতম নামী নায়িকা। অমিতাভ বচ্চনের (Amitabh Bachchan) সঙ্গেও কাজ করেছেন রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় (Rachana Banerjee)। কয়েক বছর বড় পর্দা থেকে তিনি বিরতি নিয়েছিলেন বটে। কিন্তু, পরে অবশ্য তিনি কামব্যাক করেছেন ‘দিদি নম্বর 1’ (Didi No 1) শোয়ের মাধ্যমে। কিন্তু, তাঁর একটি সিদ্ধান্ত রীতিমতো চমকে দিয়েছিল সকলকে। ২০২১ সালে তিনি শুরু করেছিলেন শাড়ির ব্যবসা। সোশাল মিডিয়ায় তা জানাজানি হতেই রীতিমতো চোখ কপালে তোলেন অনেকেই। রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো সেলেবকে কেন শাড়ি বিক্রি করতে হচ্ছে? এই প্রশ্ন তোলেন অনেকেই। এর জবাব দিয়েছিলেন নায়িকা নিজেই।

নিয়ে যখন সমালোচকরা চোখ কপালে তুলেছেন সেই সময় মুখ খুলেছিলেন নায়িকা নিজেই। তিনি জানান, “আমি ট্রোল নিয়ে ভাবি না। কারণ কেউ আমাকে পয়সা দিয়ে সাহায্য করে না। প্রথম কাজে আমি ৪০০ টাকা পেয়েছিলাম। নিজের পরিশ্রমে আমি আজ যে জায়গায় রয়েছি তা অর্জন করেছি। সারাজীবন ইন্ডাস্ট্রিতে থাকতে পারব না। ভবিষ্যতের কথা ভেবে রোজগারের ব্যবস্থা করতে হবে। সেক্ষেত্রে এখন থেকে নয় কেন!”
‘তুমি অন্য কারও সঙ্গে বেঁধো ঘর’, প্রেমিক-প্রেমিকাকে বিয়ে করেননি এই টলি সেলেবরা

টলিপাড়া নায়িকাদের গ্ল্যামারের ছটা ঝড় তুলেছে বহু পুরুষ হৃদয়ে। তবে এই তালিকায় শুধু নায়িকারা নন রয়েছে নায়ক ও পরিচালকরাও। সম্পর্কে জড়ালেও সে সম্পর্কের পরিণত পাইনি তাঁদের। নতুন ভাবে ঘর বেঁধেছেন যারা রইল ছবি।

এমনিতেই নুসরত জাহানকে নিয়ে বির্তকের অন্ত নেই। ২০১৯ সালে ব্যবসায়ী নিখিল জৈনকে বিয়ে করেন তিনি। কিন্তু, বছর ঘুরতে না ঘুরতে বিচ্ছেদ হয় তাঁর ও নিখিলের। বর্তমানে অভিনেতা যশ দাশগুপ্তের সঙ্গে সংসার পেতেছেন নুসরত। তবে এই সবের আগে নুসরতের সঙ্গে টলিপাড়ার পয়লা নম্বর প্রযোজকের সঙ্গে সম্পর্কের খবর চাউর হয় বিভিন্ন মহলে। তবে এই বিষযে প্রকাশ্যে কখনও মুখ খোলেনি অভিনেত্রী বা ওই প্রযোজকের কেউই।

এক সময় টলিপাড়ার অন্যতম চর্চিত জুটি ছিলেন রাজ চক্রবর্তী ও মিমি চক্রবর্তী। এই দু’জন তাঁদের সম্পর্ক নিয়ে বিশেষ রাখ ঢাক রাখেনি কখনই। মিমির সঙ্গে বেশ কয়েকটি হিট ছবিও করেন রাজ যার মধ্যে বোঝেনা সে বোঝেনা অন্যতম। তাঁদের অনুরাগী ভেবেছিলেন পরিণতি পাবে এই সম্পর্ক। তবে সে পর্যন্ত তা হয়নি। শুভশ্রীর সঙ্গে ঘর বেঁধেছেন রাজ। এখন বিয়ের পিঁড়িতে বসেননি মিমি।

টলিপাড়ার সবথেকে জনপ্রিয় জুটি দেব-শুভশ্রী। শোনা যায় রাজ চক্রবর্তী পরিচালিত ছবি পরাণ যায় জ্বলিয়া ছবির সময় থেকে প্রেমে পড়েন তাঁরা। তবে বেশ কয়েক বছর একসঙ্গে থাকার পর দেবের জীবনে অন্য এক সেই সময়কার উঠতি নায়িকার জন্যে ভেঙে যায় দেব-শুভশ্রীর সম্পর্ক। এই মুহূর্তে শুভশ্রী রাজের সঙ্গে হ্যাপিলি ম্যারেড। দেব ডেট করছেন রুক্মিণী মৈত্রকে।

জিৎ ও স্বস্তিকার সম্পর্কের কথা প্রায় সকলের জানা। শোনা যায় একসঙ্গে বিদেশ ভ্রমণেও গিয়েছিলেন তাঁরা। তবে ভেঙে যায় সেসম্পর্কও। এই ব্রেক আপের বেশ কয়েকবছর বাদে মোহনাকে বিয়ে করেন জিৎ। বর্তমানে স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে হ্যাপিলি ম্যারেড তিনিও।

একসময় বাংলা ও ওড়িয়া ইন্ডাস্ট্রিতে একের পর এক হিট দিয়েছেন অভিনেত্রী রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় ও সিদ্ধান্ত মহাপাত্র। এই দুজনের সম্পর্কের খবরে সেই সময় সরগরম ছিল দুই ইন্ডাস্ট্রি। শোনা যায় মাঝে ১ বছর বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তাঁরা। কিন্তু তারপরই নাকি বিচ্ছেদ হয়ে যায় তাঁদের। তারপর ইন্ডাস্ট্রির বাইরে একজন বিয়ে করেন। তবে বর্তমানে ছেলেকে নিয়ে একাই থাকেন অভিনেত্রী।

রাজ চক্রবর্তী ক্যাসেনোভা ইমেজের জন্যে নায়িকাদের মধ্যে বেশ বিখ্যাত এই পরিচালক। প্রেম আমার ছবির পর পায়েল সরকারের সঙ্গেও তাঁর সম্পর্কের গুঞ্জন শোনা যায় টলিপাড়ায়।

একইসঙ্গে রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় সাফ জানিয়েছিলেন, শাড়ি বিক্রি করা ছোট কাজ নয় তা তিনি বিশ্বাস করেন। একইসঙ্গে বহু মহিলা কোনও না কোনও কাজ করতে চান। কিন্তু, শাড়ি বিক্রি করতে হবে বলে পিছিয়ে আসেন। তাঁরাও এই উদ্যোগে উৎসাহিত হবেন বলে মনে করছেন রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়। সকলেই তাঁর থেকে শাড়ি কিনবেন এর কোনও মানে নেই। ফলে অন্যদের আশঙ্কা প্রকাশ করার কোনও কারণ থাকছে না বলেও মন্তব্য প্রকাশ করেছিলেন এই নায়িকা। সকলেই যে তাঁর থেকে শাড়ি কিনবে তা নয়। ফলে আশ্বস্ত করেছেন তিনি।

এদিকে শুধু রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় নয়, শাড়ির ব্যবসা শুরু করেছিলেন সুদীপা চট্টোপাধ্যায়ও। তাঁকেও এই নিয়ে ট্রোল হতে হয়েছিল। যদিও এই দুই তারকা পুরো বিষয়টিকে অত্যন্ত হালকাভাবে নিয়েছিলেন। নিজেদের লক্ষ্য অবিচল থেকেছেন তাঁরা। প্রসঙ্গত, ‘দিদি নং 1’ শোটি বাংলা টেলিভিশন দুনিয়ার অন্যতম জনপ্রিয় শো। তা সঞ্চালনের ভূমিকায় রয়েছেন রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়। শোয়ে বিভিন্ন মহিলাদের নিজের জীবনে এগিয়ে যেতে উৎসাহ দিতে দেখা যায় তাঁকে। দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে তিনি এই শো সঞ্চালনার দায়িত্বে রয়েছেন।