সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিশুর পুষ্টি নিয়ে চিন্তা! খাদ্য তালিকায় নিয়ে আসুন বাজরা

ছবিঃ সংগৃহীত

শিশুখাদ্য পুষ্টির পরিমাণ কি কমে যাচ্ছে ইদানীং! ফাস্টফুডে অভ্যস্ত শিশুদের মধ্যে দেখা দিচ্ছে ওবেসিটি! এ সব থেকে বাঁচার সুস্বাদু উপায় রয়েছে হাতের কাছেই, ভারতীয় পদেই হতে পারে কামাল। জানাচ্ছেন আইটিসি লিমিটেড (খাদ্য বিভাগ)-এর পুষ্টি বিজ্ঞান প্রধান (Head-Nutrition Sciences), ভাবনা শর্মা।

ক্রমাগত বদলে যাচ্ছে মানুষের খাদ্যাভ্যাস। গত দু’দশকে দ্রুততর হয়েছে ভারতীয় নাগরিক জীবন। আর সেই সঙ্গে তাল মিলিয়ে জনপ্রিয় হয়েছে ফাস্টফুড। খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের হাত ধরে চুপিসাড়ে শরীরে দেখা দিচ্ছে নানা ধরনের সমস্যা। তার মধ্যে অন্যতম মেদ বহুলতা। যা প্রাথমিক ভাবে তেমন কোনও সমস্যার মনে না হলেও পরবর্তীতে ডেকে আনে নানা ধরনের জটিল রোগ।

মুখরোচক, কম সময়ে রান্না করা যায় এমন খাবারের হাতছানিতে আমরা রীতিমতো অবহেলা করে থাকি পুষ্টির দিকটি। যা অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহণ করতে বাধ্য করতে পারে। ফল ওবেসিটি। অথচ, চিরাচরিত ভারতীয় খাদ্যে রয়েছে সমস্ত পুষ্টিগুণ। বাজরা এমনি একটি ঐতিহ্যবাহী প্রধান খাদ্য যা পুষ্টিগুণ সম্পন্ন। দীর্ঘক্ষণ পেট ভরা থাকে। শিশুখাদ্য হিসেবেও বাজরার বিশেষ কদর আছে। বর্তমানে বাজরার প্রতি আগ্রহ আবার বাড়ছে। বাজরা উৎপাদনে ভারত বিশ্বের শীর্ষস্থানীয়। ভারতে নানা ধরনের বাজরা পাওয়া যায়, জোয়ারও উৎপাদন হয়। বাজরা, রাগি, ছোট বাজরা, কোডো বাজরা, ফক্সটেল বাজরা, প্রসো বাজরা এবং বার্নইয়ার্ড বাজরা—নানা ধরনের বাজরা মেলে। এই ক্ষুদ্র শস্যগুলি পুষ্টি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ফাইবারে পরিপূর্ণ।

শিশুদের জন্য বাজরার উপকারিতা—

সন্তানের শারীরিক ও মানসিক বিকাশ নিয়ে প্রায় সব বাবা মা-ই চিন্তিত থাকেন। শিশুর দৈনন্দিন পুষ্টির চাহিদা পূরণ করা খুবই প্রয়োজনীয়। কিন্তু অনেক সময়ই এ নিয়ে সমস্যা হয়। বিশেষত বর্তমান পৃথিবীতে, যেখানে কর্মরত মা শিশুর জন্য অধিক সময় ব্যয় করতে পারেন না।

সে ক্ষেত্রে মূল বিষয় হল এমন খাবার বেছে নেওয়া যা সর্বোত্তম পুষ্টি প্রদান করতে পারে। সেই সঙ্গে সহজে বিভিন্ন রেসিপিতে তৈরি করতে পারে।বাজরা একটি চমৎকার শস্য যা শিশুদের পর্যাপ্ত পুষ্টি প্রদান করতে পারে। এটি গ্লুটেন-মুক্ত, সহজপাচ্য এবং একটি কম অ্যালার্জেনিক শস্য। শুধু তাই নয় খুব কম পরিশ্রমে নানা ধরনের রেসিপি বানিয়ে ফেলা যেতে পারে সহজে। সুস্বাদু মুখরোচক খাবার হিসেবে বাজরা দিয়ে বানিয়ে ফেলা যায় পাফ, কুকি, কাটলেট ইত্যাদি। আবার দিনের প্রধান খাবারের একটি অংশ যেমন খিচুড়ি, ইডলি, রুটি ইত্যাদিও তৈরি করে ফেলা যায়। প্রতিদিনের টিফিনেও বাজরার নানা রেসিপি ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে শিশুর প্রতি দিনের বৃদ্ধি এবং বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয় একাধিক অত্যাবশ্যক পুষ্টি পূরণ করা সম্ভব হতে পারে। তাও কোনও রকম রাসায়নিক ছাড়াই।

উচ্চমাত্রায় পুষ্টি—

শিশুদের জন্য যখন সঠিক খাদ্য পরিকল্পনার কথা বলা হয় তখন তাদের দৈনন্দিন পুষ্টির চাহিদা এবং সঠিক বৃদ্ধির জন্য তাদের খাদ্য তালিকায় সব-গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টির দিকগুলি অন্তর্ভুক্ত করা অপরিহার্য। বাজরা একটি পুষ্টিকর শস্য যা বিভিন্ন ভাবে স্বাস্থ্য রক্ষা করতে পারে। এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, প্রোটিন, আয়রন এবং ক্যালসিয়াম রয়েছে, যা শিশুদের জন্য অপরিহার্য। শিশুদের প্রয়োজনীয় পুষ্টি প্রাপ্তবয়স্কদের থেকে কিছুটা আলাদা তো হয়েই থাকে। তাই তাদের জন্য এমন খাবারের প্রয়োজন যা প্রয়োজনীয় ম্যাক্রো এবং মাইক্রো নিউট্রিয়েন্টের উপকারিতা প্রদান করতে সক্ষম।

বাজরাকে একটি বিস্ময়কর সুপারফুড বলাই যায়। একটি শিশুর দৈনন্দিন সুষম খাদ্যের ক্ষেত্রে চমৎকার সংযোজন হতে পারে। আর সে কথা মাথায় রেখেই ITC-এর আশীর্বাদমাল্টি মিলেট মিক্স তৈরি করা হয়েছে। বাজরা দানার একটি উদ্ভাবনী এবং জটিল মিশ্রণ এটি, যা প্রাকৃতিক ভাবে প্রোটিনের জোগান দিতে পারে। এতে শিশুর পেশির বিকাশ সুদৃঢ় হয়। এতে উপস্থিত জিঙ্ক, স্বাভাবিক বৌদ্ধিক বিকাশে সাহায্য করে, ম্যাগনেসিয়াম ক্লান্তি কমাতে সাহায্য করে। এ ছাড়া রয়েছে ফাইবার, যা হজম শক্তি উন্নত করে।

শুধু তাই নয়, বাজরাতে উপস্থিত ক্যালসিয়াম হাড় মজবুত করে সে তো সকলেই জানে। আর এই হাড়ের গঠনে বা বিকাশে কোনওরকম সমস্যা হওয়া শিশুদের ক্ষেত্রে কাম্য নয়। এ ছাড়া আয়রন হিমোগ্লোবিন গঠনে সহায়তা করে।

অন্ত্রের জন্য ভাল—

বাজরাতে ১৫ থেকে ২০ শতাংশ ফাইবার থাকে যা শিশুদের সামগ্রিক হজমশক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এটি প্রিবায়োটিক ফাইবারের একটি ভাল উৎস যা স্বাস্থ্যকর অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধিতে সহায়তা করে৷ প্রাকৃতিক ভাবে গ্লুটেন-মুক্ত, সহজে হজম করা যায়।

অপুষ্টির বিরুদ্ধে লড়াই, প্রতিদিনের পুষ্টি পূরণ—

অপুষ্টি নিয়ে চিন্তার অনেক কারণ রয়েছে। শিশুদের জন্য বিভিন্ন সুষম খাদ্যের প্রধান প্রধান উপাদান হিসেবে বাজরা অপুষ্টির ক্রমবর্ধমান উদ্বেগকে মোকাবেলা করতে সাহায্য করবে৷

পুষ্টি সমৃদ্ধ এই সুপারফুডে প্রচুর পরিমাণে প্রয়োজনীয় আয়রন, প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, জিঙ্ক রয়েছে। বাচ্চাদের অপুষ্টির সমস্যাও বাজরা দিয়ে মোকাবিলা করা যেতে পারে। কারণ, এর মধ্যে রয়েছে আয়রন, জিঙ্ক, ম্যাগনেসিয়াম, বি ভিটামিন ইত্যাদি। যা, ‘অনাক্রম্যতা’, ‘অ্যানিমিয়া’-এর মতো সমস্যাগুলির বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করবে। শিশুদের বৃদ্ধি এবং বিকাশের গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়ে পুষ্টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই পর্যায়ে কোনও ভাবে পুষ্টির ঘাটতি হলে তা শিশুদের শারীরিক ও সামগ্রিক বিকাশে বাধা তৈরি করতে পারে।

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

ভয়াবহ দাবানলে পুড়ছে চিলি , নিহত -২৪

শিশুর পুষ্টি নিয়ে চিন্তা! খাদ্য তালিকায় নিয়ে আসুন বাজরা

প্রকাশের সময় : ১২:৩৭:৪৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২

শিশুখাদ্য পুষ্টির পরিমাণ কি কমে যাচ্ছে ইদানীং! ফাস্টফুডে অভ্যস্ত শিশুদের মধ্যে দেখা দিচ্ছে ওবেসিটি! এ সব থেকে বাঁচার সুস্বাদু উপায় রয়েছে হাতের কাছেই, ভারতীয় পদেই হতে পারে কামাল। জানাচ্ছেন আইটিসি লিমিটেড (খাদ্য বিভাগ)-এর পুষ্টি বিজ্ঞান প্রধান (Head-Nutrition Sciences), ভাবনা শর্মা।

ক্রমাগত বদলে যাচ্ছে মানুষের খাদ্যাভ্যাস। গত দু’দশকে দ্রুততর হয়েছে ভারতীয় নাগরিক জীবন। আর সেই সঙ্গে তাল মিলিয়ে জনপ্রিয় হয়েছে ফাস্টফুড। খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের হাত ধরে চুপিসাড়ে শরীরে দেখা দিচ্ছে নানা ধরনের সমস্যা। তার মধ্যে অন্যতম মেদ বহুলতা। যা প্রাথমিক ভাবে তেমন কোনও সমস্যার মনে না হলেও পরবর্তীতে ডেকে আনে নানা ধরনের জটিল রোগ।

মুখরোচক, কম সময়ে রান্না করা যায় এমন খাবারের হাতছানিতে আমরা রীতিমতো অবহেলা করে থাকি পুষ্টির দিকটি। যা অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহণ করতে বাধ্য করতে পারে। ফল ওবেসিটি। অথচ, চিরাচরিত ভারতীয় খাদ্যে রয়েছে সমস্ত পুষ্টিগুণ। বাজরা এমনি একটি ঐতিহ্যবাহী প্রধান খাদ্য যা পুষ্টিগুণ সম্পন্ন। দীর্ঘক্ষণ পেট ভরা থাকে। শিশুখাদ্য হিসেবেও বাজরার বিশেষ কদর আছে। বর্তমানে বাজরার প্রতি আগ্রহ আবার বাড়ছে। বাজরা উৎপাদনে ভারত বিশ্বের শীর্ষস্থানীয়। ভারতে নানা ধরনের বাজরা পাওয়া যায়, জোয়ারও উৎপাদন হয়। বাজরা, রাগি, ছোট বাজরা, কোডো বাজরা, ফক্সটেল বাজরা, প্রসো বাজরা এবং বার্নইয়ার্ড বাজরা—নানা ধরনের বাজরা মেলে। এই ক্ষুদ্র শস্যগুলি পুষ্টি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ফাইবারে পরিপূর্ণ।

শিশুদের জন্য বাজরার উপকারিতা—

সন্তানের শারীরিক ও মানসিক বিকাশ নিয়ে প্রায় সব বাবা মা-ই চিন্তিত থাকেন। শিশুর দৈনন্দিন পুষ্টির চাহিদা পূরণ করা খুবই প্রয়োজনীয়। কিন্তু অনেক সময়ই এ নিয়ে সমস্যা হয়। বিশেষত বর্তমান পৃথিবীতে, যেখানে কর্মরত মা শিশুর জন্য অধিক সময় ব্যয় করতে পারেন না।

সে ক্ষেত্রে মূল বিষয় হল এমন খাবার বেছে নেওয়া যা সর্বোত্তম পুষ্টি প্রদান করতে পারে। সেই সঙ্গে সহজে বিভিন্ন রেসিপিতে তৈরি করতে পারে।বাজরা একটি চমৎকার শস্য যা শিশুদের পর্যাপ্ত পুষ্টি প্রদান করতে পারে। এটি গ্লুটেন-মুক্ত, সহজপাচ্য এবং একটি কম অ্যালার্জেনিক শস্য। শুধু তাই নয় খুব কম পরিশ্রমে নানা ধরনের রেসিপি বানিয়ে ফেলা যেতে পারে সহজে। সুস্বাদু মুখরোচক খাবার হিসেবে বাজরা দিয়ে বানিয়ে ফেলা যায় পাফ, কুকি, কাটলেট ইত্যাদি। আবার দিনের প্রধান খাবারের একটি অংশ যেমন খিচুড়ি, ইডলি, রুটি ইত্যাদিও তৈরি করে ফেলা যায়। প্রতিদিনের টিফিনেও বাজরার নানা রেসিপি ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে শিশুর প্রতি দিনের বৃদ্ধি এবং বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয় একাধিক অত্যাবশ্যক পুষ্টি পূরণ করা সম্ভব হতে পারে। তাও কোনও রকম রাসায়নিক ছাড়াই।

উচ্চমাত্রায় পুষ্টি—

শিশুদের জন্য যখন সঠিক খাদ্য পরিকল্পনার কথা বলা হয় তখন তাদের দৈনন্দিন পুষ্টির চাহিদা এবং সঠিক বৃদ্ধির জন্য তাদের খাদ্য তালিকায় সব-গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টির দিকগুলি অন্তর্ভুক্ত করা অপরিহার্য। বাজরা একটি পুষ্টিকর শস্য যা বিভিন্ন ভাবে স্বাস্থ্য রক্ষা করতে পারে। এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, প্রোটিন, আয়রন এবং ক্যালসিয়াম রয়েছে, যা শিশুদের জন্য অপরিহার্য। শিশুদের প্রয়োজনীয় পুষ্টি প্রাপ্তবয়স্কদের থেকে কিছুটা আলাদা তো হয়েই থাকে। তাই তাদের জন্য এমন খাবারের প্রয়োজন যা প্রয়োজনীয় ম্যাক্রো এবং মাইক্রো নিউট্রিয়েন্টের উপকারিতা প্রদান করতে সক্ষম।

বাজরাকে একটি বিস্ময়কর সুপারফুড বলাই যায়। একটি শিশুর দৈনন্দিন সুষম খাদ্যের ক্ষেত্রে চমৎকার সংযোজন হতে পারে। আর সে কথা মাথায় রেখেই ITC-এর আশীর্বাদমাল্টি মিলেট মিক্স তৈরি করা হয়েছে। বাজরা দানার একটি উদ্ভাবনী এবং জটিল মিশ্রণ এটি, যা প্রাকৃতিক ভাবে প্রোটিনের জোগান দিতে পারে। এতে শিশুর পেশির বিকাশ সুদৃঢ় হয়। এতে উপস্থিত জিঙ্ক, স্বাভাবিক বৌদ্ধিক বিকাশে সাহায্য করে, ম্যাগনেসিয়াম ক্লান্তি কমাতে সাহায্য করে। এ ছাড়া রয়েছে ফাইবার, যা হজম শক্তি উন্নত করে।

শুধু তাই নয়, বাজরাতে উপস্থিত ক্যালসিয়াম হাড় মজবুত করে সে তো সকলেই জানে। আর এই হাড়ের গঠনে বা বিকাশে কোনওরকম সমস্যা হওয়া শিশুদের ক্ষেত্রে কাম্য নয়। এ ছাড়া আয়রন হিমোগ্লোবিন গঠনে সহায়তা করে।

অন্ত্রের জন্য ভাল—

বাজরাতে ১৫ থেকে ২০ শতাংশ ফাইবার থাকে যা শিশুদের সামগ্রিক হজমশক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এটি প্রিবায়োটিক ফাইবারের একটি ভাল উৎস যা স্বাস্থ্যকর অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধিতে সহায়তা করে৷ প্রাকৃতিক ভাবে গ্লুটেন-মুক্ত, সহজে হজম করা যায়।

অপুষ্টির বিরুদ্ধে লড়াই, প্রতিদিনের পুষ্টি পূরণ—

অপুষ্টি নিয়ে চিন্তার অনেক কারণ রয়েছে। শিশুদের জন্য বিভিন্ন সুষম খাদ্যের প্রধান প্রধান উপাদান হিসেবে বাজরা অপুষ্টির ক্রমবর্ধমান উদ্বেগকে মোকাবেলা করতে সাহায্য করবে৷

পুষ্টি সমৃদ্ধ এই সুপারফুডে প্রচুর পরিমাণে প্রয়োজনীয় আয়রন, প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, জিঙ্ক রয়েছে। বাচ্চাদের অপুষ্টির সমস্যাও বাজরা দিয়ে মোকাবিলা করা যেতে পারে। কারণ, এর মধ্যে রয়েছে আয়রন, জিঙ্ক, ম্যাগনেসিয়াম, বি ভিটামিন ইত্যাদি। যা, ‘অনাক্রম্যতা’, ‘অ্যানিমিয়া’-এর মতো সমস্যাগুলির বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করবে। শিশুদের বৃদ্ধি এবং বিকাশের গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়ে পুষ্টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই পর্যায়ে কোনও ভাবে পুষ্টির ঘাটতি হলে তা শিশুদের শারীরিক ও সামগ্রিক বিকাশে বাধা তৈরি করতে পারে।