শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দপ্তরি কর্তৃক ৩য় শ্রেণীর  ছাত্রীকে যৌন হয়রানির   অভিযোগ

পাবনা বেড়া উপজেলার নতুন ভারেংগা ইউনিয়নের রাকসা সাফুল্লা ৩নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের  দপ্তরি জুয়েল (৩৫) কর্তৃক ৩য় শ্রেণীর এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির
অঅভিযোগ  উঠেছে। উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই এলাকায় বেশ উত্তপ্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। 
 
ভুক্তভোগী ছাত্রী সাংবাদিকদের জানায়, আমি নিয়মিত স্কুলে যাই। এবার আমি ক্লাস থ্রিতে পড়ি। গত ২৯শে ডিসেম্বর দুপুরে  দপ্তরি জুয়েল আমাকে রুম পরিস্কার করানোর কথা বলে উপর তলার একটি কক্ষে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে গিয়ে  জোরপুর্বক আমার সাথে  খারাপ কাজ করা চেষ্টা করে। একথা আমি যেন কাউকে না বলি সেজন্য সে আমাকে  বিভিন্ন ভয়ভীতিও দেখায়।পরে আমি বাড়ীতে এসে আমার মায়ের কাছে বিষয়টি বলে দেই।
এদিকে ভুক্তভোগী ছাত্রীর বাবা মা বলেন, ঘটনার পর পরই আমরা বিচারের দাবিতে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক এবং সভাপতির কাছে গেলে তারা কোন কর্নপাতই করেন না। আজকাল করে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়া চেষ্টা করেছিল তারা। ঘটনার একসাপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও তাদের কোন পদক্ষেপ না দেখে
পরে আমরা উক্ত ঘটনার পরিপেক্ষিতে বেড়া মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। পুলিশ এসে ঘটনা তদন্ত করেছেন। আমরা এই জঘন্যতম ঘটনার উপযুক্ত বিচার চাই। ভুক্তভোগীর পক্ষ নিয়ে উক্ত ঘটনার বিচার দাবি করায় কিছু মানুষের বিরুদ্ধে চাঁদাাবাজ উল্লেখ করে পুলিশের কাছে মিথ্যা অভিযোগ করেন অভিযুক্ত জুয়েল। পরে পুলিশ তাদের বাড়ীতে গিয়ে খোঁজ করেন। পুলিশের মিথ্যা হয়রানি থেকে পরিতান চেয়েছেন বিচার দাবি করা মানুষগুলো।
এদিকে অভিযুক্ত দপ্তরি জুয়েল বলেন, এটা সম্পুর্ন সাজানো নাটক। এই ঘটনার সাথে আমি কোনভাবেই জরিত না। আমাকে মানহানি করার লক্ষ্যে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে একটি মহল। তাদের উদ্দেশ্যে আমাকে ফাদে ফেলে কিছু টাকা হাতিয়ে নেওয়া। তবে সুষ্ঠ তদন্ত করে যদি আমি প্রকৃত অপরাধী হই তাহলে আমার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ  গ্রহণ করবে প্রসাশন।
এই বিষয়ে জানতে চাইলে নতুন ভারেংগা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু দাউদ সাংবাদিকদের জানান, বিষয়টি আমিও শুনেছি কিন্তু কতোটুকু সত্য তা আমি জানি না। তবে ভুক্তভোগী বা অভিযুক্তদের পক্ষে কেউই আমাকে বিষয়টি জানায় নাই। ভুক্তভোগী পরিবার  নাকি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে প্রসাশন। আমি বলতে চাই আপনার কোন পক্ষই আইন বহির্ভুত কোন কাজ করবেন না। আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকেন।
অভিযোগ তদন্তে আসা বেড়া থানার এ এস আই আনোয়ার মুঠোফোনে জানান, সুষ্ঠু নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে আসল ঘটনাটা উন্মোচন করার চেষ্টা চলছে। আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে  উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।
এদিকে এই ঘটনায় জরিত জুয়েলের উপযুক্ত বিচারের দাবিতে আজ সোমবার সকাল থেকেই  স্কুল মাঠে বিক্ষোভ মিছিল করছেন এলাকার সর্বস্তরের মানুষ এবং অভিবাবকরা। 

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

আশুলিয়ায় হেযবুত তওহীদ কর্মীদের উপর হামলা, নারীসহ আহত ১৩

দপ্তরি কর্তৃক ৩য় শ্রেণীর  ছাত্রীকে যৌন হয়রানির   অভিযোগ

প্রকাশের সময় : ০৪:৪১:৫২ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২২
পাবনা বেড়া উপজেলার নতুন ভারেংগা ইউনিয়নের রাকসা সাফুল্লা ৩নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের  দপ্তরি জুয়েল (৩৫) কর্তৃক ৩য় শ্রেণীর এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির
অঅভিযোগ  উঠেছে। উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই এলাকায় বেশ উত্তপ্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। 
 
ভুক্তভোগী ছাত্রী সাংবাদিকদের জানায়, আমি নিয়মিত স্কুলে যাই। এবার আমি ক্লাস থ্রিতে পড়ি। গত ২৯শে ডিসেম্বর দুপুরে  দপ্তরি জুয়েল আমাকে রুম পরিস্কার করানোর কথা বলে উপর তলার একটি কক্ষে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে গিয়ে  জোরপুর্বক আমার সাথে  খারাপ কাজ করা চেষ্টা করে। একথা আমি যেন কাউকে না বলি সেজন্য সে আমাকে  বিভিন্ন ভয়ভীতিও দেখায়।পরে আমি বাড়ীতে এসে আমার মায়ের কাছে বিষয়টি বলে দেই।
এদিকে ভুক্তভোগী ছাত্রীর বাবা মা বলেন, ঘটনার পর পরই আমরা বিচারের দাবিতে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক এবং সভাপতির কাছে গেলে তারা কোন কর্নপাতই করেন না। আজকাল করে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়া চেষ্টা করেছিল তারা। ঘটনার একসাপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও তাদের কোন পদক্ষেপ না দেখে
পরে আমরা উক্ত ঘটনার পরিপেক্ষিতে বেড়া মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। পুলিশ এসে ঘটনা তদন্ত করেছেন। আমরা এই জঘন্যতম ঘটনার উপযুক্ত বিচার চাই। ভুক্তভোগীর পক্ষ নিয়ে উক্ত ঘটনার বিচার দাবি করায় কিছু মানুষের বিরুদ্ধে চাঁদাাবাজ উল্লেখ করে পুলিশের কাছে মিথ্যা অভিযোগ করেন অভিযুক্ত জুয়েল। পরে পুলিশ তাদের বাড়ীতে গিয়ে খোঁজ করেন। পুলিশের মিথ্যা হয়রানি থেকে পরিতান চেয়েছেন বিচার দাবি করা মানুষগুলো।
এদিকে অভিযুক্ত দপ্তরি জুয়েল বলেন, এটা সম্পুর্ন সাজানো নাটক। এই ঘটনার সাথে আমি কোনভাবেই জরিত না। আমাকে মানহানি করার লক্ষ্যে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে একটি মহল। তাদের উদ্দেশ্যে আমাকে ফাদে ফেলে কিছু টাকা হাতিয়ে নেওয়া। তবে সুষ্ঠ তদন্ত করে যদি আমি প্রকৃত অপরাধী হই তাহলে আমার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ  গ্রহণ করবে প্রসাশন।
এই বিষয়ে জানতে চাইলে নতুন ভারেংগা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু দাউদ সাংবাদিকদের জানান, বিষয়টি আমিও শুনেছি কিন্তু কতোটুকু সত্য তা আমি জানি না। তবে ভুক্তভোগী বা অভিযুক্তদের পক্ষে কেউই আমাকে বিষয়টি জানায় নাই। ভুক্তভোগী পরিবার  নাকি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে প্রসাশন। আমি বলতে চাই আপনার কোন পক্ষই আইন বহির্ভুত কোন কাজ করবেন না। আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকেন।
অভিযোগ তদন্তে আসা বেড়া থানার এ এস আই আনোয়ার মুঠোফোনে জানান, সুষ্ঠু নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে আসল ঘটনাটা উন্মোচন করার চেষ্টা চলছে। আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে  উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।
এদিকে এই ঘটনায় জরিত জুয়েলের উপযুক্ত বিচারের দাবিতে আজ সোমবার সকাল থেকেই  স্কুল মাঠে বিক্ষোভ মিছিল করছেন এলাকার সর্বস্তরের মানুষ এবং অভিবাবকরা।