সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলনার ৩৭ উপজেলায় পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচির অরিয়েন্টেশন

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের বাস্তবায়নাধীন সেকেন্ডারি এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রামের (এসইডিপি) অন্তর্ভুক্ত স্ট্রেংদেনিং রিডিং হ্যাবিট অ্যান্ড রিডিং স্কিলস অ্যামাং সেকেন্ডারি স্টুডেন্টস স্কিমের আওতায় খুলনা বিভাগের ৩৭ উপজেলায় পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিভাগীয় অরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২২ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় খুলনার সিএসএস আভা সেন্টারে বিভাগের ১০টি জেলার জেলা শিক্ষা অফিসার, কর্মসূচিভুক্ত ৩৭টি উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসাররা এ অরিয়েন্টেশন কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন। এ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা খুলনা অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক প্রফেসর শেখ হারুনুর রশীদ এবং উপপরিচালক জনাব এ এস এম আব্দুল খালেক।

খুলনা জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীনের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ও সাবেক সচিব আমিনুল ইসলাম ভুঁইয়া। বিশেষ অতিথি ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মাধ্যমিক উইংয়ের পরিচালক ও স্কিম পরিচালক প্রফেসর মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন। কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য দেন পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচির কো-টিম লিডার শামীম আল মামুন।

স্বাগত বক্তব্যে শামীম আল মামুন কর্মশালা আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানে বিভাগীয় কমিশনার এবং জেলা প্রশাসককে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। উপজেলা পর্যায়ে পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নে তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা কামনা করেন।
বিশেষ অতিথি প্রফেসর মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন বলেন, ‘মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের দক্ষ জনশক্তি হিসেবে গড়ে তোলার জন্য পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি একটি সময়োপযোগী কার্যক্রম।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশকে সঠিকভাবে নেতৃত্ব দিতে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম তৈরিতে পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিভাগীয় কমিশনার মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘২০৪১ সালে বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে তৈরি করতে হলে আলোকিত মানুষ ছাড়া সম্ভব নয়। আলোকিত মানুষের জন্যই আজকের এই পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা রাষ্ট্রীয় দর্শন, মানবিকতা, মূল্যবোধ এবং স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে পারবে।’
 
সভাপতির বক্তব্যে খুলনা জেলার জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন বলেন, ‘২০৪১ সালে আমরা অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি নৈতিকভাবেও এগিয়ে যেতে চাই। সে জন্য পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি শুধু ৩০০ উপজেলায় নয়, সারা দেশের সব উপজেলা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বাস্তবায়ন প্রয়োজন।’

খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনা,চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির দোয়া মাহফিল

খুলনার ৩৭ উপজেলায় পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচির অরিয়েন্টেশন

প্রকাশের সময় : ০৬:০৬:০৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২২

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের বাস্তবায়নাধীন সেকেন্ডারি এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রামের (এসইডিপি) অন্তর্ভুক্ত স্ট্রেংদেনিং রিডিং হ্যাবিট অ্যান্ড রিডিং স্কিলস অ্যামাং সেকেন্ডারি স্টুডেন্টস স্কিমের আওতায় খুলনা বিভাগের ৩৭ উপজেলায় পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিভাগীয় অরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২২ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় খুলনার সিএসএস আভা সেন্টারে বিভাগের ১০টি জেলার জেলা শিক্ষা অফিসার, কর্মসূচিভুক্ত ৩৭টি উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসাররা এ অরিয়েন্টেশন কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন। এ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা খুলনা অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক প্রফেসর শেখ হারুনুর রশীদ এবং উপপরিচালক জনাব এ এস এম আব্দুল খালেক।

খুলনা জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীনের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ও সাবেক সচিব আমিনুল ইসলাম ভুঁইয়া। বিশেষ অতিথি ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মাধ্যমিক উইংয়ের পরিচালক ও স্কিম পরিচালক প্রফেসর মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন। কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য দেন পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচির কো-টিম লিডার শামীম আল মামুন।

স্বাগত বক্তব্যে শামীম আল মামুন কর্মশালা আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানে বিভাগীয় কমিশনার এবং জেলা প্রশাসককে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। উপজেলা পর্যায়ে পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নে তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা কামনা করেন।
বিশেষ অতিথি প্রফেসর মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন বলেন, ‘মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের দক্ষ জনশক্তি হিসেবে গড়ে তোলার জন্য পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি একটি সময়োপযোগী কার্যক্রম।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশকে সঠিকভাবে নেতৃত্ব দিতে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম তৈরিতে পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিভাগীয় কমিশনার মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘২০৪১ সালে বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে তৈরি করতে হলে আলোকিত মানুষ ছাড়া সম্ভব নয়। আলোকিত মানুষের জন্যই আজকের এই পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা রাষ্ট্রীয় দর্শন, মানবিকতা, মূল্যবোধ এবং স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে পারবে।’
 
সভাপতির বক্তব্যে খুলনা জেলার জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন বলেন, ‘২০৪১ সালে আমরা অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি নৈতিকভাবেও এগিয়ে যেতে চাই। সে জন্য পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি শুধু ৩০০ উপজেলায় নয়, সারা দেশের সব উপজেলা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বাস্তবায়ন প্রয়োজন।’