শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা যশোরে ৭.৮

তীব্র শীতে অনুভূত হচ্ছে যশোরে। কনকনে শীত আর কুয়াশার দাপটে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। বিপাকে পড়েছে খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষ।

রোববার (০৮ জানুয়ারি) সকালে যশোরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগামী কয়েক দিন এ তাপমাত্রা অব্যাহত থাকবে বলে আভাস দিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ।

যশোর বিমানবাহিনীর আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্যমতে, গত এক সপ্তাহ ধরে যশোরের তাপমাত্রা নিম্নমুখী। রোববার তাপমাত্রা আরও নেমে এসেছে। সকালে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে যশোরে ৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। কুয়াশাচ্ছন্ন পুরো এলাকা; দৃষ্টিসীমা মাত্র ১০০ মিটার। এতে দিনে গাড়ির হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। সেই সঙ্গে উত্তরের হিমেল হাওয়ার কারণে শীত আরও বাড়ছে। এ অবস্থায় চরম দুর্ভোগে সব শ্রেণির মানুষ।
যশোরে শৈত্যপ্রবাহ বিরাজ করছে এবং আগামী কয়েক দিন এ ধরনের তাপমাত্রা বিরাজ করতে পারে। এ ছাড়া প্রচণ্ড ঠান্ডার কারণে বেড়েছে শীতজনিত জ্বর, সর্দি ও কাশি রোগ।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. মাহাবুবুর রহমান জানান, প্রতিদিনই রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। বিশেষ করে সর্দি, কাশিতে আক্রান্ত শিশুদের নিয়ে অভিভাবকরা হাসপাতালে আসছেন। এ অবস্থায় শিশুদের গরম কাপড়ে রাখা ও গরম খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছি।

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

‘পাঠান’ দিয়ে ৩২ বছর পর কাশ্মীরের সিনেমা হল হাউসফুল

দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা যশোরে ৭.৮

প্রকাশের সময় : ১০:২০:১১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৮ জানুয়ারী ২০২৩

তীব্র শীতে অনুভূত হচ্ছে যশোরে। কনকনে শীত আর কুয়াশার দাপটে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। বিপাকে পড়েছে খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষ।

রোববার (০৮ জানুয়ারি) সকালে যশোরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগামী কয়েক দিন এ তাপমাত্রা অব্যাহত থাকবে বলে আভাস দিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ।

যশোর বিমানবাহিনীর আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্যমতে, গত এক সপ্তাহ ধরে যশোরের তাপমাত্রা নিম্নমুখী। রোববার তাপমাত্রা আরও নেমে এসেছে। সকালে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে যশোরে ৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। কুয়াশাচ্ছন্ন পুরো এলাকা; দৃষ্টিসীমা মাত্র ১০০ মিটার। এতে দিনে গাড়ির হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। সেই সঙ্গে উত্তরের হিমেল হাওয়ার কারণে শীত আরও বাড়ছে। এ অবস্থায় চরম দুর্ভোগে সব শ্রেণির মানুষ।
যশোরে শৈত্যপ্রবাহ বিরাজ করছে এবং আগামী কয়েক দিন এ ধরনের তাপমাত্রা বিরাজ করতে পারে। এ ছাড়া প্রচণ্ড ঠান্ডার কারণে বেড়েছে শীতজনিত জ্বর, সর্দি ও কাশি রোগ।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. মাহাবুবুর রহমান জানান, প্রতিদিনই রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। বিশেষ করে সর্দি, কাশিতে আক্রান্ত শিশুদের নিয়ে অভিভাবকরা হাসপাতালে আসছেন। এ অবস্থায় শিশুদের গরম কাপড়ে রাখা ও গরম খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছি।