শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বুরকিনা ফাসোতে সশস্ত্র হামলায় নিহত ২৮

পশ্চিম আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোয় রবি ও সোমবার সশস্ত্র বাহিনীর হামলায় সেনা ও বেসামরিকসহ ২৮ জন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দেশটির আঞ্চলিক গভর্নর ও সেনাবাহিনীর দুইটি পৃথক বিবৃতি দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা আলজাজিরা।

সেনাবাহিনী জানায়, দেশের উত্তরাঞ্চলে নাইজারের সঙ্গে সীমান্তবর্তী ফালাংউতু এলাকায় একটি সেনা ক্যাম্পে আক্রমণ চালায়, এতে ১০ জন সেনা, স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর দুই সদস্য এবং একজন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। হামলার পর ঘটনাস্থলে ১৫ জন হামলাকারীর মরদেহ পাওয়া গেছে।

সোমবার এ ঘটনায় পৃথক বিবৃতিতে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে আইভরি কোস্টের সীমান্তবর্তী ক্যাসকেডস অঞ্চলের গভর্নর কর্নেল জিন চার্লস ডিট ইয়েনাপোনো সোম বলেন, রোববার হামলার পর ১৫ জনের মরদেহ পাওয়া গেছে। তারা সবাই বেসামরিক নাগরিক।

গভর্নর আরও জানান, সশস্ত্র ব্যক্তিরা দুটি যাত্রীবাহী গাড়ি থামায়, সেগুলোতে আটজন নারী ১৬ জন পুরুষ ছিলেন। নারীদের এবং শুধু একজন পুরুষকে মুক্তি দেয়া হয়, বাকি সবাইকে মেরে ফেলা হয়েছে।

জঙ্গিরা দেশটির অনুর্বর ও প্রধানত গ্রামীণ উত্তরাঞ্চলের বহু অঞ্চল দখল করে নিয়ে শত শত গ্রামবাসীকে হত্যা করেছে। তাদের তাণ্ডবের কারণে ওই অঞ্চলের প্রায় ২০ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন। জঙ্গিরা বহু গ্রাম ও শহর অবরুদ্ধ করে রেখেছে, এতে খাদ্য সংকট ক্রমেই তীব্র আকার ধারণ করছে।

বুরকিনা ফাসোতে সশস্ত্র হামলায় নিহত ২৮

প্রকাশের সময় : ১২:৩৪:০২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩

পশ্চিম আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোয় রবি ও সোমবার সশস্ত্র বাহিনীর হামলায় সেনা ও বেসামরিকসহ ২৮ জন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দেশটির আঞ্চলিক গভর্নর ও সেনাবাহিনীর দুইটি পৃথক বিবৃতি দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা আলজাজিরা।

সেনাবাহিনী জানায়, দেশের উত্তরাঞ্চলে নাইজারের সঙ্গে সীমান্তবর্তী ফালাংউতু এলাকায় একটি সেনা ক্যাম্পে আক্রমণ চালায়, এতে ১০ জন সেনা, স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর দুই সদস্য এবং একজন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। হামলার পর ঘটনাস্থলে ১৫ জন হামলাকারীর মরদেহ পাওয়া গেছে।

সোমবার এ ঘটনায় পৃথক বিবৃতিতে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে আইভরি কোস্টের সীমান্তবর্তী ক্যাসকেডস অঞ্চলের গভর্নর কর্নেল জিন চার্লস ডিট ইয়েনাপোনো সোম বলেন, রোববার হামলার পর ১৫ জনের মরদেহ পাওয়া গেছে। তারা সবাই বেসামরিক নাগরিক।

গভর্নর আরও জানান, সশস্ত্র ব্যক্তিরা দুটি যাত্রীবাহী গাড়ি থামায়, সেগুলোতে আটজন নারী ১৬ জন পুরুষ ছিলেন। নারীদের এবং শুধু একজন পুরুষকে মুক্তি দেয়া হয়, বাকি সবাইকে মেরে ফেলা হয়েছে।

জঙ্গিরা দেশটির অনুর্বর ও প্রধানত গ্রামীণ উত্তরাঞ্চলের বহু অঞ্চল দখল করে নিয়ে শত শত গ্রামবাসীকে হত্যা করেছে। তাদের তাণ্ডবের কারণে ওই অঞ্চলের প্রায় ২০ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন। জঙ্গিরা বহু গ্রাম ও শহর অবরুদ্ধ করে রেখেছে, এতে খাদ্য সংকট ক্রমেই তীব্র আকার ধারণ করছে।