রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঢাকার ব্রিটিশ হাইকমিশনার সারাহ কুক

নবনিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার সারাহ কুক ঢাকায় পৌঁছেছেন। রবিবার (৩০ এপ্রিল) ঢাকার ব্রিটিশ হাইকমিশন এক বার্তায় এ তথ্য জানিয়েছে। বিদায়ী হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটার্টন ডিকসনের স্থলাভিষিক্ত হলেন সারাহ কুক।

ঢাকায় পৌঁছে সারাহ কুক বলেন, বাংলাদেশে ফিরে আসতে পেরে আমি আনন্দিত এবং গভীরভাবে সম্মানিত। বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের শক্তিশালী সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে।

তিনি বলেন, আমি দীর্ঘ এবং বন্ধুত্বপূর্ণ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদার করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। দুই দেশ বাণিজ্য, বিনিয়োগ, উন্নয়ন এবং নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন বিষয়ে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে। আমি আমাদের দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা আরো গভীর করার জন্য উন্মুখ।

এর আগে গত ৮ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাজ্যের ফরেন, কমনওয়েলথ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অফিস এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সারাহ কুককে নিয়োগের কথা জানায়।

সারাহ কুক যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া বিভাগের প্রধান হয়ে দায়িত্ব পালন করেন। তার আগে ২০১৬ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত তানজানিয়ায় ব্রিটিশ হাইকমিশনার ছিলেন।

তবে এবার দায়িত্ব পাওয়ার মধ্য দিয়ে কুক যে প্রথম ঢাকায় এলেন তেমনটি নয়, ২০১২ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের ডিপার্টমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্টের (ডিএফআইডি) বাংলাদেশ কার্যালয়ের প্রধান ছিলেন তিনি।

অর্থনৈতিক পরামর্শক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করা কুক গায়ানা ও সলোমন দ্বীপপুঞ্জের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে উপদেষ্টা হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। তার পড়াশোনা অর্থনীতিতে। পরে তিনি উন্নয়ন অধ্যয়ন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি সম্পন্ন করেন।

ঢাকার ব্রিটিশ হাইকমিশনার সারাহ কুক

প্রকাশের সময় : ১২:২৩:২৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১ মে ২০২৩

নবনিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার সারাহ কুক ঢাকায় পৌঁছেছেন। রবিবার (৩০ এপ্রিল) ঢাকার ব্রিটিশ হাইকমিশন এক বার্তায় এ তথ্য জানিয়েছে। বিদায়ী হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটার্টন ডিকসনের স্থলাভিষিক্ত হলেন সারাহ কুক।

ঢাকায় পৌঁছে সারাহ কুক বলেন, বাংলাদেশে ফিরে আসতে পেরে আমি আনন্দিত এবং গভীরভাবে সম্মানিত। বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের শক্তিশালী সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে।

তিনি বলেন, আমি দীর্ঘ এবং বন্ধুত্বপূর্ণ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদার করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। দুই দেশ বাণিজ্য, বিনিয়োগ, উন্নয়ন এবং নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন বিষয়ে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে। আমি আমাদের দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা আরো গভীর করার জন্য উন্মুখ।

এর আগে গত ৮ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাজ্যের ফরেন, কমনওয়েলথ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অফিস এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সারাহ কুককে নিয়োগের কথা জানায়।

সারাহ কুক যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া বিভাগের প্রধান হয়ে দায়িত্ব পালন করেন। তার আগে ২০১৬ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত তানজানিয়ায় ব্রিটিশ হাইকমিশনার ছিলেন।

তবে এবার দায়িত্ব পাওয়ার মধ্য দিয়ে কুক যে প্রথম ঢাকায় এলেন তেমনটি নয়, ২০১২ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের ডিপার্টমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্টের (ডিএফআইডি) বাংলাদেশ কার্যালয়ের প্রধান ছিলেন তিনি।

অর্থনৈতিক পরামর্শক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করা কুক গায়ানা ও সলোমন দ্বীপপুঞ্জের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে উপদেষ্টা হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। তার পড়াশোনা অর্থনীতিতে। পরে তিনি উন্নয়ন অধ্যয়ন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি সম্পন্ন করেন।