রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দীর্ঘক্ষণ এসিতে থাকলে কী কী সমস্যা হতে পারে

অতিরিক্ত গরম সহ্য করতে না পেরে অনেকেই এসিতে সুখ খোঁজেন। যার ঠাণ্ডা হাওয়া দেহে প্রশান্তি এনে দেয়। দেখা গেছে বছরের বেশিরভাগ সময়ই এসি বা এয়ার কন্ডিশনারে থাকার বদ অভ্যাস হয়ে গেছে মানুষের। অফিস, মার্কেট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ঘরবাড়িসহ সব ধরনের প্রতিষ্ঠানে আরামদায়ক পরিবেশে কাজ করার জন্য এসি ব্যবহার করা হচ্ছে। এক কথায় এসি ছাড়া এখন চলেই না।

তবে আরামদায়ক হলেও দীর্ঘক্ষণ এসিতে থাকার রয়েছে কিছু নেতিবাচক দিক। নিয়ন্ত্রিত তাপমাত্রা আমাদের শরীরেও ভয়ানক প্রভাব ফেলে।  দেখা দেয় কিছু স্বাস্থ্যগত অসুবিধার লক্ষণও। অনেকে বিষয়গুলোর সঙ্গে অবগত নন বলে জানেন না কেন হুটহাট তার শরীর খারাপ করছে। তাই চলুন জেনে নেওয়া যাক দীর্ঘক্ষণ এসি ঘরে থাকলে কী সমস্যা হতে পারে-

ডিহাইড্রেশন : একটি গবেষণায় দেখা গেছে, যে ব্যক্তিরা অনেক দিন থেকে এসি রুমে থাকছে তাদের অনেকেই ডিহাইড্রেশনে ভুগছে। আসলে এসি ঘরের মধ্যে থেকে সব আর্দ্রতা শুষে নেয়। তাই দীর্ঘ সময় ধরে যদি এসি রুমে থাকার অভ্যাস থাকে তাহলে একটু বেশি পানি পান করুন।

মাথা ব্যথা :  এসি ঘরে থাকায় সবচেয়ে বড় ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে মাথায়। দেখা গেছে, দীর্ঘক্ষণ এসি ঘরে থাকার পর মাথা ব্যথা অনেকটাই বেড়ে যায়। এটা হয় কারণ এসি চললে ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ থাকে এবং অক্সিজেনের মাত্রায় কমে যায়। এছাড়াও বেশিক্ষণ এসি ঘরে থাকলে শরীর ডিহাইড্রেট হয়ে যায়। ফলে মাথা ব্যথার প্রবণতা অনেকটাই বেড়ে যায়।

শ্বাসকষ্ট হতে পারে : দীর্ঘক্ষণ এসি ঘরে থাকলে চোখ, নাক, গলায় অসুবিধা হতে পারে। অনেকের শ্বাসকষ্ট হতে পারে। একটি সমীক্ষায় দেখা যায় যারা দীর্ঘক্ষণ এসি ঘরে থেকেছে তাদের অন্যদের তুলায় শ্বাসকষ্ট হওয়ার প্রবণতা অনেকেটাই বেশি।

সহজেই ক্লান্ত লাগা : ঘর বা অফিসের এসি এমনভাবে বানানো হয় যাতে শরীর ঠাণ্ডা হয়। তবে গবেষণার তথ্য মতে, যেসব বড়িতে বা অফিসে এসি চলে তারা সহজেই ক্লান্ত হয়ে পড়ে।

শুষ্ক ত্বকের কারণ এসি : সাধারণত গরমকালে আমরা এসির ব্যবহার বেশি করি। এই সময় সূর্যের তাপও অনেক বেশি থাকে। এর ফলে ত্বক রুক্ষ হয়ে যায়। দেখা দিতে পারে চুলকানির সমস্যাও।

অ্যাজমা ও অ্যালার্জির সমস্যা : দীর্ঘসময় এসি রুমে থাকলে অ্যাজমা আর অ্যালার্জি বেড়ে যেতে পারে। দেখা গেছে, এসিগুলো নিয়মিত পরিষ্কার করা না হলে অ্যাজমা আর অ্যালার্জি হওয়ার প্রবণতা অনেকটা বেড়ে যায়।

চোখ শুষ্ক হয়ে যায় : দীর্ঘসময় এসি ঘরে থাকলে চোখ শুষ্ক হয়ে যায়। এর ফলে চোখ ব্যথা বা চুলকাতে পারে। চোখ জ্বালাও করতে পারে। অনেকের ক্ষেত্রে আবার দেখা গেছে তারা অস্পষ্ট দেখছে।

ইনফেকশাস ডিজিজের সম্ভাবনা : যেহেতু দীর্ঘ সময় এসিতে থাকার ফলে নাকের প্যাসেজ ড্রাই হয়ে যায়। তার ফলে মিউকাস মেমব্রেনে জ্বালা-পোড়া হতে পারে বা মিউকাস শুকিয়ে যেতে পারে। এর ফলে ভাইরাস সহজেই শরীরে প্রবেশ করতে পারে। এক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের সংক্রমিত অসুখের সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়।

সাংবাদিক হামিদুল ইসলামের চিকিৎসায় আর্থিক সহায্য প্রয়োজন

দীর্ঘক্ষণ এসিতে থাকলে কী কী সমস্যা হতে পারে

প্রকাশের সময় : ১১:৪৯:২৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ মে ২০২৩

অতিরিক্ত গরম সহ্য করতে না পেরে অনেকেই এসিতে সুখ খোঁজেন। যার ঠাণ্ডা হাওয়া দেহে প্রশান্তি এনে দেয়। দেখা গেছে বছরের বেশিরভাগ সময়ই এসি বা এয়ার কন্ডিশনারে থাকার বদ অভ্যাস হয়ে গেছে মানুষের। অফিস, মার্কেট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ঘরবাড়িসহ সব ধরনের প্রতিষ্ঠানে আরামদায়ক পরিবেশে কাজ করার জন্য এসি ব্যবহার করা হচ্ছে। এক কথায় এসি ছাড়া এখন চলেই না।

তবে আরামদায়ক হলেও দীর্ঘক্ষণ এসিতে থাকার রয়েছে কিছু নেতিবাচক দিক। নিয়ন্ত্রিত তাপমাত্রা আমাদের শরীরেও ভয়ানক প্রভাব ফেলে।  দেখা দেয় কিছু স্বাস্থ্যগত অসুবিধার লক্ষণও। অনেকে বিষয়গুলোর সঙ্গে অবগত নন বলে জানেন না কেন হুটহাট তার শরীর খারাপ করছে। তাই চলুন জেনে নেওয়া যাক দীর্ঘক্ষণ এসি ঘরে থাকলে কী সমস্যা হতে পারে-

ডিহাইড্রেশন : একটি গবেষণায় দেখা গেছে, যে ব্যক্তিরা অনেক দিন থেকে এসি রুমে থাকছে তাদের অনেকেই ডিহাইড্রেশনে ভুগছে। আসলে এসি ঘরের মধ্যে থেকে সব আর্দ্রতা শুষে নেয়। তাই দীর্ঘ সময় ধরে যদি এসি রুমে থাকার অভ্যাস থাকে তাহলে একটু বেশি পানি পান করুন।

মাথা ব্যথা :  এসি ঘরে থাকায় সবচেয়ে বড় ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে মাথায়। দেখা গেছে, দীর্ঘক্ষণ এসি ঘরে থাকার পর মাথা ব্যথা অনেকটাই বেড়ে যায়। এটা হয় কারণ এসি চললে ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ থাকে এবং অক্সিজেনের মাত্রায় কমে যায়। এছাড়াও বেশিক্ষণ এসি ঘরে থাকলে শরীর ডিহাইড্রেট হয়ে যায়। ফলে মাথা ব্যথার প্রবণতা অনেকটাই বেড়ে যায়।

শ্বাসকষ্ট হতে পারে : দীর্ঘক্ষণ এসি ঘরে থাকলে চোখ, নাক, গলায় অসুবিধা হতে পারে। অনেকের শ্বাসকষ্ট হতে পারে। একটি সমীক্ষায় দেখা যায় যারা দীর্ঘক্ষণ এসি ঘরে থেকেছে তাদের অন্যদের তুলায় শ্বাসকষ্ট হওয়ার প্রবণতা অনেকেটাই বেশি।

সহজেই ক্লান্ত লাগা : ঘর বা অফিসের এসি এমনভাবে বানানো হয় যাতে শরীর ঠাণ্ডা হয়। তবে গবেষণার তথ্য মতে, যেসব বড়িতে বা অফিসে এসি চলে তারা সহজেই ক্লান্ত হয়ে পড়ে।

শুষ্ক ত্বকের কারণ এসি : সাধারণত গরমকালে আমরা এসির ব্যবহার বেশি করি। এই সময় সূর্যের তাপও অনেক বেশি থাকে। এর ফলে ত্বক রুক্ষ হয়ে যায়। দেখা দিতে পারে চুলকানির সমস্যাও।

অ্যাজমা ও অ্যালার্জির সমস্যা : দীর্ঘসময় এসি রুমে থাকলে অ্যাজমা আর অ্যালার্জি বেড়ে যেতে পারে। দেখা গেছে, এসিগুলো নিয়মিত পরিষ্কার করা না হলে অ্যাজমা আর অ্যালার্জি হওয়ার প্রবণতা অনেকটা বেড়ে যায়।

চোখ শুষ্ক হয়ে যায় : দীর্ঘসময় এসি ঘরে থাকলে চোখ শুষ্ক হয়ে যায়। এর ফলে চোখ ব্যথা বা চুলকাতে পারে। চোখ জ্বালাও করতে পারে। অনেকের ক্ষেত্রে আবার দেখা গেছে তারা অস্পষ্ট দেখছে।

ইনফেকশাস ডিজিজের সম্ভাবনা : যেহেতু দীর্ঘ সময় এসিতে থাকার ফলে নাকের প্যাসেজ ড্রাই হয়ে যায়। তার ফলে মিউকাস মেমব্রেনে জ্বালা-পোড়া হতে পারে বা মিউকাস শুকিয়ে যেতে পারে। এর ফলে ভাইরাস সহজেই শরীরে প্রবেশ করতে পারে। এক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের সংক্রমিত অসুখের সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়।