বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কুষ্টিয়ায় ফকির লালন শাহের স্মরণোৎসব শুরু আজ

‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি’ বাউল সম্রাট ফকির লালন শাহ’র এই আধ্যাত্মিক বানীর স্লোগানে ১৩৩তম তিরোধান দিবস উপলক্ষ্যে কুষ্টিয়ার কুমারখালীর ছেঁউড়িয়ার আখড়াবাড়ীতে মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) থেকে শুরু হচ্ছে তিন দিনব্যাপী ঐতিহাসিক লালন স্মরণোৎসব। সন্ধ্যায় অওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এই উৎসবের উদ্বোধন করবেন। এবারো সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয় ও জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় লালন একাডেমি এ লালন স্মরণোৎসবের আয়োজন করেছে। প্রতিদিনই আখড়াবাড়ীর মূলমঞ্চে আলোচনা সভার পাশাপাশি একাডেমির শিল্পীরা লালন ফকিরের আধ্যাত্মিক গান পরিবেশন করবেন। প্রতিবারের মতো এবারো আধ্যাত্বিক গুরু ফকির লালনকে স্মরণ ও তার দর্শন পাওয়াসহ অচেনাকে চেনা, জ্ঞাণ সঞ্চয়, আত্মার শুদ্ধি ও মুক্তির লক্ষে দেশ-বিদেশের হাজারো লালন অনুসারী, ভক্ত অনুরাগী আর দর্শনার্থীরা আখড়াবাড়িতে এসে জড়ো হয়েছেন।

অন্যদিকে, আখড়াবাড়ী চত্বরে কালী নদীর তীরে মাঠে বসেছে বিশাল লালন মেলা।

কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক (ডিসি) এহেতেশাম রেজা বলেন, লালন উৎসবকে নির্বিঘ্ন করতে সিসি ক্যামেরা, ওয়াচ টাওয়ারসহ কয়েকস্তরের নিচ্ছিদ্র নিরাপত্ত্বা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আসন্ন জাতীয় নির্বাচনকে মাথায় রেখেই এবারের লালন উৎসবে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

লালন উৎসবকে ঘিরে আখড়াবাড়ীতে লাখো মানুষের সমাগম ঘটে। সবাই খুব সুন্দরভাবে তিনদিনের এই লালন উৎসব উপভোগ করতে পারবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন জেলা প্রশাসক।

মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) থেকে শুরু হওয়া লালন উৎসব শেষ হবে আগামী ১৯ অক্টোবর রাতে।

উল্লেখ্য, ১২৯৭ বঙ্গাব্দের পহেলা কার্তিক উপমহাদেশের আধ্যাতিক সাধক বাউল সম্রাট ফকির লালন শাহের মৃত্যুর পর থেকে প্রতিবছর এ উৎসব চালিয়ে আসছে তার অনুসারীরা।

মৌলভীবাজারে প্রতিপক্ষের হামলার শিকার শিশু মিনহাজ বাদ পড়েনি 

কুষ্টিয়ায় ফকির লালন শাহের স্মরণোৎসব শুরু আজ

প্রকাশের সময় : ১১:৩৬:৩৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩

‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি’ বাউল সম্রাট ফকির লালন শাহ’র এই আধ্যাত্মিক বানীর স্লোগানে ১৩৩তম তিরোধান দিবস উপলক্ষ্যে কুষ্টিয়ার কুমারখালীর ছেঁউড়িয়ার আখড়াবাড়ীতে মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) থেকে শুরু হচ্ছে তিন দিনব্যাপী ঐতিহাসিক লালন স্মরণোৎসব। সন্ধ্যায় অওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এই উৎসবের উদ্বোধন করবেন। এবারো সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয় ও জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় লালন একাডেমি এ লালন স্মরণোৎসবের আয়োজন করেছে। প্রতিদিনই আখড়াবাড়ীর মূলমঞ্চে আলোচনা সভার পাশাপাশি একাডেমির শিল্পীরা লালন ফকিরের আধ্যাত্মিক গান পরিবেশন করবেন। প্রতিবারের মতো এবারো আধ্যাত্বিক গুরু ফকির লালনকে স্মরণ ও তার দর্শন পাওয়াসহ অচেনাকে চেনা, জ্ঞাণ সঞ্চয়, আত্মার শুদ্ধি ও মুক্তির লক্ষে দেশ-বিদেশের হাজারো লালন অনুসারী, ভক্ত অনুরাগী আর দর্শনার্থীরা আখড়াবাড়িতে এসে জড়ো হয়েছেন।

অন্যদিকে, আখড়াবাড়ী চত্বরে কালী নদীর তীরে মাঠে বসেছে বিশাল লালন মেলা।

কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক (ডিসি) এহেতেশাম রেজা বলেন, লালন উৎসবকে নির্বিঘ্ন করতে সিসি ক্যামেরা, ওয়াচ টাওয়ারসহ কয়েকস্তরের নিচ্ছিদ্র নিরাপত্ত্বা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আসন্ন জাতীয় নির্বাচনকে মাথায় রেখেই এবারের লালন উৎসবে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

লালন উৎসবকে ঘিরে আখড়াবাড়ীতে লাখো মানুষের সমাগম ঘটে। সবাই খুব সুন্দরভাবে তিনদিনের এই লালন উৎসব উপভোগ করতে পারবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন জেলা প্রশাসক।

মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) থেকে শুরু হওয়া লালন উৎসব শেষ হবে আগামী ১৯ অক্টোবর রাতে।

উল্লেখ্য, ১২৯৭ বঙ্গাব্দের পহেলা কার্তিক উপমহাদেশের আধ্যাতিক সাধক বাউল সম্রাট ফকির লালন শাহের মৃত্যুর পর থেকে প্রতিবছর এ উৎসব চালিয়ে আসছে তার অনুসারীরা।