বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যশোর-১ আসনে নৌকার প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিনের প্রাচার প্রচারনায় মানুষের ঢল

যশোর-১ আসনের নৌকার প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিন বলেছেন, স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তিকে ভোট দিয়ে এদেশের মানুষ তাদেরকে আর বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় নিয়ে আসবে না। তারা যখনই রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসে তখনেই তারা  বিশ্ব  দুর্নীতিতে চাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। লুটতরাজ, জুলুমবাজি, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসীসহ সকল অপকর্ম তাদের মধ্যে বিদ্যমান। আর আওয়ামী লীগ যখন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসে তখনই দেশের ব্যাপক উন্নয়ন হয়।

বুধবার দিনব্যাপী শার্শা উপজেলার পুটখালী, বাগআঁচড়া, ডিহি ও লক্ষণপুর ইউনিয়নে নৌকা মার্কার গণসংযোগ ও নির্বাচনী প্রচার ও উঠান বৈঠকে ভায় ভোট চেয়ে একথা বলেন তিনি।

এ সকল নির্বাচনী সভায় তিনি আরও বলেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পরাজয় নিশ্চিত জেনে স্বাধীনতা বিরোধীরা নির্বাচন থেকে সরে গিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হাইব্রিড আওয়ামী লীগের ঘাড়ে ভর করেছে। ওরা চাইছে স্বতন্ত্র প্রার্থী নামের হাইব্রিড আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করতে পারলে খুব দ্রুত তাদের কাছ থেকে এদেশের রাজ সিংহাসন দখল করতে পারবে তারা। ওরা জানেনা আওয়ামী লীগের শিকড় কতো গভীরে। এদেশের মানুষ নৌকায় ভোট দিয়ে সুখের খোঁজ পেয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকারের টানা ১৫ বছরের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায়নে বাংলাদেশের মানুষ শান্তিতে রয়েছে। উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ববাসীর কাছে প্রশংসিত সরকার প্রধান। যেকারণে বাংলাদেশের মানুষ এবারের নির্বাচনে আবারও নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় নিয়ে আসবে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের মার্কা নৌকা। বঙ্গবন্ধুর মার্কা নৌকা, উন্নয়নের মাইল ফলক’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মার্কা নৌকা। যে নৌকা মার্কা তিনি নিজ হাতে স্বাক্ষর করে সারা দেশের ন্যায় শার্শা আসনে পাঠিয়েছেন। এসাথে তিনি শার্শাবাসীকে সালাম জানিয়েছেন। একই সাথে নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নৌকা আমার দেওয়া মার্কা। আমি আমার মনোনীত প্রার্থীকে নৌকা মার্কা দিয়েছি, আপনারা সবাই নৌকা মার্কায় ভোট দেবেন।

এদিনের প্রথম প্রহরে শার্শা আসনের পুটখালী ইউনিয়নের দক্ষিণ বারপোতা গ্রামে নৌকার প্রচারণী উঠান বৈঠক করেন তিনি। পুটখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলতাফ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ উঠান বৈঠকে বক্তব্য প্রদাণ করেন ৯নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মুজিদ, যুবলীগ নেতা আসাদুজ্জামান আসাদ, সাবেক চেয়ারম্যান হাদিউজ্জামান প্রমুখ।

জোহরের সময় বাগআঁচড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে নামাজ আদায় শেষে বাগআঁচড়া ছিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে মায়ের সমতূল্য মরহুমা সাধনা বিবির জানাযায় অংশগ্রহণ করেন এবং সাধনা বিবি সম্পর্কে আলোচনায় চোখের কোণের পানি মুছে বলেন, মাত্র কয়েকদিন পূর্বে তিনি অসুস্থ সাধনা বিবির পাশে গিয়েছিলেন এবং বলেছিলেন মা’গো! আমার মা নেই। তুমি আমার মা। আমি ভোটে দাঁড়িয়েছি। প্রধানমন্ত্রী আমাকে নৌকা মার্কা দিয়েছে। তুমি দোয়া করো। এ সময় সাধনা বিবি আমার মাথায় হাত রেখে দোয়া করে দিয়েছিলেন। যা আমার চোখের সামনে ভেসে আসছে এবং ভূলতে পারছিনা তিনি মারাগেছেন। আমি আমার আরেক মাকে হারালাম বলে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। মরহমার পরিবারের সাথে সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। মরহুমা সাধনা বিবি (৮৩) বাগআঁচড়া   বাজারের বাসিন্দা মরহুম রমজান আলী ডাক্তারের স্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর ডাক্তারের মা। মরহুমা সাধনা বিবি মৃত্যুকালে ৪ ছেলে ও ৭ মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন রেখে গেছেন।

ডবকেলের প্রথম প্রহরে প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিন নৌকার প্রচারণায় গণসংযোগ করেন ডিহি ইউনিয়নে। কেস্টপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে স্থানীয় আওয়ামী লীগের আয়োজনে অনুষ্ঠিত নৌকার নির্বাচনী সভায় উপস্থিত হোন।

কেস্টপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রশিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভার শুরুতে কোরআন তেলোয়াত করেন ইমাম নূর মোহাম্মদ।

পরে, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চান্দু মিয়ার নেতৃত্বে  স্থানীয় নারী-পুরুষ ও শিশুরা শেখ আফিল উদ্দিনকে ফুলেল শুভেচ্ছা, ফুলের মালা ও ফুলের নৌকা উপহার দিয়ে বিজয়ের বাণী শোনান। এ নির্বাচনী সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সালাম পৌঁছে দিয়ে নৌকা ভোট প্রার্থনাসহ বিজয়ের পর অসমাপ্ত উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করে দেয়ার অঙ্গীকার করেন।

এরপর, সুড়োর ঘোপ গ্রামের প্রতিষ্ঠাতা আওয়ামী লীগ নেতা মরহুম আলীম মোড়লের উঠানে বৈঠক করেন তিনি। স্থানীয়ভাবে বক্তব্য প্রদান করেন আওয়ামী লীগ নেতা মিজানুর রহমান, লিপন, প্রভাষক গোলাম মোস্তফা, আমেরিকা প্রবাসী খলিলুর রহমান প্রমুখ।

এখান থেকে তিনি গোড়পাড়া বাজার, নিজামপুর বাজারসহ বিভিন্ন স্থানে খন্ড খন্ড নৌকার নির্বাচনী পথসভায় বক্তব্য প্রদান করেন। দিনব্যাপী প্রচারণার প্রত্যেকস্থানে তিনি উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে ধরে রাখতে নৌকাকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করে সফলতার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আবারও প্রধানমন্ত্রী বানানোর আহবান জানান।

এ সময় সাংসদ শেখ আফিল উদ্দিনের নির্বাচনী সফরসঙ্গী ছিলেন শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, বেনাপোল পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব নাসির উদ্দিন, যশোর জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আসিফ উদ-দৌলা অলোক, দৈনিক স্পন্দন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক মাহাবুব আলম লাবলু, শার্শা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর হোসেন, শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও যশোর জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সালেহ আহমেদ মিন্টু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, কোষাধ্যক্ষ ওয়াহিদুজ্জামান ওহিদ, শার্শা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলেয়া ফেরদৌস, বেনাপোল পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ্ব এনামুল হক মুকুল, বেনাপোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব বজলুর রহমান, শার্শা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কবির উদ্দিন আহমেদ তোতা, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক, শার্শা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বৈদ্যনাথ দাস, যুবলীগের সভাপতি অহিদুজ্জামান অহিদ, সাধারন সম্পাদক সোহরাব হোসেন, যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুর রহিম সরদারসহ উপজেলা আওয়ামী লীগের সকল সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।

 

যশোর-১ আসনে নৌকার প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিনের প্রাচার প্রচারনায় মানুষের ঢল

প্রকাশের সময় : ০৯:২৭:৫৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জানুয়ারী ২০২৪

যশোর-১ আসনের নৌকার প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিন বলেছেন, স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তিকে ভোট দিয়ে এদেশের মানুষ তাদেরকে আর বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় নিয়ে আসবে না। তারা যখনই রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসে তখনেই তারা  বিশ্ব  দুর্নীতিতে চাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। লুটতরাজ, জুলুমবাজি, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসীসহ সকল অপকর্ম তাদের মধ্যে বিদ্যমান। আর আওয়ামী লীগ যখন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসে তখনই দেশের ব্যাপক উন্নয়ন হয়।

বুধবার দিনব্যাপী শার্শা উপজেলার পুটখালী, বাগআঁচড়া, ডিহি ও লক্ষণপুর ইউনিয়নে নৌকা মার্কার গণসংযোগ ও নির্বাচনী প্রচার ও উঠান বৈঠকে ভায় ভোট চেয়ে একথা বলেন তিনি।

এ সকল নির্বাচনী সভায় তিনি আরও বলেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পরাজয় নিশ্চিত জেনে স্বাধীনতা বিরোধীরা নির্বাচন থেকে সরে গিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হাইব্রিড আওয়ামী লীগের ঘাড়ে ভর করেছে। ওরা চাইছে স্বতন্ত্র প্রার্থী নামের হাইব্রিড আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করতে পারলে খুব দ্রুত তাদের কাছ থেকে এদেশের রাজ সিংহাসন দখল করতে পারবে তারা। ওরা জানেনা আওয়ামী লীগের শিকড় কতো গভীরে। এদেশের মানুষ নৌকায় ভোট দিয়ে সুখের খোঁজ পেয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকারের টানা ১৫ বছরের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায়নে বাংলাদেশের মানুষ শান্তিতে রয়েছে। উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ববাসীর কাছে প্রশংসিত সরকার প্রধান। যেকারণে বাংলাদেশের মানুষ এবারের নির্বাচনে আবারও নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় নিয়ে আসবে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের মার্কা নৌকা। বঙ্গবন্ধুর মার্কা নৌকা, উন্নয়নের মাইল ফলক’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মার্কা নৌকা। যে নৌকা মার্কা তিনি নিজ হাতে স্বাক্ষর করে সারা দেশের ন্যায় শার্শা আসনে পাঠিয়েছেন। এসাথে তিনি শার্শাবাসীকে সালাম জানিয়েছেন। একই সাথে নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নৌকা আমার দেওয়া মার্কা। আমি আমার মনোনীত প্রার্থীকে নৌকা মার্কা দিয়েছি, আপনারা সবাই নৌকা মার্কায় ভোট দেবেন।

এদিনের প্রথম প্রহরে শার্শা আসনের পুটখালী ইউনিয়নের দক্ষিণ বারপোতা গ্রামে নৌকার প্রচারণী উঠান বৈঠক করেন তিনি। পুটখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলতাফ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ উঠান বৈঠকে বক্তব্য প্রদাণ করেন ৯নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মুজিদ, যুবলীগ নেতা আসাদুজ্জামান আসাদ, সাবেক চেয়ারম্যান হাদিউজ্জামান প্রমুখ।

জোহরের সময় বাগআঁচড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে নামাজ আদায় শেষে বাগআঁচড়া ছিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে মায়ের সমতূল্য মরহুমা সাধনা বিবির জানাযায় অংশগ্রহণ করেন এবং সাধনা বিবি সম্পর্কে আলোচনায় চোখের কোণের পানি মুছে বলেন, মাত্র কয়েকদিন পূর্বে তিনি অসুস্থ সাধনা বিবির পাশে গিয়েছিলেন এবং বলেছিলেন মা’গো! আমার মা নেই। তুমি আমার মা। আমি ভোটে দাঁড়িয়েছি। প্রধানমন্ত্রী আমাকে নৌকা মার্কা দিয়েছে। তুমি দোয়া করো। এ সময় সাধনা বিবি আমার মাথায় হাত রেখে দোয়া করে দিয়েছিলেন। যা আমার চোখের সামনে ভেসে আসছে এবং ভূলতে পারছিনা তিনি মারাগেছেন। আমি আমার আরেক মাকে হারালাম বলে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। মরহমার পরিবারের সাথে সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। মরহুমা সাধনা বিবি (৮৩) বাগআঁচড়া   বাজারের বাসিন্দা মরহুম রমজান আলী ডাক্তারের স্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর ডাক্তারের মা। মরহুমা সাধনা বিবি মৃত্যুকালে ৪ ছেলে ও ৭ মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন রেখে গেছেন।

ডবকেলের প্রথম প্রহরে প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিন নৌকার প্রচারণায় গণসংযোগ করেন ডিহি ইউনিয়নে। কেস্টপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে স্থানীয় আওয়ামী লীগের আয়োজনে অনুষ্ঠিত নৌকার নির্বাচনী সভায় উপস্থিত হোন।

কেস্টপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রশিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভার শুরুতে কোরআন তেলোয়াত করেন ইমাম নূর মোহাম্মদ।

পরে, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চান্দু মিয়ার নেতৃত্বে  স্থানীয় নারী-পুরুষ ও শিশুরা শেখ আফিল উদ্দিনকে ফুলেল শুভেচ্ছা, ফুলের মালা ও ফুলের নৌকা উপহার দিয়ে বিজয়ের বাণী শোনান। এ নির্বাচনী সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সালাম পৌঁছে দিয়ে নৌকা ভোট প্রার্থনাসহ বিজয়ের পর অসমাপ্ত উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করে দেয়ার অঙ্গীকার করেন।

এরপর, সুড়োর ঘোপ গ্রামের প্রতিষ্ঠাতা আওয়ামী লীগ নেতা মরহুম আলীম মোড়লের উঠানে বৈঠক করেন তিনি। স্থানীয়ভাবে বক্তব্য প্রদান করেন আওয়ামী লীগ নেতা মিজানুর রহমান, লিপন, প্রভাষক গোলাম মোস্তফা, আমেরিকা প্রবাসী খলিলুর রহমান প্রমুখ।

এখান থেকে তিনি গোড়পাড়া বাজার, নিজামপুর বাজারসহ বিভিন্ন স্থানে খন্ড খন্ড নৌকার নির্বাচনী পথসভায় বক্তব্য প্রদান করেন। দিনব্যাপী প্রচারণার প্রত্যেকস্থানে তিনি উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে ধরে রাখতে নৌকাকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করে সফলতার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আবারও প্রধানমন্ত্রী বানানোর আহবান জানান।

এ সময় সাংসদ শেখ আফিল উদ্দিনের নির্বাচনী সফরসঙ্গী ছিলেন শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, বেনাপোল পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব নাসির উদ্দিন, যশোর জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আসিফ উদ-দৌলা অলোক, দৈনিক স্পন্দন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক মাহাবুব আলম লাবলু, শার্শা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর হোসেন, শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও যশোর জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সালেহ আহমেদ মিন্টু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, কোষাধ্যক্ষ ওয়াহিদুজ্জামান ওহিদ, শার্শা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলেয়া ফেরদৌস, বেনাপোল পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ্ব এনামুল হক মুকুল, বেনাপোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব বজলুর রহমান, শার্শা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কবির উদ্দিন আহমেদ তোতা, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক, শার্শা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বৈদ্যনাথ দাস, যুবলীগের সভাপতি অহিদুজ্জামান অহিদ, সাধারন সম্পাদক সোহরাব হোসেন, যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুর রহিম সরদারসহ উপজেলা আওয়ামী লীগের সকল সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।