বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যশোর-১ আসনে নৌকার বিরোধীরা সকলে সমর্থন দিয়ে শেখ আফিল উদ্দিনের মঞ্চে

যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম মিলন বলেন,  যশোর-১ (শার্শা) আসনে যারা যারা ভুল বোঝাবুঝির কারণে অভিমান করে বসেছিলো, সবাই নৌকায় চলে এসেছে। নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা নাজমুল হাসান চলে এসেছে। নৌকার হাল ধরেছে শার্শা উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বাদলসহ অনেক বলিষ্ঠ নেতারা। আওয়ামী লীগের সকল অভিমানীরা শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিনের নৌকার সমর্থন দিয়ে কাজ করছে।
বৃহস্পতিবার বিকেলে বাগআঁচড়া ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও গোড়পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এক নিরবাচনী পথ সভায়  একথা বলেন তিনি।
শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জুর সভাপতিত্বে নির্বাচনী সভায় তিনি আরও বলেন, হাতি ঘোড়া গেলো তল’ ভেড়া বলে কতো জল। জননেত্রী শেখ হাসিনা জানেন, শার্শার জনপ্রিয় কে! তিনি জেনে শুনে শেখ আফিল উদ্দিনকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দিয়েছেন।  আমাদের জননেত্রী শেখ হাসিনা।
তিনি আরও বলেন, ৭ তারিখের ভোটে আওয়ামী লীগের নামে যারা নৌকার বিরোধিতা করছে, ৮ তারিখে তাদের খবর আছে। ৮ তারিখের পর তাদেরকে দল থেকে বের করে দেওয়া হবে। যারা নৌকার বিরোধিতা করে, তারা আওয়ামী লীগের কেউ না। যারা দলের সাথে বেঈমানী করে, জামায়াতের সাথে আতাত করে, তারা আওয়ামী লীগের শত্রু।

৭ জানুয়ারির নির্বাচনে বেলা ১২টার মধ্যে নৌকার বাক্স ভরে যাবে। ভোট কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের সবাই কেন্দ্রে আসবেন। এবার ভোট হবে আনন্দের ভোট, উৎসবের ভোট। নৌকার ভোট। আপনারা দোখিয়ে দেবেন, উৎসব মুখর পরিবেশে ভোটের সমাপ্তি টানবেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য প্রদাণ করেন এ আসনের নৌকার প্রার্থী ও টানা ৩ বারের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন। তিনি ৭ জানুয়ারি সকলের ভোট নৌকায় প্রার্থনা করেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য প্রদানকালে কেন্দ্রীয় যুবলীগের নেতা নাজমুল হাসান বলেন, আমি যশোর-১ (শার্শা) আসন থেকে নৌকা মার্কার মনোনয়ন চেয়েছিলাম। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ আফিল উদ্দিনকে যোগ্য নেতা নির্বাচিত করে তাকে নৌকা দিয়েছেন। তিনি একজন জনপ্রিয় নেতা। এ নির্বাচনে আমরা কাধে কাধ মিলিয়ে নৌকা মার্কার নির্বাচন করছি। যারা এখনও অভিমান করে ঘরে বসে আসেন বা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান করছেন, তারা নৌকায় চলে আসেন।
নৌকা মার্কায় ভোট চেয়ে বক্তব্য প্রদান করেন শার্শা উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা ডাক দিযেছেন, আমরা আর ঘরে বসে থাকতে পারিনি। এ আসন থেকে নৌকার প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিনের হৃদয় অনেক বড়ো। আমরা তার বুকে জায়গা করে নিয়েছি। যারা এখনও পর্যন্ত অন্যত্র ছড়িয়ে রয়েছেন, তাদেরকে তিনি নৌকার প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিনের ছায়াতলে চলে আসুন।
আরও বক্তব্য প্রদান করেন শার্শা উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি শাহারিয়ার বাদল। আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষ ভালো থাকে। তাই, সকলের প্রচেষ্টায় জনতার ভোটে আওয়ামী লীগকে আবারও রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আনতে হবে।
বক্তব্য প্রদান করেন নিজামপুর ইউনিয়ন পরিষদের জনতার মেম্বার সাইদুজ্জামান।
শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, কেন্দ্রীয় মহিলালীগের নেত্রী হাজিরা পারভীন, যশোর জেলা মহিলালীগের শিল্প ও সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক বিলকিছ সুলতানা সাথী, যশোর পৌর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মুন্সি মহিউদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা আবুল খায়ের, জেলা স্বে”ছাসেবকলীগের সভাপতি আসাদুজ্জামান মিঠু, বেনাপোল পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব নাসির উদ্দিন, যশোর জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আসিফ উদ-দৌলা অলোক, দৈনিক স্পন্দন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক মাহাবুব আলম লাবলু, শার্শা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর হোসেন, শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও যশোর জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সালেহ আহমেদ মিন্টু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, কোষাধক্ষ ওয়াহিদুজ্জামান ওহিদ, শার্শা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলেয়া ফেরদৌস, বেনাপোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব বজলুর রহমান, শার্শা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কবির উদ্দিন আহমেদ তোতা, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক, শার্শা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বৈদ্যনাথ দাস, যুবলীগের সভাপতি অহিদুজ্জামান অহিদ, সাধারন সম্পাদক সোহরাব হোসেন, যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুর রহিম সরদার।

যশোর-১ আসনে নৌকার বিরোধীরা সকলে সমর্থন দিয়ে শেখ আফিল উদ্দিনের মঞ্চে

প্রকাশের সময় : ০৯:৫৭:৫২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৫ জানুয়ারী ২০২৪

যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম মিলন বলেন,  যশোর-১ (শার্শা) আসনে যারা যারা ভুল বোঝাবুঝির কারণে অভিমান করে বসেছিলো, সবাই নৌকায় চলে এসেছে। নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা নাজমুল হাসান চলে এসেছে। নৌকার হাল ধরেছে শার্শা উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বাদলসহ অনেক বলিষ্ঠ নেতারা। আওয়ামী লীগের সকল অভিমানীরা শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিনের নৌকার সমর্থন দিয়ে কাজ করছে।
বৃহস্পতিবার বিকেলে বাগআঁচড়া ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও গোড়পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এক নিরবাচনী পথ সভায়  একথা বলেন তিনি।
শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জুর সভাপতিত্বে নির্বাচনী সভায় তিনি আরও বলেন, হাতি ঘোড়া গেলো তল’ ভেড়া বলে কতো জল। জননেত্রী শেখ হাসিনা জানেন, শার্শার জনপ্রিয় কে! তিনি জেনে শুনে শেখ আফিল উদ্দিনকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দিয়েছেন।  আমাদের জননেত্রী শেখ হাসিনা।
তিনি আরও বলেন, ৭ তারিখের ভোটে আওয়ামী লীগের নামে যারা নৌকার বিরোধিতা করছে, ৮ তারিখে তাদের খবর আছে। ৮ তারিখের পর তাদেরকে দল থেকে বের করে দেওয়া হবে। যারা নৌকার বিরোধিতা করে, তারা আওয়ামী লীগের কেউ না। যারা দলের সাথে বেঈমানী করে, জামায়াতের সাথে আতাত করে, তারা আওয়ামী লীগের শত্রু।

৭ জানুয়ারির নির্বাচনে বেলা ১২টার মধ্যে নৌকার বাক্স ভরে যাবে। ভোট কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের সবাই কেন্দ্রে আসবেন। এবার ভোট হবে আনন্দের ভোট, উৎসবের ভোট। নৌকার ভোট। আপনারা দোখিয়ে দেবেন, উৎসব মুখর পরিবেশে ভোটের সমাপ্তি টানবেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য প্রদাণ করেন এ আসনের নৌকার প্রার্থী ও টানা ৩ বারের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন। তিনি ৭ জানুয়ারি সকলের ভোট নৌকায় প্রার্থনা করেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য প্রদানকালে কেন্দ্রীয় যুবলীগের নেতা নাজমুল হাসান বলেন, আমি যশোর-১ (শার্শা) আসন থেকে নৌকা মার্কার মনোনয়ন চেয়েছিলাম। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ আফিল উদ্দিনকে যোগ্য নেতা নির্বাচিত করে তাকে নৌকা দিয়েছেন। তিনি একজন জনপ্রিয় নেতা। এ নির্বাচনে আমরা কাধে কাধ মিলিয়ে নৌকা মার্কার নির্বাচন করছি। যারা এখনও অভিমান করে ঘরে বসে আসেন বা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান করছেন, তারা নৌকায় চলে আসেন।
নৌকা মার্কায় ভোট চেয়ে বক্তব্য প্রদান করেন শার্শা উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা ডাক দিযেছেন, আমরা আর ঘরে বসে থাকতে পারিনি। এ আসন থেকে নৌকার প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিনের হৃদয় অনেক বড়ো। আমরা তার বুকে জায়গা করে নিয়েছি। যারা এখনও পর্যন্ত অন্যত্র ছড়িয়ে রয়েছেন, তাদেরকে তিনি নৌকার প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিনের ছায়াতলে চলে আসুন।
আরও বক্তব্য প্রদান করেন শার্শা উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি শাহারিয়ার বাদল। আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষ ভালো থাকে। তাই, সকলের প্রচেষ্টায় জনতার ভোটে আওয়ামী লীগকে আবারও রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আনতে হবে।
বক্তব্য প্রদান করেন নিজামপুর ইউনিয়ন পরিষদের জনতার মেম্বার সাইদুজ্জামান।
শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, কেন্দ্রীয় মহিলালীগের নেত্রী হাজিরা পারভীন, যশোর জেলা মহিলালীগের শিল্প ও সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক বিলকিছ সুলতানা সাথী, যশোর পৌর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মুন্সি মহিউদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা আবুল খায়ের, জেলা স্বে”ছাসেবকলীগের সভাপতি আসাদুজ্জামান মিঠু, বেনাপোল পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব নাসির উদ্দিন, যশোর জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আসিফ উদ-দৌলা অলোক, দৈনিক স্পন্দন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক মাহাবুব আলম লাবলু, শার্শা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর হোসেন, শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও যশোর জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সালেহ আহমেদ মিন্টু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, কোষাধক্ষ ওয়াহিদুজ্জামান ওহিদ, শার্শা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলেয়া ফেরদৌস, বেনাপোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব বজলুর রহমান, শার্শা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কবির উদ্দিন আহমেদ তোতা, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক, শার্শা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বৈদ্যনাথ দাস, যুবলীগের সভাপতি অহিদুজ্জামান অহিদ, সাধারন সম্পাদক সোহরাব হোসেন, যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুর রহিম সরদার।