বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠায়নি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও কানাডা

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যবেক্ষণে বাংলাদেশে কোনো পর্যবেক্ষক পাঠায়নি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও কানাডা। এসব দেশের কয়েকজন নাগরিক ব্যক্তিগত উদ্যোগে বাংলাদেশে এসেছেন। গতকাল সোমবার ঢাকায় অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য মিশনের মুখপাত্র এবং কানাডা হাইকমিশন এক এক্স (সাবেক টুইটার) বার্তায় এ তথ্য জানিয়েছে।

আমন্ত্রিত পর্যবেক্ষক হিসেবে নানা আন্তর্জাতিক সংস্থা ও দেশের কয়েকজন ভোটের দিন বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে দেখেন। পরে সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলন করেন তারা। এতে অংশ নেন কানাডার পার্লামেন্ট সদস্য চন্দ্রকান্ত আর্য, সিনেটর ভিক্টর ওহ, মার্কিন

কংগ্রেসের সাবেক সদস্য জিম বেটস এবং যুক্তরাষ্ট্রের আরেক পর্যবেক্ষক ও আমেরিকান গ্লোবাল স্ট্র্যাটেজিসের প্রধান নির্বাহী আলেক্সান্ডার গ্রে।

সংবাদ সম্মেলনে চন্দ্রকান্ত আর্য বলেন, যারা ভোট বর্জন করেছে, সেটা তাদের বিষয়। কানাডাতেও ৪৩ শতাংশ ভোট পড়েছিল, সেটা নিয়ে কেউ প্রশ্ন তোলেনি। ভোটার কত শতাংশ এলো, তার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যারা এসেছে তারা ঠিকমতো ভোট দিয়েছে নির্বিঘেœ। তাই এ নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার কারণ নেই।

সংবাদ সম্মেলনের পর এ বিষয়ে জানতে চাইলে মার্কিন দূতাবাসের মুখপাত্র সংবাদমাধ্যমকে জানান, যুক্তরাষ্ট্র এই নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেনি। যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকজন নাগরিক ব্যক্তিগতভাবে বাংলাদেশের নির্বাচন দেখতে এসেছিলেন। তারা নিজেদের কিংবা তাদের সংগঠনের হয়ে কথা বলেছেন। তাদের বক্তব্যের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কোনো সম্পর্ক নেই।

ঢাকায় যুক্তরাজ্য হাইকমিশনের মুখপাত্র সংবাদমাধ্যমকে জানান, যুক্তরাজ্যের কয়েকজন নাগরিক ব্যক্তিগত উদ্যোগে বাংলাদেশে এসেছেন। যুক্তরাজ্য সরকার নির্বাচন পর্যবেক্ষণের জন্য কোনো মিশন বাংলাদেশে পাঠায়নি। অন্য যে নির্বাচনী পর্যবেক্ষণ মিশন বাংলাদেশে এসেছে, তারা স্বাধীন এবং তাদের সঙ্গে যুক্তরাজ্য সরকারের কোনো সম্পর্ক নেই।

কানাডা হাইকমিশনের বার্তায় বলা হয়েছে, নির্বাচন পর্যবেক্ষক হিসেবে কানাডার যে দুই নাগরিকের কথা বিভিন্ন মাধ্যমে বলা হচ্ছে, তারা স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেছেন। তাই নির্বাচনের বিষয়ে তাদের (দুই পর্যবেক্ষক) মতামতের সঙ্গে কানাডা সরকারের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নও (ইইউ) জানিয়েছে, তারা বাংলাদেশের নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেনি। একটি টেকনিক্যাল টিম কাজ করেছে। সুত্র:- আমাদের সময়

বাংলাদেশের নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠায়নি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও কানাডা

প্রকাশের সময় : ০৯:৫২:৪২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জানুয়ারী ২০২৪

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যবেক্ষণে বাংলাদেশে কোনো পর্যবেক্ষক পাঠায়নি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও কানাডা। এসব দেশের কয়েকজন নাগরিক ব্যক্তিগত উদ্যোগে বাংলাদেশে এসেছেন। গতকাল সোমবার ঢাকায় অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য মিশনের মুখপাত্র এবং কানাডা হাইকমিশন এক এক্স (সাবেক টুইটার) বার্তায় এ তথ্য জানিয়েছে।

আমন্ত্রিত পর্যবেক্ষক হিসেবে নানা আন্তর্জাতিক সংস্থা ও দেশের কয়েকজন ভোটের দিন বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে দেখেন। পরে সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলন করেন তারা। এতে অংশ নেন কানাডার পার্লামেন্ট সদস্য চন্দ্রকান্ত আর্য, সিনেটর ভিক্টর ওহ, মার্কিন

কংগ্রেসের সাবেক সদস্য জিম বেটস এবং যুক্তরাষ্ট্রের আরেক পর্যবেক্ষক ও আমেরিকান গ্লোবাল স্ট্র্যাটেজিসের প্রধান নির্বাহী আলেক্সান্ডার গ্রে।

সংবাদ সম্মেলনে চন্দ্রকান্ত আর্য বলেন, যারা ভোট বর্জন করেছে, সেটা তাদের বিষয়। কানাডাতেও ৪৩ শতাংশ ভোট পড়েছিল, সেটা নিয়ে কেউ প্রশ্ন তোলেনি। ভোটার কত শতাংশ এলো, তার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যারা এসেছে তারা ঠিকমতো ভোট দিয়েছে নির্বিঘেœ। তাই এ নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার কারণ নেই।

সংবাদ সম্মেলনের পর এ বিষয়ে জানতে চাইলে মার্কিন দূতাবাসের মুখপাত্র সংবাদমাধ্যমকে জানান, যুক্তরাষ্ট্র এই নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেনি। যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকজন নাগরিক ব্যক্তিগতভাবে বাংলাদেশের নির্বাচন দেখতে এসেছিলেন। তারা নিজেদের কিংবা তাদের সংগঠনের হয়ে কথা বলেছেন। তাদের বক্তব্যের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কোনো সম্পর্ক নেই।

ঢাকায় যুক্তরাজ্য হাইকমিশনের মুখপাত্র সংবাদমাধ্যমকে জানান, যুক্তরাজ্যের কয়েকজন নাগরিক ব্যক্তিগত উদ্যোগে বাংলাদেশে এসেছেন। যুক্তরাজ্য সরকার নির্বাচন পর্যবেক্ষণের জন্য কোনো মিশন বাংলাদেশে পাঠায়নি। অন্য যে নির্বাচনী পর্যবেক্ষণ মিশন বাংলাদেশে এসেছে, তারা স্বাধীন এবং তাদের সঙ্গে যুক্তরাজ্য সরকারের কোনো সম্পর্ক নেই।

কানাডা হাইকমিশনের বার্তায় বলা হয়েছে, নির্বাচন পর্যবেক্ষক হিসেবে কানাডার যে দুই নাগরিকের কথা বিভিন্ন মাধ্যমে বলা হচ্ছে, তারা স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেছেন। তাই নির্বাচনের বিষয়ে তাদের (দুই পর্যবেক্ষক) মতামতের সঙ্গে কানাডা সরকারের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নও (ইইউ) জানিয়েছে, তারা বাংলাদেশের নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেনি। একটি টেকনিক্যাল টিম কাজ করেছে। সুত্র:- আমাদের সময়