বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

‘সিন্ডিকেট ভেঙে দেওয়ার পদ্ধতি খোঁজা হচ্ছে –কৃষিমন্ত্রী

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুস শহীদ বলেছেন, ‘সিন্ডিকেট ভেঙে দেওয়ার পদ্ধতি খোঁজা হচ্ছে। এখন ভয় পাবে মজুতদাররা, যারা মজুতদারি করে তাদের রোধ করতে হবে। মজুতদারি ধর্মেও হারাম।’

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক গণসংবর্ধনায় তিনি এ কথা বলেন।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা জানি দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির পেছনে সবসময় একটি সিন্ডিকেট কাজ করে। এই সিন্ডিকেট ভাঙার জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি আমরা খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি। কৃষি মন্ত্রণালয় একটি অনেক বড় মন্ত্রণালয়। গ্রাম-গঞ্জে একবারে প্রান্তিক পর্যায়ে এই মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা আছেন। তাই কৃষকরা যেকোনো সময় আমাদের কাছে আসতে পারেন। আমাদের দুয়ার কৃষকদের জন্য সবসময় খোলা। ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য যা প্রয়োজন তার সবই করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘দেশের মোট জিডিপির ৮০ শতাংশ কৃষিখাতের ওপর নির্ভরশীল। তাই কৃষকদের স্বার্থ রক্ষায় সরকার সকল ধরনের সাহায্য সহযোগিতা করা হবে। উৎপাদন বাড়ানোর জন্য কৃষকদের ভালো বীজের প্রয়োজন, ভালো সারের প্রয়োজন এবং অনান্য বিভিন্ন উপকরণের প্রয়োজন। কোনো অবস্থাতেই এসব সরবরাহে কার্পণ্য করা হবে না।’

গণসংবর্ধনায় মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগ, শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগসহঅঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

মৌলভীবাজারে প্রতিপক্ষের হামলার শিকার শিশু মিনহাজ বাদ পড়েনি 

‘সিন্ডিকেট ভেঙে দেওয়ার পদ্ধতি খোঁজা হচ্ছে –কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশের সময় : ১০:৩২:১০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২৪

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুস শহীদ বলেছেন, ‘সিন্ডিকেট ভেঙে দেওয়ার পদ্ধতি খোঁজা হচ্ছে। এখন ভয় পাবে মজুতদাররা, যারা মজুতদারি করে তাদের রোধ করতে হবে। মজুতদারি ধর্মেও হারাম।’

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক গণসংবর্ধনায় তিনি এ কথা বলেন।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা জানি দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির পেছনে সবসময় একটি সিন্ডিকেট কাজ করে। এই সিন্ডিকেট ভাঙার জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি আমরা খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি। কৃষি মন্ত্রণালয় একটি অনেক বড় মন্ত্রণালয়। গ্রাম-গঞ্জে একবারে প্রান্তিক পর্যায়ে এই মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা আছেন। তাই কৃষকরা যেকোনো সময় আমাদের কাছে আসতে পারেন। আমাদের দুয়ার কৃষকদের জন্য সবসময় খোলা। ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য যা প্রয়োজন তার সবই করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘দেশের মোট জিডিপির ৮০ শতাংশ কৃষিখাতের ওপর নির্ভরশীল। তাই কৃষকদের স্বার্থ রক্ষায় সরকার সকল ধরনের সাহায্য সহযোগিতা করা হবে। উৎপাদন বাড়ানোর জন্য কৃষকদের ভালো বীজের প্রয়োজন, ভালো সারের প্রয়োজন এবং অনান্য বিভিন্ন উপকরণের প্রয়োজন। কোনো অবস্থাতেই এসব সরবরাহে কার্পণ্য করা হবে না।’

গণসংবর্ধনায় মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগ, শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগসহঅঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।