বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাবেক মন্ত্রীর বিরুদ্ধে স্বাক্ষর জাল করে ম্যানেজিং কমিটি গঠনের অভিযোগ

সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার দৌলতপুর কলেজের ম্যানেজিং কমিটির ১১ সদস্যর স্বাক্ষর জাল করে নতুন কমিটি গঠনের অভিযোগ উঠেছে সাবেক মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে। সাবেক মন্ত্রী নিজেকে সভাপতি হিসেবে নাম ঘোষনা করেছেন। ইতিপূর্বেও তিনি এই কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।’
আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে দৌলতপুর কলেজে সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন সাবেক কমিটির সদস্যরা। সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন, দৌলতপুর কলেজের অধ্যক্ষ মাসুদ রানা, সাবেক সদস্য হাজী পিয়ার হোসেন, সাবেক সদস্য ও দৌলতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলতাফ হোসেন, সাবেক সদস্য শাহিন রেজা, দাতা সদস্য শামসুল আলম মাষ্টার।
সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস দৌলতপুর কলেজে ম্যানেজিং কমিটিতে পর পর দু-বার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। হাইকোর্টের নির্দেশ রয়েছে একই ব্যক্তি পর পর তৃতীয় বার সভাপতির হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না। লতিফ বিশ্বাস আইন না মেনে ম্যানেজিং কমিটির ১১ সদস্যর স্বাক্ষর জাল করে নিজেকে সভাপতি করে ম্যানেজিং কমিটি ঘোষণা করেন। এই কমিটি গঠনের সময় কোন আলোচনা বা নেটিশ করা হয়নি। সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস কলেজের কাগজপত্র নিজ বাড়িতে নিয়ে গিয়ে ম্যানেজিং কমিটির ১১ সদস্যর স্বাক্ষর জাল করে কমিটি গঠন করেছেন যা অবৈধ। আমরা এই কমিটি বাতিল ও নতুন কমিটি গঠনের দাবী করছি।’
বক্তরা আরও বলেন, লতিফ বিশ্বাস আইন মানেন না আবার দলীয় সিদ্ধান্তও মানেন না। তিনি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে ঈগল প্রতিকে স্বতন্ত্র নির্বাচন করে পরাজিত হন। পরাজিত হয়ে দৌলতপুর কলেজ নিজের আয়েত্বে নিতে ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের স্বাক্ষর জাল করে কমিটি ঘোষনা করেছেন।
এবিষয়ে জানতে দৌলতপুর ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও সাবেক মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

সাবেক মন্ত্রীর বিরুদ্ধে স্বাক্ষর জাল করে ম্যানেজিং কমিটি গঠনের অভিযোগ

প্রকাশের সময় : ০৫:১৮:১৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২৪
সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার দৌলতপুর কলেজের ম্যানেজিং কমিটির ১১ সদস্যর স্বাক্ষর জাল করে নতুন কমিটি গঠনের অভিযোগ উঠেছে সাবেক মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে। সাবেক মন্ত্রী নিজেকে সভাপতি হিসেবে নাম ঘোষনা করেছেন। ইতিপূর্বেও তিনি এই কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।’
আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে দৌলতপুর কলেজে সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন সাবেক কমিটির সদস্যরা। সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন, দৌলতপুর কলেজের অধ্যক্ষ মাসুদ রানা, সাবেক সদস্য হাজী পিয়ার হোসেন, সাবেক সদস্য ও দৌলতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলতাফ হোসেন, সাবেক সদস্য শাহিন রেজা, দাতা সদস্য শামসুল আলম মাষ্টার।
সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস দৌলতপুর কলেজে ম্যানেজিং কমিটিতে পর পর দু-বার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। হাইকোর্টের নির্দেশ রয়েছে একই ব্যক্তি পর পর তৃতীয় বার সভাপতির হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না। লতিফ বিশ্বাস আইন না মেনে ম্যানেজিং কমিটির ১১ সদস্যর স্বাক্ষর জাল করে নিজেকে সভাপতি করে ম্যানেজিং কমিটি ঘোষণা করেন। এই কমিটি গঠনের সময় কোন আলোচনা বা নেটিশ করা হয়নি। সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস কলেজের কাগজপত্র নিজ বাড়িতে নিয়ে গিয়ে ম্যানেজিং কমিটির ১১ সদস্যর স্বাক্ষর জাল করে কমিটি গঠন করেছেন যা অবৈধ। আমরা এই কমিটি বাতিল ও নতুন কমিটি গঠনের দাবী করছি।’
বক্তরা আরও বলেন, লতিফ বিশ্বাস আইন মানেন না আবার দলীয় সিদ্ধান্তও মানেন না। তিনি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে ঈগল প্রতিকে স্বতন্ত্র নির্বাচন করে পরাজিত হন। পরাজিত হয়ে দৌলতপুর কলেজ নিজের আয়েত্বে নিতে ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের স্বাক্ষর জাল করে কমিটি ঘোষনা করেছেন।
এবিষয়ে জানতে দৌলতপুর ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও সাবেক মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।