বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

খুলনায় দুই সন্তানকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা

খুলনায় দুই সন্তানকে হত্যার পর এক মায়ের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। শনিবার (২৭ জানুয়ারি) সকালে ডুমুরিয়া উপজেলার ১৩ নং গুটুদিয়া ইউনিয়নের কমলপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলেন উপজেলার কমলপুর গ্রামের মান্নান সরদারের স্ত্রী ডলি বেগম (৩৮) এবং তার মেয়ে ফাতেমা (৬) ও ৭ মাস বয়সী ছেলে ওমর।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, শনিবার সকাল ৮টা থেকে বেলা ১১টার মধ্যে যে কোনো সময় নিজ বাড়িতে পারিবারিক কলহের কারণে ডলি বেগম তার দুই সন্তানকে হত্যা করে নিজে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

ডুমুরিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুকান্ত সাহা জানান, ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত এখনো জানা যায়নি। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

খুলনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আসিফ ইকবাল  বলেন, পুলিশ তিনজনের মরদের উদ্ধার করেছে। মা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। আর দুই সন্তানের মরদেহ পড়েছিল। ঘর আটকানো ছিল।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, ডলি বেগমের স্বামী চাকরি করেন। তিনি আজ সকাল ৮টায় কাজে বেরিয়ে যান। বেলা ১১টার দিকে বাড়ি ফিরে বিষয়টি দেখতে পান। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ডলি বেগম দুই সন্তানকে হত্যার পর নিজে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। তবে এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তীতে সঠিক তথ্য জানানো যাবে।

মৌলভীবাজারে প্রতিপক্ষের হামলার শিকার শিশু মিনহাজ বাদ পড়েনি 

খুলনায় দুই সন্তানকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা

প্রকাশের সময় : ০৮:৩৪:৪০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৪

খুলনায় দুই সন্তানকে হত্যার পর এক মায়ের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। শনিবার (২৭ জানুয়ারি) সকালে ডুমুরিয়া উপজেলার ১৩ নং গুটুদিয়া ইউনিয়নের কমলপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলেন উপজেলার কমলপুর গ্রামের মান্নান সরদারের স্ত্রী ডলি বেগম (৩৮) এবং তার মেয়ে ফাতেমা (৬) ও ৭ মাস বয়সী ছেলে ওমর।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, শনিবার সকাল ৮টা থেকে বেলা ১১টার মধ্যে যে কোনো সময় নিজ বাড়িতে পারিবারিক কলহের কারণে ডলি বেগম তার দুই সন্তানকে হত্যা করে নিজে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

ডুমুরিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুকান্ত সাহা জানান, ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত এখনো জানা যায়নি। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

খুলনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আসিফ ইকবাল  বলেন, পুলিশ তিনজনের মরদের উদ্ধার করেছে। মা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। আর দুই সন্তানের মরদেহ পড়েছিল। ঘর আটকানো ছিল।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, ডলি বেগমের স্বামী চাকরি করেন। তিনি আজ সকাল ৮টায় কাজে বেরিয়ে যান। বেলা ১১টার দিকে বাড়ি ফিরে বিষয়টি দেখতে পান। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ডলি বেগম দুই সন্তানকে হত্যার পর নিজে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। তবে এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তীতে সঠিক তথ্য জানানো যাবে।