বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দেবরকে পুলিশ ধরতে গিয়ে ভাবীর মৃত্যু

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে দেবরকে ধরতে গিয়ে ভাবির ঘরে হানা দেয় পুলিশ। গভীর রাতে পুলিশ দেখে ভয়ে হার্টঅ্যাটাক করে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন চাম্পা বেগম (৬৫)। মঙ্গলবার ভোররাতে উপজেলার সাগরনাল ইউনিয়নের পাতিলাসাঙ্গন গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
মৃত চাম্পা বেগমের মেয়ে হাছনা বেগম, গ্রামের মুরুব্বি শামসুল ইসলাম ও স্থানীয় ইউপি সদস্য শরফ উদ্দিন জানান, রাত ১২টার পর এসআই ফরহাদের নেতৃত্বে পুলিশ ওই নারীর বাড়িতে যায় তার দেবর কোনো এক মামলার আসামি মকবুল আলী বলাইকে ধরতে। সেখানে ভুল করে তার ভাই মৃত শুয়াইব আলীর দরজায় ডাকাডাকি ও বাড়াবাড়ি করে। ঘরে শুয়াইব আলীর স্ত্রী চাম্পা বেগম, তার পুত্রবধূ ও ছোট দুই নাতি নিয়ে বসবাস করেন। ডাকাডাকি ও বাড়াবাড়ির শব্দ শোনে বৃদ্ধা অসুস্থ চাম্পা বেগম দরজা খুলে পুলিশ দেখে ভয়ে তার অসুস্থতা বেড়ে যায় এবং হার্টঅ্যাটাক করে গভীর রাতে মৃত্যুবরণ করেন।
তাদের দাবি হলো- পুলিশকে বেশ সতর্ক হয়ে কাজ করতে হবে। ভুল জায়গায় হানা দিয়ে আর যেন কারো মৃত্যু না ঘটায়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে জুড়ী থানার ওসি এসএম মাইন উদ্দিন বলেন, ওই নারীর সঙ্গে পুলিশের দেখাই হয়নি। তিনি অসুস্থতায় মারা গেছেন।

মৌলভীবাজারে প্রতিপক্ষের হামলার শিকার শিশু মিনহাজ বাদ পড়েনি 

দেবরকে পুলিশ ধরতে গিয়ে ভাবীর মৃত্যু

প্রকাশের সময় : ০৩:৩৬:১৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
মৌলভীবাজারের জুড়ীতে দেবরকে ধরতে গিয়ে ভাবির ঘরে হানা দেয় পুলিশ। গভীর রাতে পুলিশ দেখে ভয়ে হার্টঅ্যাটাক করে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন চাম্পা বেগম (৬৫)। মঙ্গলবার ভোররাতে উপজেলার সাগরনাল ইউনিয়নের পাতিলাসাঙ্গন গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
মৃত চাম্পা বেগমের মেয়ে হাছনা বেগম, গ্রামের মুরুব্বি শামসুল ইসলাম ও স্থানীয় ইউপি সদস্য শরফ উদ্দিন জানান, রাত ১২টার পর এসআই ফরহাদের নেতৃত্বে পুলিশ ওই নারীর বাড়িতে যায় তার দেবর কোনো এক মামলার আসামি মকবুল আলী বলাইকে ধরতে। সেখানে ভুল করে তার ভাই মৃত শুয়াইব আলীর দরজায় ডাকাডাকি ও বাড়াবাড়ি করে। ঘরে শুয়াইব আলীর স্ত্রী চাম্পা বেগম, তার পুত্রবধূ ও ছোট দুই নাতি নিয়ে বসবাস করেন। ডাকাডাকি ও বাড়াবাড়ির শব্দ শোনে বৃদ্ধা অসুস্থ চাম্পা বেগম দরজা খুলে পুলিশ দেখে ভয়ে তার অসুস্থতা বেড়ে যায় এবং হার্টঅ্যাটাক করে গভীর রাতে মৃত্যুবরণ করেন।
তাদের দাবি হলো- পুলিশকে বেশ সতর্ক হয়ে কাজ করতে হবে। ভুল জায়গায় হানা দিয়ে আর যেন কারো মৃত্যু না ঘটায়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে জুড়ী থানার ওসি এসএম মাইন উদ্দিন বলেন, ওই নারীর সঙ্গে পুলিশের দেখাই হয়নি। তিনি অসুস্থতায় মারা গেছেন।