রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শাহজাদপুরে মামলা করেও বিচার পাচ্ছে না, প্রতিপক্ষের হামলায় আহত কৃষক

মামলা করেও বিচার পাচ্ছে না সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের বৃ-আঙ্গারু গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত কৃষক জয়নাল আবেদীন (৬৫) জমি নিয়ে বিরোধের জেরে গত ৪ ফেব্রুয়ারী ওই গ্রামের সাতবাড়িয়া চকে প্রতিপক্ষের হামলা ও মারপিটে মাথা ফেটে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে আশংকাজনক অবস্থায় সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়। এ ঘটনায় আহত কৃষক জয়নাল আবেদীনের স্ত্রী সখিনা খাতুন (৬০) বাদী হয়ে ৫ জনকে আসামী করে শাহজাদপুর থানায় একটি হত্যা চেষ্টা মামলা দায়ের করেন। বাদী পক্ষের অভিযোগ মামলা দায়েরের পর পুলিশ আসামীদের গ্রেপ্তার না করায় তারা আদালত থেকে জামিনে বেড়িয়ে এসে এলাকায় সদর্পে ঘোরাফেরা করছে। ফলে তারা চরম আতংকের মধ্যে রয়েছে।
এ বিষয়ে বাদী সখিনা খাতুন বলেন, আহত জয়নাল আবেদীনের বাবা ক্রয়মূত্রে ওই জমির মালিক। তারপরেও প্রতিপক্ষ আব্দুর রউফ ও তাহের মোল্লা গং ওই জমিতে ওইদিন জোরপূর্বক ইরি ধান রোপন করতে যায়। এতে জয়নাল আবেদীন বাঁধা দিলে প্রতিপক্ষের লোকজন তাকে বেধরক মারপিট ও মাথায় আঘাত করে। ফলে মাথা ফেটে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়। এ ঘটনায় শাহজাদপুর থানায় একটি হত্যা চেষ্টা মামলা দায়ের করা করা হয়েছে। পুলিশ আসামীদের যথা সময়ে গ্রেপ্তার না করায় আসামীরা আদালত থেকে জামিন নিয়ে এলাকায় ফিরে সদর্পে ঘোরাফেরা করছে। ফলে আবারও প্রতিপক্ষের হামলার আশংকায় আমরা আতংকের মধ্যে রয়েছি।’
এ বিষয়ে আব্দুর রউফ বলেন, তাদের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। ঘটনার দিন আমি ও আমার ভাই আজিম ঘটনাস্থলেই ছিলাম না। তারপরেও সম্পূর্ণ ইর্ষান্বিত হয়ে তারা আমাদের দুই ভাইয়ের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। বিষয়টি আদালতকে আমরা বুঝাতে সক্ষম হলে আদালত আমাদের জামিন দিয়েছে। তিনি আরও বলেন, তাদের জাল দলিলের বিরুদ্ধে আদালতে আমাদের একটি মামলা চলমান রয়েছে। ওই মামলা বিলম্বীত করতে এ ধরণের মিথ্যা মারপিটের ঘটনা সাজানো হয়েছে। ওই জমির আসল মালিক আমরা। আমাদের সব কাগজপত্র সঠিক। তাদের সব কাগজপত্র জাল। তাই তারা মামলায় হেরে যাওয়ার ভয়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাদের হয়রানি করছে।
এ বিষয়ে তাহের মোল্লা ও মাসুদ রানা বলেন, তাদের অভিযোগ সত্য নয়। ঘটনার দিন দু‘পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়েছে। কোনোরূপ মারপিট বা মাথা ফাটানোর ঘটনা ঘটেনি। বিষয়টি আদালত আমলে নিয়ে আমাদের জামিন দিয়েছেন। আমরা এখন জামিনে আছি।
এ বিষয়ে আহত জয়নাল আবেদীনের ভাই জেলহক ও মেয়ে জামাই সাইফুল ইসলাম বলেন, ঘটনার দিন কথাকাটাকাটি হয়েছে শুনেছি। মারপিট বা মাথা ফাটানোর ঘটনা শুনিনি। তারা আরও বলেন, ঘটনার সময় আব্দুর রউফ ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল না। তার ভাই আজিম চাকরির সুবাদে বগুড়ায় অবস্থান করছিল।
এ বিষয়ে শাহজাদপুর থানার এসআই সরোয়ার বলেন, মামলাটির তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষ হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া আসামীরা জামিনে রয়েছে। ফলে তাদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি

শাহজাদপুরে মামলা করেও বিচার পাচ্ছে না, প্রতিপক্ষের হামলায় আহত কৃষক

প্রকাশের সময় : ০৯:৫৪:৩১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
মামলা করেও বিচার পাচ্ছে না সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের বৃ-আঙ্গারু গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত কৃষক জয়নাল আবেদীন (৬৫) জমি নিয়ে বিরোধের জেরে গত ৪ ফেব্রুয়ারী ওই গ্রামের সাতবাড়িয়া চকে প্রতিপক্ষের হামলা ও মারপিটে মাথা ফেটে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে আশংকাজনক অবস্থায় সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়। এ ঘটনায় আহত কৃষক জয়নাল আবেদীনের স্ত্রী সখিনা খাতুন (৬০) বাদী হয়ে ৫ জনকে আসামী করে শাহজাদপুর থানায় একটি হত্যা চেষ্টা মামলা দায়ের করেন। বাদী পক্ষের অভিযোগ মামলা দায়েরের পর পুলিশ আসামীদের গ্রেপ্তার না করায় তারা আদালত থেকে জামিনে বেড়িয়ে এসে এলাকায় সদর্পে ঘোরাফেরা করছে। ফলে তারা চরম আতংকের মধ্যে রয়েছে।
এ বিষয়ে বাদী সখিনা খাতুন বলেন, আহত জয়নাল আবেদীনের বাবা ক্রয়মূত্রে ওই জমির মালিক। তারপরেও প্রতিপক্ষ আব্দুর রউফ ও তাহের মোল্লা গং ওই জমিতে ওইদিন জোরপূর্বক ইরি ধান রোপন করতে যায়। এতে জয়নাল আবেদীন বাঁধা দিলে প্রতিপক্ষের লোকজন তাকে বেধরক মারপিট ও মাথায় আঘাত করে। ফলে মাথা ফেটে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়। এ ঘটনায় শাহজাদপুর থানায় একটি হত্যা চেষ্টা মামলা দায়ের করা করা হয়েছে। পুলিশ আসামীদের যথা সময়ে গ্রেপ্তার না করায় আসামীরা আদালত থেকে জামিন নিয়ে এলাকায় ফিরে সদর্পে ঘোরাফেরা করছে। ফলে আবারও প্রতিপক্ষের হামলার আশংকায় আমরা আতংকের মধ্যে রয়েছি।’
এ বিষয়ে আব্দুর রউফ বলেন, তাদের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। ঘটনার দিন আমি ও আমার ভাই আজিম ঘটনাস্থলেই ছিলাম না। তারপরেও সম্পূর্ণ ইর্ষান্বিত হয়ে তারা আমাদের দুই ভাইয়ের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। বিষয়টি আদালতকে আমরা বুঝাতে সক্ষম হলে আদালত আমাদের জামিন দিয়েছে। তিনি আরও বলেন, তাদের জাল দলিলের বিরুদ্ধে আদালতে আমাদের একটি মামলা চলমান রয়েছে। ওই মামলা বিলম্বীত করতে এ ধরণের মিথ্যা মারপিটের ঘটনা সাজানো হয়েছে। ওই জমির আসল মালিক আমরা। আমাদের সব কাগজপত্র সঠিক। তাদের সব কাগজপত্র জাল। তাই তারা মামলায় হেরে যাওয়ার ভয়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাদের হয়রানি করছে।
এ বিষয়ে তাহের মোল্লা ও মাসুদ রানা বলেন, তাদের অভিযোগ সত্য নয়। ঘটনার দিন দু‘পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়েছে। কোনোরূপ মারপিট বা মাথা ফাটানোর ঘটনা ঘটেনি। বিষয়টি আদালত আমলে নিয়ে আমাদের জামিন দিয়েছেন। আমরা এখন জামিনে আছি।
এ বিষয়ে আহত জয়নাল আবেদীনের ভাই জেলহক ও মেয়ে জামাই সাইফুল ইসলাম বলেন, ঘটনার দিন কথাকাটাকাটি হয়েছে শুনেছি। মারপিট বা মাথা ফাটানোর ঘটনা শুনিনি। তারা আরও বলেন, ঘটনার সময় আব্দুর রউফ ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল না। তার ভাই আজিম চাকরির সুবাদে বগুড়ায় অবস্থান করছিল।
এ বিষয়ে শাহজাদপুর থানার এসআই সরোয়ার বলেন, মামলাটির তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষ হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া আসামীরা জামিনে রয়েছে। ফলে তাদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি